বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > তিন দশক পর বাংলা ছবির গানে কণ্ঠ আশা ভোঁসলের, চমক রয়েছে কিশোর কুমারের কণ্ঠ!
আশা ভোঁসলে-কিশোর কুমার
আশা ভোঁসলে-কিশোর কুমার

তিন দশক পর বাংলা ছবির গানে কণ্ঠ আশা ভোঁসলের, চমক রয়েছে কিশোর কুমারের কণ্ঠ!

  • ফের একবার কিশোর-আশা ম্যাজিক ফিরতে চলেছে। বাংলা ছবিতে আবার শোনা যাবে এই দুই স্বর্ণকণ্ঠ।

আটের দশকে শেষবার বাংলা ছবিতে কণ্ঠ দিয়েছিলেন কিংবদন্তি আশা ভোঁসলে। ১৯৮৯ সালে ‘গুরু’ ছবিতে বাপ্পি লাহিড়ি সুরে বাংলা সিনেমায় শেষবার কণ্ঠ দিয়েছিলেন আশাজি। ‘আধো আলো ছায়াতে, কিছু ভালোবাসাতে..' কিশোর কুমার-আশা ভোঁসলের কণ্ঠ শ্রোতারা শুনতে পেয়েছিল কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী’ ছবির এই গান। তারপর কয়েক দশক পার। 

ফের একবার কিশোর-আশা ম্যাজিক ফিরতে চলেছে। বাংলা ছবিতে আবার শোনা যাবে এই দুই স্বর্ণকণ্ঠ। ছবির নাম ‘হার্ট বিট’। গোবিন্দ শীল পরিচালিত এই ছবিতে দুটি গান গেয়েছেন আশা ভোঁসলে। সেই দুটি গানের একটিতে শোনা যাবে স্বর্গত কিশোর কুমারের কণ্ঠ, তবে সংলাপের আকারে। ছবির সংগীত পরিচালনায় মনোজিৎ গোস্বামী। 

সংগীত পরিচালক মনোজিৎ-এর কথায়, ৮৮ বছরের আশাজি সাধারণত সমস্ত গানের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন। চট করে কোনও গান গাইতে রাজি হননা তিনি। কিন্তু তাঁকে আশাজি নিজের ছেলের মতোই স্নেহ করেন। তাই তাঁর প্রস্তাব ফেরাতে পারেননি। ২০১২ সাল থেকে আশাজির সঙ্গে পরিচয় তাঁর। অজয় দাসের সুরে একটি গানের রেকর্ড করতে গিয়ে পরিচয় হয় গায়িকার সঙ্গে। 

ছবির দুটি গানই মনোজিৎ-এর লেখা। প্রথমটি, ‘তুই কি আমাকে কাছে চাস’। দ্বিতীয়টি, ‘ভাবিনি কখনও এমন হবে’। দুটি গানই গাইবেন আশা ভোঁসলে। প্রথম গানটিতে আশার সঙ্গে গেয়েছেন শান। দ্বিতীয় গানটিতেই আশাজির সঙ্গে শোনা যাবে কিশোরকুমারের কণ্ঠও। তবে তা সুরে নয়, সংলাপের আকারে। বহুবছর আগের কিশোরকুমারের কিছু কথার রেকর্ডিং ছিল মনোজিতের কাছে। অমিতকুমারের লিখিত অনুমতি নিয়ে সেই রেকর্ডিং তিনি গানের মধ্যে ঢুকিয়েছেন দাবি সংগীত পরিচালকের। 

কিশোরকুমারের কণ্ঠে যে সংলাপগুলি শোনা যাবে, ‘জিন্দেগি কা কোই ভরোসা নেহি... কেউ জানে না কবে কী হয়ে যাবে... হঠাৎ একদিন শুনবে আমি নেই...।’ আশা, কিশোর ছাড়াও এই গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন গৌতম ঘোষ। ছবির পরিচালক গোবিন্দ শীল জানিয়েছেন, জানুয়ারি মাসে ছবির শ্যুটিং শুরু হবে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে পয়লা বৈশাখ নাগাদ ছবি মুক্তি পেতে পারে। 

 

 

বন্ধ করুন