বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Tota Roy Choudhury: ‘অক্ষয় হলে এখনই করে দিত, এখানে এসব কেউ পারবে না’, শুনেই ঝাঁপ দেন টোটা! তারপর?

Tota Roy Choudhury: ‘অক্ষয় হলে এখনই করে দিত, এখানে এসব কেউ পারবে না’, শুনেই ঝাঁপ দেন টোটা! তারপর?

টোটা রায়চৌধুরী

ওম'জি বললেন, 'থাক, এসব এখানে কেউ করতে পারবে না। এটা অক্ষয় কুমার হলে এক কথায় করে দিত।' ব্যাস, যজ্ঞাগ্নিতে পোয়াটাক ঘি। আমিও দপ্ । তার মানে বাঙালিরা পারে না? রোখ চেপে গেল। শট আমি দেবই। এবং সবার মানা সত্ত্বেও দিলাম। ওম'জি ছুটে এসে জড়িয়ে ধরে বললেন, ' কেয়া বাত রাজা, সুপার্ব।'

পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ‘ফেলুদা' তিনি। আড্ডা টাইমসের ফেলুদা সিরিজে, ফেলু মিত্তিরের ভূমিকায় দেখা গিয়েছিল টোটা রায় চৌধুরীকে। বরাবরই ফিটনেস ফ্রিক অভিনেতা টোটা রায়চৌধুরী। এর আগে টোটা জানিয়েছিলেন, তিনি ‘দার্জিলিং-এ জমজমাট’-এর শ্যুটিংয়ে নিজেই স্টান্ট করেছেন, কোনও বডি ডাবল নেননি। কারণ, অভিনেতা হিসাবে তাঁর সবকিছুই ‘রিয়েল’পছন্দ। সম্প্রতি, ফেসবুকের পাতায় পুরনো অ্যালবাম ঘেঁটে অঞ্জন চৌধুরী পরিচালিত 'নাচ নাগিনী নাচ রে' ছবির একটা দৃশ্য় শেয়ার করেছেন টোটা। সেখানেও নাচের দৃশ্যে খানিকটা স্টান্ট-ই করতে হয়েছিল টোটাকে। সেসময় মুম্বই থেরে আসা কোরিওগ্রাফার, ওমপ্রকাশও টোটার কাণ্ডে অবাক হয়ে গিয়েছিলেন। লম্বা পোস্টে সেই অভিজ্ঞতাই জানিয়েছেন অভিনেতা। যেটা আবার শেয়ার করেছেন পরিচালক সৃজিত।

টোটা লিখেছেন, 'রবিবার সকাল। স্তূপীকৃত পুরনো ফাইলগুলো পরিষ্কার করতে গিয়ে দৈবাৎ এই ছবিটা হাতে এলো এবং স্মৃতিমেদুরতা উস্কে দিল। এটি 'নাচ নাগিনী নাচ রে' চলচ্চিত্রের স্থিরচিত্র। সেই সময়ে ছবিটি বক্স অফিসে বেশ বড় মাপের সাফল্য লাভ করেছিল। পরিচালনায় ছিলেন প্রবাদপ্রতিম চিত্রনাট্যকার এবং সুপারহিট ডিরেক্টর, শ্রী অঞ্জন চৌধুরী। গানের শুটিং চলছিল জোকা ছাড়িয়ে একটি রিসর্টে। নৃত্য নির্দেশনায় ছিলেন মুম্বাইয়ের কোরিওগ্রাফার, ওমপ্রকাশ। মজাদার, হাসিখুশি মানুষ এই ওম'জি। ভালই চলছিল কিন্তু হঠাৎ করে তাঁর মনে হলো যে হাঁটু গেড়ে বসে থাকা নায়িকার, অর্থাৎ চুমকি চৌধুরীর, মাথার ওপর দিয়ে যদি গোলকিপারের মত ডাইভ্ মেরে শরীরটা শূন্যে ভাসিয়ে দিয়ে হাতের ওপর পড়েই ডিগবাজি খেয়ে উঠে দাঁড়াই তাহলে নাচটার জমে দই হওয়ার একটি প্রভূত সম্ভাবনা রইবে। এদিকে অঞ্জনদা সেদিন অনুপস্থিত। তাঁর তিন সুযোগ্য সহকারী হরোদা, সুভাষদা ও শ্যামাদা এই প্রস্তাবে নিমরাজি। হরোদা ফিসফিস করে বলে গেলেন, 'ডাইভ্ মারিস না। আশেপাশে হাসপাতাল নেই!' আমি তখন দোটানায়। একদিকে, নির্দেশকের নির্দেশ পালন করাই আমার ধর্ম। অন্যদিকে, টানা শুটিং চলবে, সত্যিই যদি চোটজনিত কারণে শিডিউল ভেস্তে যায় তাহলে প্রযোজককে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে এবং সেটার জন্য মূলত আমাকেই দায়ী করা হবে। এক্ষেত্রে যেহেতু পরিচালকই প্রযোজক সেহেতু সহকারীরাও বেঁকে বসেছেন। হতাশ হয়ে ওম'জি বললেন, 'থাক, এসব এখানে কেউ করতে পারবে না। এটা অক্ষয় কুমার হলে এক কথায় করে দিত।' ব্যাস, যজ্ঞাগ্নিতে পোয়াটাক ঘি। আমিও দপ্ । তার মানে বাঙালিরা পারে না? রোখ চেপে গেল। শট আমি দেবই। এবং সবার মানা সত্ত্বেও দিলাম। ওম'জি ছুটে এসে জড়িয়ে ধরে বললেন, ' কেয়া বাত রাজা, সুপার্ব।' গলায় আরোপিত তাচ্ছিল্য এনে বললাম, 'পারফেক্ট নহি হুয়া ওম'জি, ফির সে করতে হ্যায়।' হাঁ করে চেয়ে রইলেন আমার দিকে। আমিও পরপর শট্ দিয়ে গেলাম যতক্ষণ না উনি সর্বসমক্ষে স্বীকার করতে বাধ্য হলেন যে বম্বের মানদণ্ডেও স্টান্ট'টি নিখুঁত হয়েছে। তারপর বিনীত ভাবে ওনাকে গিয়ে বললাম যে আমাকে দেখে অনেকেই একটু আন্ডার-এস্টিমেট্ করে থাকেন কিন্তু বিশ্বাস করুন স্যার, আমিও পারি।'

