বাড়ি > বায়োস্কোপ > করোনার জেরে মৃত্যু মার্কিন নাট্যকার টেরেন্স ম্যাকন্যালির, বয়স হয়েছিল ৮১ বছর
চার বার টনি পুরস্কার জিতেছেন ম্যাকন্যালি (ফাইল ছবি-এপি)
চার বার টনি পুরস্কার জিতেছেন ম্যাকন্যালি (ফাইল ছবি-এপি)

করোনার জেরে মৃত্যু মার্কিন নাট্যকার টেরেন্স ম্যাকন্যালির, বয়স হয়েছিল ৮১ বছর

  • করোনাভাইরাস কেড়ে নিল মার্কিন নাট্যজগতের প্রবাদপ্রতিম ব্যক্তিত্ব টেরেন্স ম্যাকন্যালির প্রাণ।ক্যানসারকে জয় করলেও করোনার সঙ্গে লড়াইয়ে হেরে গেলেন 'লাভ!ভ্যালোর!কম্পাশন!'-এর স্রষ্টা।

করোনাভাইরাসের জেরে মৃত্যু হল চারবারের টনি পুরস্কার এবং একবারের এমি পুরস্কার বিজয়ী নাট্যকার,চিত্রনাট্যকার তথা সমকামী আন্দোলনের অন্যতম মুখ টেরেন্স ম্যাকন্যালি। তাঁর বয়স হয়েছিল ৮১ বছর। সংবাদ সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, ফ্লোরিডার হাসপাতালে মৃত্যু হয়ছে তাঁর। মারণরোগ ক্যানসারকে জয় করেছিলেন তিনি, ফুসফুসে ক্যানসার ছিল তাঁর। তবে সুস্থ হয়ে উঠেন এই সমকামী চিত্রনাট্যকার। কিন্তু করোনার কাছে হেরে গেলেন টেরেন্স ম্যাকন্যালি।

তাঁর লেখায় বরাবর উঠে এসেছে প্রেম,সমকামিতা, সমকাম নিয়ে সমাজের বিদ্রুপ, এইডসের মতো সংবেদনশীল বিষয়। তাঁর উল্লেখযোগ্য নাটক ও মিউজিক্যাল গুলির মধ্যে অন্যতম 'কিস অফ দ্য স্পাইডার ওমেন', 'মাস্টার ক্লাস' এবং 'লাভ!ভ্যালোর!কম্পাশন!'।

ব্রডওয়ে থিয়েটার নতুন দিশা পেয়েছিল তাঁর লেখনিতে। ম্যাকন্যালির মৃত্যুতে শোকের ছায়া নাট্য জগতে। ব্রিটিশ অভিনেতা তথা কমেডিয়ান জেমস কর্ডন টুইট বার্তায় লেখেন, ‘একজন প্রকৃত ভদ্রলোক বলতে যা বোঝায় সেটাই ছিলেন ম্যাকন্যালি। মঞ্চের প্রতি তাঁর নিষ্ঠা অতুলনীয়।তাঁর অনুপস্থিতি আজীবন তাড়া করবে আমাদের’।

এর আগে বেশ কিছু তারকার করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশ্যে এলেও মৃত্যুর খবর এই দ্বিতীয়। ম্যাকনলি ছাড়াও করোনার জেরে মৃত্যু হয়েছে অ্যাফ্রো-জ্যাজ গায়ক মানু ডিবাঙ্গোর।

১৯৩৮ সালে ফ্লোরিডার সেন্ট পিটার্সবার্গে জন্ম ম্যাকন্যালির। নিউইয়র্কের কলোম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরাজি সাহিত্য নিয়ে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন এই নাট্য ব্যক্তিত্ব। মাত্র ২৩ বছর বয়সেই ব্রডওয়ে থিয়েটারের সঙ্গে যুক্ত হন তিনি। সময়ের থেকে তাঁর ভাবনা অনেক এগিয়ে থাকত, এমনটাই মত সমালোচকদের। এইডসের প্রেক্ষাপটে লেখা ম্যাকন্যালির দুটি ব্রডওয়ে লিপস টুগেদার এবং টিথ অ্যাপার্ট আজও দর্শক মনকে নাড়িয়ে দেয়।

২০১৯ সালে টনি পুরস্কারের মঞ্চে তাঁর লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্টে সম্মানিত করা হয়। সেই সময় মঞ্চে দাঁড়িয়ে তিনি বলেছিলেন, এই বিশ্বর এই মুহূর্তে সবচেয়ে বেশি শিল্পীর প্রয়োজন, যাতে তাঁরা আমাদের মনে করাতে পারে সত্যি এবং সৌন্দর্য আসতে কী! উদারতা কাকে বলে। থিয়েটার মানুষের মন পাল্টে দেয়, সেই মন যেখানে আদতে আমরা সকলে বসবাস করি’।



বন্ধ করুন