বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > টুইটার থেকে বিতাড়িত, এবার ‘নিজের বাড়ি’ দেশীয় অ্যাপে দেখা মিলবে ‘দেশি কঙ্গনার’!
কঙ্গনা রানাওয়াত (ANI Photo)
কঙ্গনা রানাওয়াত (ANI Photo)

টুইটার থেকে বিতাড়িত, এবার ‘নিজের বাড়ি’ দেশীয় অ্যাপে দেখা মিলবে ‘দেশি কঙ্গনার’!

  • এবার কি তাহলে দেশীয় অ্যাপে আসছেন বলি কুইন? দেশীয় অ্যাপ কু-এর কর্তৃপক্ষ কঙ্গনাকে স্বাগত জানিয়ে বলেছেন, ‘এটাই তো আপনার বাড়ি’।

সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের নীতি লঙ্ঘনের অভিযোগ। মঙ্গলবার কঙ্গনা রানাওয়াতের টুইটার অ্যাকাউন্ট স্থায়ীভাবে স্থগিত করা হয়। এরপরই স্বদেশী ‘কু’ অ্যাপের প্রতিষ্ঠাতারা তাঁকে তাঁদের প্ল্যাটফর্মে স্বাগত জানান। তাঁরা বলেন এটি ‘তাঁর বাড়ির মতো’।

কু-এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা অপ্রমেয় রাধাকৃষ্ণ ফেব্রুয়ারিতে অভিিনেত্রী এই প্ল্যাটফর্মে যোগ দিতেই কঙ্গনার প্রথম পোস্টটি শেয়ার করেছিলেন। তিনি লেখেন, ‘এটা কঙ্গনার প্রথম ‘কু’। তিনি ঠিক বলেছিলেন। এটি তাঁর নিজের বাড়ির মতো। অন্য সব যেন ভাড়া বাড়ি’।

নিজের প্রথম পোস্টে অভিনেত্রী লিখেছিলেন, ‘নমস্কার জানাই সকলকে। ‘ধাকড়’ ছবির কলাকুশলীরা এখন মধ্যাহ্নভোজনের বিরতি পেয়েছে। এটা আমার কাছে নতুন মঞ্চ। তাই বুঝতে সময় লাগবে। কিন্তু ভাড়া বাড়ি চিরকাল ভাড়াই থাকে। নিজের বাড়িতে যেন শান্তি’।

কু-এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা অপ্রমেয় রাধাকৃষ্ণ-র মন্তব্য
কু-এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা অপ্রমেয় রাধাকৃষ্ণ-র মন্তব্য

কু-এর অপর এক সহ প্রতিষ্ঠাতা ময়াঙ্ক বিড়াওয়াটকাও কঙ্গনাকে স্বাগত জানিয়েছেন সেই প্ল্যাটফর্মে। তিনি লিখেছেন, ‘কঙ্গনাজি, এটা আপনার নিজের বাড়ি। এখানে স্ব-সম্মানে আপনি নিজের মতামত প্রকাশ করুন’। 

কু-এর অপর এক সহ প্রতিষ্ঠাতা ময়াঙ্ক বিড়াওয়াটকা-এর মন্তব্য
কু-এর অপর এক সহ প্রতিষ্ঠাতা ময়াঙ্ক বিড়াওয়াটকা-এর মন্তব্য

প্রসঙ্গত, বাংলায় একুশের বিধানসাভা ফলাফলের পর ভোট পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ে একাধিক বিতর্কিত টুইট করেছিলেন কঙ্গনা। অভিনেত্রীর টুইটে হিংসা ছড়াচ্ছে বাংলায় এমনই অভিযোগ তুলে কলকাতা হাইকোর্টের এক আইনজীবী কোর্টে মামলা করেন। মঙ্গলবার দুপুরে কঙ্গনা রানাওয়াতের টুইটার অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ডেড করা হয়। বাংলার ভোট পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ে একাধিক টুইট করেছিলেন তিনি। যা টুইটারের ‘Hateful Conduct’ নীতির বিরুদ্ধে, অর্থাৎ ঘৃণা ছড়ায় এমন বার্তা দিচ্ছিলেন কঙ্গনা।

যদিও অ্যাকাউন্ট স্থগিতের পর থামেননি কঙ্গনা। ইনস্টাগ্রামে একটি ভিডিয়ো বার্তা পোস্ট করেন তিনি। টুইটারের উদ্দেশে কঙ্গনার বার্তা- ‘টুইটার প্রমাণ করে দিয়েছে আমার দৃষ্টিকোণ, ওঁরা আমেরিকান, এবং জন্মগতভাবে শ্বেতাঙ্গারা বিশ্বাস করে বাদামী চমড়ার মানুষ ওদের দাস। ওরা তোমরা কী বলবে বা ভাববে, সেটা নিয়ন্ত্রণ করতে চায়। সৌভাগ্যবশত আমার কাছে আরও অনান্য মাধ্যম রয়েছে, যেখানে আমি নিজের বাক স্বাধীনতা প্রয়োগ করতে পারব, আমার নিজের শিল্প-ভাবনা নিয়ে কথা বলব। এর মধ্যে অবশ্যই রয়েছে, আমার সিনেমা।তবে আমার মন কাঁদছে আমার দেশের সেইসব মানুষের কথা ভেবে যাঁরা বছরের পর বছর নির্যাতিত হচ্ছে, অত্যাচারের শিকার হচ্ছে… এবং তাঁদের এই কষ্টের শেষ নেই’।

উল্লেখ্য, এই ঘটনার জেরে দেশের দুই প্রখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনার আনন্দ ভূষণ এবং রিমঝিম ডাদু ভবিষ্যতে আর কোনও দিন অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউতের সঙ্গে কাজ করবেন না বলে জানিয়েছেন। তাঁদের আগামী বেশ কিছু কাজের ঘোষণা বাতিল করেছেন তাঁরা। এমনকি এর আগে যা কাজ করেছেন, সেই সমস্ত ছবি এবং ভিডিয়ো সামাজিক মাধ্যম থেকে তুলে নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তাঁরা।

 

বন্ধ করুন