ঘটনার বেশ কয়েকবছর পর কোরিওগ্রাফার ওমপ্রকাশজি-র সঙ্গে বিমানবন্দরে দেখা হলে ঠিক কী ঘটেছিল, সেকথা জানিয়ে টোটা লিখেছেন, 'এর বেশ কয়েক বছর পর মুম্বই এয়ারপোর্টে ওনার সাথে আবার দেখা। দুজন সহকারীকে নিয়ে হায়দ্রাবাদ যাচ্ছিলেন।।আমি কলকাতায় ফিরছিলাম। গিয়ে অভিবাদন জানাতেই বুকে টেনে নিলেন। সহকারীদের উদ্দেশ্যে বললেন, ' ইয়ে দেখ, বঙ্গাল কা অকশয় কুমার।' আমি অসম্ভব বিব্রত হয়ে প্রবলভাবে মাথা নাড়িয়ে, কোথায়‌ মহাঋষি-কোথায় ছোটোপিসি, মার্কা অভিব্যক্তি দিয়ে বিষয়টির পাশ কাটানোর চেষ্টা করায় উনি সবিস্তারে ঘটনাটি (কিঞ্চিৎ অতিরঞ্জিত করে ) ওনাদের শোনালেন।

না সত্যিই; অক্ষয় কুমার তো বহুদূর, টলি কুমারও হতে পারি নি। পরিকল্পনায় এবং পি.আর-এ অবশ্যই খামতি ছিল কিন্ত পরিশ্রমে ও প্রয়াসে, সততা - অতীতেও ছিল, অধুনাও আছে এবং আজীবনই থাকবে।'

টোটা জানিয়েছেন, মাঝে মধ্যে নবাগতরা তাঁর কাছ থেকে টিপস চান। লিখেছেন, ‘মাঝেমধ্যে নবাগতরা আমার পুরোনো সিনেমাগুলো দেখে, কি ভাবে অ্যাকশন দৃশ্যগুলো করতাম সে ব্যাপারে জানতে চায়, টিপস্ চায়। কি বলব বুঝে উঠতে পারিনা। আমি তো অবিমৃষ্যকারী,অর্ধোন্মাদ ও নির্বোধ এর কিম্ভূত জগাখিচুড়ি ছিলাম! এখনও যে খুব একটা শুধরেছি সেটাও প্রত্যয়ের সঙ্গে দাবী করতে পারি না। অগ্রপশ্চাৎ বিবেচনা না করে হঠকারীর মত, ক্যামেরায় এবং কর্মজীবনে, শুধুমাত্র আবেগের দ্বারায় বশীভূত হয়ে এমন অনেক কিছুই করেছি যেগুলোর জন্য প্রচুর খেসারত দিতে হয়েছে; এখনও দিতে হচ্ছে। তাছাড়া ইদানীং এখানে তো প্রায় সবাই larger than life ছেড়ে slice of life এর পশ্চাতেই ধাবমান। ফলতঃ পাঠান, পুষ্পা তো গ্রহান্তরের; পাগলু-২ নির্মাণেরও সামর্থ্য বা সক্ষমতা, আমাদের ক্রমে ক্রমে হ্রাস পেয়েছে। এমতাবস্থায়, সুস্থ শরীরকে ব্যস্ত করার উপদেশ আমি দিই কোন মুখে? বিশেষ করে যেখানে স্টান্ট দৃশ্যায়নের সময়ে আমাদের সুরক্ষার ও প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থাপনায় অতিজাগতিক ঔদাসীন্য প্রত্যক্ষ করলে হলিউড বা বলিউড, চেলা উড (ইয়ে, চেলা কাঠ) নিয়ে মারতে আসবে।’

