বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ‘কানাডা কুমার’ বলে ডাকলে কেমন লাগে? কফি উইথ করণ-এ দেওয়া অক্ষয়ের জবাব অবাক করবে
কানাডা কুমার শুনলে কী মনে হয়, কফি উইথ করণ-এ বললেন অক্ষয়।

‘কানাডা কুমার’ বলে ডাকলে কেমন লাগে? কফি উইথ করণ-এ দেওয়া অক্ষয়ের জবাব অবাক করবে

  • ভারতের নাগরিক নন অক্ষয় কুমার। কানাডার পাসপোর্ট রয়েছে অভিনেতার কাছে। এই কারণে প্রায়ই ট্রোলড হন। করণ জোহরের শো-তে এসে মুখ খুললেন তাই নিয়েই। 

‘কফি উইথ করণ’-এর নতুন সিজনের দ্বিতীয় অতিথি ছিলেন অক্ষয় কুমার আর সামান্থা রুঠ প্রভু। আর সেখানেই ট্রোলিং প্রসঙ্গ উঠতে অক্ষয় জানালেন, তাঁর কানাডার পাসপোর্টের জন্য প্রায়ই ট্রোলড হতে হয় তাঁকে। ২০১৯ সালে বিশেষ করে কানাডা-র সিটিজেনশিপ পাওয়ার জন্য আবেদন করার ও লোকসভা ভোটে অংশ না নেওয়ার জন্য মারাত্মক ট্রোলড হতে হয়েছিল তাঁকে। 

করণ ‘কফি উইথ করণ ৭’-এ অক্ষয়কে প্রশ্ন করেন, ‘তোমাকে নিয়ে ট্রোল করা হয়?’ তাতে অভিনেতা উত্তর দেন, ‘হ্যাঁ বেশিরভাগ সময় আমার কানাডার পাসপোর্ট নিয়ে লেখা হয়। যদিও তাতে আমি পাত্তা দেই না।’ এতে করণ বলেন, ‘তোমাকে কানাডা কুমার বলে ডাকা হয়’! ‘হ্যাঁ কানাডা কুমার। আচ্ছা তাই বলেই না হয় ডাকুক।’, উত্তর দেন অক্ষয় কুমার। 

করণ জোহর অক্ষয় কুমারকে এরপর প্রশ্ন করেন, নিজের থেকে ছোট বয়সের নায়িকাদের সঙ্গে অভিনয় করার জন্য ট্রোলড হন? তাতে অক্ষয়ের সহাস্য জবাব, ‘সে তো হিংসে করে! কেন করব না আমি? আমাকে দেখে মনে হয় আমি ৫৫ বছরের?’ আরও পড়ুন: রণবীরের নগ্ন ছবি নিয়ে প্রশ্ন মিমির, ‘একটা মেয়ে এরকম করলে নোংরা বলতেন না?’

হিন্দুস্তান টাইমসকেই অক্ষয় একবার জানিয়েছিলেন মাঝে তাঁর টানা ১৪টা ছবি চলছিল না। তখন কানাডায় থাকা এক বন্ধু অক্ষয়কে পরামর্শ করেছিলেন সে দেশে চলে আসার। আর অক্ষয়ও নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করে দেন। এরপর ১৫তম ছবি চলে যায়। বলিউডে একের পর এক হিট দিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন তিনি। তারপর আর কখনো তাঁর মাথাতেও আসেনি পাসপোর্ট বদলানোর কথা। তবে ইতিমধ্যেই যদিও পাসপোর্ট বদলানোর জন্য আবেদন করে ফেলেছেন তিনি। 

বন্ধ করুন