মেয়ে নায়সার সঙ্গে অজয় (সৌজন্যেঃইন্সটাগ্রাম)
মেয়ে নায়সার সঙ্গে অজয় (সৌজন্যেঃইন্সটাগ্রাম)

ঠাকুর্দার মৃত্যুর পর পার্লারে গিয়ে ট্রোলড নায়সা, ব্যাখ্যা অজয় দেবগণের

  • মে মাসে অজয় দেবগণের বাবা বীরু দেবগণ মারা যাওয়ার পরের দিনই পার্লারে যাওয়ার নিয়ে ট্রোলড হয়েছিলেন অজয় কন্যা নায়সা। এই ঘটনা নিয়ে প্রথমবার মুখ খুললেন অভিনেতা অজয় দেবগণ।
  • অভিনেতা জানান, তিনি জোর করে নায়সাকে সেদিন পার্লারে পাঠিয়েছিলেন।

স্টারকিডরা থাকেন সবসময়ই চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে। তাঁদের সব কর্মকাণ্ড নিয়েই সোশ্যাল মিডিয়া চলে কাটা ছেঁড়া। অজয় দেবগণ ও কাজল কন্যা নায়সাও নেটিজনেদের নজড় এড়ান না। সাম্প্রতিক অতীতে বেশ কয়েকবার ট্রোলিংয়ের শিকার হয়েছেন নায়সা। মে মাসে অজয় দেবগণের বাবা বীরু দেবগণ মারা যাওয়ার পরের দিনই পার্লারে যাওয়ার নিয়ে ট্রোলড হয়েছিলেন নায়সা। এই ঘটনা নিয়ে প্রথমবার মুখ খুললেন অভিনেতা অজয় দেবগণ।

জুম-কে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে অজয় জানিয়েছেন তিনিই সেদিন নায়সাকে পার্লারে পাঠিয়েছিলেন। ঠাকুর্দার মৃত্যুতে মন ভেঙে গিয়েছিল ১৪ বছরের নায়সা। একটু মন ভাল করতেই মেয়েকে পার্লারে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন অজয়। তানাজি:দ্য আনসাং ওয়ারিয়ারের প্রচারমূলক ওই সাক্ষাত্কারে অজয়ের সঙ্গে সামিল হয়েছিলেন সইফ আলি খানও।

পার্লারে ঢোকার মুখেই পাপারাত্জিদের ক্যামেরায় লেন্সবন্দী হন অজয় কন্যা। সেই ছবি ভাইরাল হতে বেশি সময় লাগে নি। তারপরেই নায়সাকে নিয়ে ট্রোলিং শুরু হয়ে যায় ব্যাপক হারে। অজয় জানিয়েছেন, 'তারা জানেও না কি ঘটছে! আমি আপনাদের একটা উদাহরণ দিতে চাই। এর আগে কখনও আমি এটা সম্পর্কে কিছু বলি নি। যখন আমি আমার বাবাকে হারাই, পরের দিন দেখি আমার বাচ্চারা খুব দুঃখে রয়েছে। নায়সা সারা দিন কান্নাকাটি করছিল, বাড়িতে অনেক লোকজনও ছিল। বুঝতেই পারছেন সেটা কেমন পরিস্থিতি ছিল। আমি ওকে(নায়সা) ডাকি এবং বলি, এত মন খারাপ করলে চলবে। তুমি এক কাজ করো বাইরে যাও-গিয়ে খাওয়া দাওয়া করো বা একটু আড্ডা মারো। কিংবা যাও পার্লারে গিয়ে একটু হেয়ার ওয়াশ করে আসো। শুরুতে নায়সা যেতে চাইছিল না। তবে শেষমেষ রাজি হয় এবং পার্লারে যায়। পার্লারে ঢোকার মুখে নায়সার ছবি কিছু পাপারাত্জি তুলে নেয়। নায়সা বাড়ি ফেরার আগেই সেগুলো ভাইরাল হয়ে যায়। ট্রোলাররা বলতে শুরু করে, তোমার দাদু কালই মারা গিয়েছে তোমার কি আক্কেল বিবেচনা বোধ নেই আজ পর্লারে পৌঁছে গেছো? এরপর নায়সা কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি ফিরেছিল। আমি ওর মন ভালো করতে সেখানে পাঠালাম আর এই কাণ্ড ঘটে গেল'।


অভিনেতা আরও যোগ করেন, 'সব জায়গায় ছবি ওঠছে। এবং মানুষজন সে ছবি নিয়ে ভুলভাল মন্তব্য করেছে। এগুলো ছোটদের জন্য খারাপ। ওরা কি ভুল করেছে? এক ১০-১৫ বছরের ছেলে বা মেয়েকে বিচার করা ঠিক নয়'।

কিছুদিন আগেই ক্রপ টপ পড়ে মন্দিরে গিয়ে ফের ট্রোলড হয়ে ছিলেন নায়সা।

সইফ আলি খানও এই বিষয়টির সঙ্গে ভালই পরিচিত। সইফিনা পুত্র তৈমুর বলিউডের সবচেয়ে চর্চিত স্টারকিড। সবসময়ই পাপারাত্জিরা ঘিরে থাকে তৈমুরকে। সইফ জানান,'ছবি তুলতে তৈমুরও খুব বেশি ভালবাসে না। তবে সৌভাগ্যবশত কথা মেনে এখন সারাক্ষণ পাপারাত্জিরা সইফের বাড়ির বাইরে বসে থাকে না। দিনে দিনে বিষয়টা উপদ্রপে পরিণত হয়েছিল। এটা আমরা সে সব মানুষদের জন্য থাকি তাদের জন্য বিরক্তিকর, প্রতিবেশিদের জন্যও। সৌভাগ্যবশত ওরা(পাপারাত্জি) রাজি হয়েছে যে বাড়ির বাইরে ভিড় জমাবে না'।

অজয়-সইফ জুটির তানাজি: দ্য আনসাং ওয়ারিয়ার মুক্তি পেতে চলেছে ১০ জানুয়ারি। ছবিতে ছত্রপতি শিবাজির অনুগত মরাঠা সেনানায়ক তানাজি মালুসারের ভূমিকায় রয়েছেন অজয়কে। ছবির খলনায়ক সইফ আলি খানকে দেখা যাবে মুঘল অনুগত উদয়ভান রাঠোরের ভূমিকায়। ছবিতে থাকছেন অজয় পত্নী কাজলও। তাঁকে দেখা যাবে তানাজির স্ত্রী সাবিত্রীবাঈয়ের ভূমিকায়।

বন্ধ করুন