পরিচালক সৃজিতকে লেখাটা পড়তে বলে টোটা আরও লেখেন, ‘তবে ক্বচিৎ কদাচিৎ সমগোত্রীয় সহ-উন্মাদের পাল্লায় পড়তে হয় (পড়ুন: সৃজিত মুখার্জি) যিনি, স্টান্টম্যান তৈরি থাকা সত্বেও, আমাকেই আদেশ করবেন যে খাদে লাফ মারতে হবে। আর শুধু লাফ মারলেই চলবে না, মাথাটা খাদের দিকে করে পড়তে হবে এবং পড়েই ক্যামেরার দিকে মুখ ঘুরিয়ে, ঝোপের উপর দিয়ে উল্টো ডিগবাজি খেয়ে, ঠিক গড়িয়ে পড়ার প্রাক্ মুহূর্তে খপ্ করে ডালপালাগুলো খামচে ধরে ঝুলে থাকতে হবে এবং সেটা গোটা সাত-আষ্টেকবার বার করতে হবে যাতে পর্বত,বন ও অন্তরীক্ষ থেকে নানান অ্যাঙ্গেলে শটগুলো নেওয়া যায়। এইধরনের ঝুঁকিপূর্ন পরিস্থিতিগুলোতে পুরনো বিদ্যেটা বড়ই কাজে আসে। তবে শটগুলো মনোমত হবার পর পরিচালক যখন শিশুর মত হাততালি দিয়ে ওঠেন তখন চোট, আঘাত বা রক্তপাত সব সার্থক বলেই মনে হয় এবং সেই মুহূর্তে খুবই জীবন্ত অনুভব করি।’

টোটার পোস্টটি নজর এড়ায়নি পরিচালক সৃজিতের, তিনিও বৃহস্পতিবার এই পোস্ট শেয়ার করে লেখেন, 'আমার ফেলুদা আমায় বরাবরই গর্বিত করে।'

বায়োস্কোপ খবর
বন্ধ করুন

Latest News

ফের বৃষ্টি শুরু শনিবার থেকে, রবিবার বাংলার ১১ জেলায় বর্ষণ, কোথায় কোথায় হবে? ‘আমার ডিভোর্স হয়ে গেছে’, শাক্যর সঙ্গে কেন ভাঙল বিয়ে? প্রথমবার জবাব শোলাঙ্কির ভারতীয় নৌসেনার মহড়া শেষ হতেই মলদ্বীপ ছাড়ল চিনের ‘গুপ্তচর জাহাজ’- রিপোর্ট BPL 2024: ফাইনালের আগে বাংলাদেশ প্রিমিয়র লিগে সব থেকে বেশি রান তামিমের, সেরা পাঁচের ধারে-কাছে নেই শাকিব হাড্ডাহাড্ডি লড়াই, ৫৫ রানে পিছিয়ে আয়ারল্যান্ড, ফিরল ১০০ বছর আগের স্মৃতি নিয়োগ দুর্নীতির 'সেতু' ছিলেন প্রসন্ন, ২০০টি অ্যাকাউন্ট, লেনদেন জানলে ঘুম উড়বে রাজ্যপালের আতিথেয়তায় রাজভবনে রাত কাটাবেন মোদী, আর কোথায় কর্মসূচি? ISRO-র অ্যাডে 'চিনের ছবি বসাল DMK', মোদী তোপ দাগতেই বলল ‘সত্যিটা স্বীকার করুন’ ‘জীবনের সেরা কোলাব..’,চুপিচুপি বিয়ে সারলেন ‘রাসোরে মে কৌন থা’ খ্যাত যশরাজ মুখাটে সিঙ্গুর,নন্দীগ্রামের সঙ্গে তুলনা চলে না-নাম না করে কি সন্দেশখালিই ইঙ্গিত দিদির?

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.