বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > বেবি বাম্প লুকনোর প্রশ্নই নেই, আঁটোসাঁটো পোশাকে রণবীরের পাশে গদগদ আলিয়া
বেবি বাম্প নিয়ে ছবির জন্য পোজ দিলেন আলিয়া ভাট, পাশে রণবীর।

বেবি বাম্প লুকনোর প্রশ্নই নেই, আঁটোসাঁটো পোশাকে রণবীরের পাশে গদগদ আলিয়া

  • নস্যি রঙের শর্টা ড্রেসে মুম্বইতে দেখা মিলল রণবীর আর আলিয়ার। সোশ্যাল মিডিয়া ভাইরাল এই লুক। 

জুন মাসে মা হতে চলার খবর দিয়েছেন আলিয়া ভাট। ১৪ এপ্রিল বিয়ে করেন রণবীর কাপুর আর আলিয়া। বিয়ের ঠিক আড়াই মাসের মাথায় দেন সুখবর। তারপর থেকেই তাঁকে নিয়ে চর্চা। মহেশ-কন্যার প্রতিটা লুক এখন খতিয়ে দেখছে নেটপাড়া। সবার নজর এখন বেবি বাম্পের খোঁজে।

‘ডার্লিংস’-এর প্রোমোশনে যে কটা পোশাক পরেছেন তাতে বেবি বাম্পের খোঁজ চলেছে। তবে এবার রাখঢাক সব শেষ। বরং শর্ট ড্রেসে মুম্বইয়ের রাস্তায় হাজির হয়েছিলেন অভিনেত্রী শনিবার সক্কাল সক্কাল। সঙ্গে ছিলেন রণবীরও। ফুল হাতা নস্যি রঙের র‍্যাপ ড্রেস পরেছিলেন আলিয়া। আর যাতে স্পষ্ট চোখে পড়ছিল বেবিবাম্প। আরও পড়ুন: আলিয়াকে দেখে উইকেন্ড কাটাবেন শাহরুখ, আর চুমুক দেবেন পানীয়ে, লিখলেন টুইটারে

ঢিলেঢালা পোশাক পরে বেবিবাম্প ঢাকার পথেই হাঁটেননি আলিয়া। যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসের সঙ্গেই তিনি পাপারাৎজিদের ক্যামেরার সামনে পোজ দেন। এরপর ডেকে দেন রণবীরকে। কাপুর-নন্দনও ছবির জন্য পোজ দেন। এরপর ক্যামেরায় একসঙ্গে আসেন তাঁরা।

প্রেগন্যান্সি নিয়ে চুটিয়ে কাজ করে চলেছেন আলিয়া ভাট। হলিউড ছবি ‘স্টোন অফ হার্ট’-এর শ্যুট করেছেন। দেশে ফিরেই করেছেন ‘রকি অর রানি প্রেম কাহানি’র শ্যুট। সঙ্গে চলেছে ‘ডার্লিংস’-এর প্রোমোশন। এরপর আবার শুরু করবেন ‘ব্রহ্মাস্ত্র’-র প্রচার, এই ছবিতেই প্রথমবার স্ক্রিনে একসঙ্গে দেখা যাবে রণবীর আর আলিয়াকে।

তবে খবর আছে রণবীর আর আলিয়া যেতে পারেন একটা ভ্যাকেশনে। বিয়ের পর থেকেই একাধিক প্রোজেক্ট হাতে থাকায় সেভাবে ঘুরতে যাওয়ার সময়ই পাননি। এমনকী, আলাদা আলাদাই থাকতে হয়েছে বেশিরভাগ সময়টা। তাই একটা ছোট্ট ট্যুর তো বনতা হ্যায়! আরও পড়ুন: সোহম-নুসরতের মহানায়ক সম্মান নিয়ে ক্ষোভ মানসী সিনহার গলায়, ‘এটা স্বার্থনীতি…’

আলিয়া প্রেগন্যান্সির খবর দেওয়ার পর থেকেই অনেকে ভেবেছিলেন হাতে থাকা ছবির কাজগুলো হয়তো তিনি শেষ করতে পারবেন না মা হওয়ার আগে। এই নিয়ে অনেক লেখালিখিও হয়েছিল। আর এসবে বিরক্ত আলিয়া ইনস্টায় ক্ষোভ প্রকাশ করে লিখেছিলেন, ‘আমরা এখনও কিছু মানুষের মাথার মধ্যেই বাস করি। আসলে আমরা পিতৃতান্ত্রিক সমাজে আজও বসবাস করি। কোনওকিছুই পিছিয়ে যানি। কাউকে কেউ ফিরিয়ে নিয়ে যেতে আসছে না। আমি একজন নারী, কোনও পার্সেল নই। আমার বিশ্রামের প্রয়োজন নেই, তবে আপনাদের একজন চিকিৎসকের সার্টিফিকেটও আছে জেনে ভালো লাগল। এটা ২০২২ সাল। এই সেকেলে ধারণা থেকে দয়া করে বেরিয়ে আসুন। এবার যদি আপনারা আমাকে একটু এক্সকিউজ করেন। আমার শট রেডি আছে।’

বন্ধ করুন