বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > যে কারণে মহিলা ভক্তের কাছে হাত জোড় করে ক্ষমা চাইলেন বিগ বি!
অমিতাভ বচ্চন
অমিতাভ বচ্চন

যে কারণে মহিলা ভক্তের কাছে হাত জোড় করে ক্ষমা চাইলেন বিগ বি!

  • কৃতিত্ব না দিয়েই এক নেট নাগরিকের কবিতা টুইটারে দেওয়ালে পোস্ট করেন অমিতাভ বচ্চন, তারপর যা ঘটল..

সোশ্যাল মিডিয়া অথবা নিজের মাইক্রো ব্লগ, সবেতেই দারুণ সক্রিয় বর্ষীয়ান অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন। প্রায় প্রতিদিনই নিজের মনের কথা সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন তিনি। বিশেষ করে টুইটারে নিয়মিত টুইট করতে দেখা যায় তাঁকে। অনেক সময় সোশ্যাল মিডিয়ায় বিগ বি কবিতা শেয়ার করে থাকেন। 

সম্প্রতি অভিনেতা হাতের চায়ের কাপ নিয়ে, গায়ে শাল জড়িয়ে একটি ছবি পোস্ট করেন। ছবির সঙ্গে একটি কবিতা পোস্ট করেন সেখানে। কিন্তু তাতেই সৃষ্টি হয় বিতর্ক। যার জেরে সঙ্গে সঙ্গে ক্ষমাও চেয়েছেন অভিনেতা।

অভিনেতার ছবির সঙ্গে শেয়ার করা  কবিতাটি লেখা টিশা আগরওয়াল নামে এক লেখিকার। বিগ বি-র টুইটে টিশা রিটুইট করে লেখেন, স্যার, আপনার দেওয়ালে আমার কবিতার পংক্তি উঠে আসা আমার কাছে সৌভাগ্যের ব্যাপার। আমার খুশি আর গৌরব দ্বিগুণ হত, যদি আপনি আমার নামটাও উল্লেখ করতেন। আপনার জবাবের আশায় রইলাম।

টুইট দেখে অভিনেতা তড়িঘড়ি টিশা আগরওয়ালকে তাঁর কবিতার জন্য কৃতিত্ব দিতে একটুও বিলম্ব করেননি। তিনি লেখেন, ‘টিশা দেবী, আমি এখনই জানতে পারলাম, আমার টুইটে ব্যবহার করা একটি কবিতা আপনার লেখা। আমি ক্ষমা চাইছি, বিষয়টা জানতাম না! কেউ আমাকে Twitter বা Whatsapp-এ এটা পাঠিয়েছিল, ভালো লেগেছিল তাই পোস্ট করেছি। আমি ক্ষমা চাইছি’।

অভিনেতার টুইটের পরই ফের রিটুইট করে টিশা লেখেন, ‘স্যার, আপনাকে অন্তর থেকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আপনার মুখে আমার নাম আসা আমার কাছে গর্বের বিষয়, সৌভাগ্য, খুশি আর লেখনীর সর্বশ্রেষ্ঠ পুরস্কার। এটি শুধু কৃতিত্ব দেওয়া নয়, আপনার স্নেহের প্রকাশ, যা আমার কাছে গর্ব। আমার মত এক সাধারণ মাপের লেখিকার নাম আপনার কলমে যেভাবে উঠে এল, তাতে আমার আর কিছু চাওয়ার নেই। আজীবন মনে রাখার মতো অনুভূতি’।

প্রসঙ্গত, কয়েক মাসে আগেও 'আকেলেপন কা বল পেহচান' বলে একটি কবিতা বাবা হরিবংশ রাই বচ্চনের লেখা কবিতা বলে শেয়ার করেছিলেন অভিনেতা। তা নিয়েও বিতর্কে জড়িয়েছিলেন তিনি। কবিতাটি আসলে তাঁর বাবার লেখা নয়, এটি লিখেছিলেন প্রসূন জোশী। অমিতাভ সেটি জানতে পেরেই নিজের ভুল স্বীকার করে ফের একটি পোস্ট করেছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। হাত জোর করা ইমোজি দিয়ে সঠিক লেখকের নাম দেন এবং ক্ষমাপ্রার্থনা চেয়ে নিয়েছিলেন। 

 

বন্ধ করুন