বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Aishwarya Rai Bachchan: ৫ ঘন্টার ম্যারাথন জেরা, পানামা নথি কাণ্ডে ইডির কী কী প্রশ্নের মুখে ঐশ্বর্য?
ঐশ্বর্য রাই বচ্চন  (Amit Sharma)
ঐশ্বর্য রাই বচ্চন  (Amit Sharma)

Aishwarya Rai Bachchan: ৫ ঘন্টার ম্যারাথন জেরা, পানামা নথি কাণ্ডে ইডির কী কী প্রশ্নের মুখে ঐশ্বর্য?

  • দিল্লির ইডি দফতর থেকে বার হওয়ার পরেই ঐশ্বর্যকে ঘিরে ধরে সংবাদমাধ্যম। ভিড় ঠেলে গাড়িতে উঠতে নাজেহাল বচ্চন বধূ। 

দিল্লিতে ইডি দফতরের বাইরে সোমবার দিনভর ছিল সংবাদমাধ্যমের বিরাট জমায়েত। মিডিয়ার নজর এড়িয়ে দিল্লির লোকনায়ক ভবনে ইডি দফতরে প্রবেশ করলেও ৫ ঘণ্টা ধরে ম্যারাথন জেরার মুখোমুখি হওয়ার পর সেখান থেকে বেরোতে গিয়ে নাজেহাল হন ঐশ্বর্য। দেহরক্ষীদের একটা বিরাট ফৌজও পরিস্থিতি সামলাতে হিমসিম খেয়ে যায়। অপেক্ষারত সাংবাদিকরা ওই ঠেলাঠেলির মাঝেই পানামা নথি বিতর্ক নিয়ে হাজারো প্রশ্নবাণ ছুঁড়ে দেন ঐশ্বর্যর দিকে, যদিও মুখ খোলেননি বচ্চন বধূ। এদিন কালো পোশাকে ইডি দফতরে এসেছিলেন ঐশ্বর্য, মুখে মাস্ক, চোখে কালো রঙের সানগ্লাস! গভীর রাতেও চোখে রোদচমশা লাগিয়েই ধস্তাধস্তির মধ্যে গাড়িতে উঠলেন রাই সুন্দরী। 

এদিন পানামা পেপার্স কেলেঙ্কারি কাণ্ডে ঐশ্বর্যর বয়ান রেকর্ড করল ইডি। কর ফাঁকি দিয়ে বিদেশে টাকা গচ্ছিত রাখবার অভিযোগে ফরেন এক্সচেঞ্জ ম্যানেজমেন্ট অ্যাক্ট, ১৯৯৯-এর আওতায় তাঁর বয়ান নথিভুক্ত করা হয়। এর আগে নিজের বিদেশি সম্পত্তির বিবরণ কেন্দ্রীয় সংস্থার কাছে জমা দিয়েছেন অ্যাশ।  

পানামা কেলেঙ্কারিতে শুরু থেকেই চর্চায় থেকেছে বচ্চন পরিবারের নাম। ঐশ্বর্যর পাশাপাশি অমিতাভ বচ্চন, অভিষেক বচ্চনের নামও জড়িয়ে এই কাণ্ডে। বচ্চন পরিবারকে এর আগেই নোটিশ হাতে ধরিয়ে ইডি জানতে চেয়েছিল ২০০৪ সালের পর থেকে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার এলআরএস-এর আওতায় বিদেশে কোথায় এবং কত পরিমাণ সম্পত্তি গচ্ছিত রেখেছে তাঁরা, তার বিবরণ জমা দিতে। 

কর ফাঁকি দিয়ে বিদেশে টাকা রাখবার অভিযোগ নতুন নয়। দ্বীপ রাষ্ট্র পানামায় আফশোর কোম্পানির মাধ্যমে টাকা রাখতেন বিশ্বের বহু ধনী ও প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বরা, এমনই অভিযোগ। ২০১৬ সালে পানামার একটি লিগ্যাল ফার্ম ‘মোসাক ফনসেকা’-এর তরফে ফাঁস হয়ে যায় সেই সব ব্যক্তিত্বদের নাম, যেখানে উঠে আসে বহু প্রভাবশালী ভারতীয়র নাম। এই লিস্টে নাম রয়েছে ঐশ্বর্যরও। অভিযোগ কর ফাঁকি দিয়ে বিদেশে টাকা জমিয়েছেন অ্যাশ।

এদিন ইডির একগুচ্ছ প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়েছে ঐশ্বর্যকে। সূত্রের খবর, ঐশ্বর্যর কাছ থেকে তদন্তকারী অফিসাররা জানতে চান, কীভাবে তাঁদের (যে কোম্পানির ডিরেক্টর পদে ছিলেন ঐশ্বর্য) সঙ্গে যোগাযোগ হল নায়িকার? জানা যায়, নায়িকার পাশাপাশি তাঁর বাবা মাও এই কোম্পানির সঙ্গে যুক্ত। ‘আপনার পরিবার কীভাবে যুক্ত হল এই জালিয়াতির সঙ্গে?’ এই প্রশ্নও রাখা হয় ঐশ্বর্যর সামনে। আগামিদিনে ফের ইডির জেরার মুখে পড়তে হবে কিনা ঐশ্বর্যকে তা স্পষ্ট নয়। জানা যাচ্ছে, খুব শীঘ্রই এই মামলায় অমিতাভ বচ্চনকেও তলব করতে পারে ইডি। 

বন্ধ করুন