বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > সৃজিতের ছবিতে 'পরিচালক' পাওলি, 'অভিনেতা' অনির্বাণ
এবার সৃজিতের ছবিতে পাওলির 'নির্দেশনা' আর অনির্বাণের 'অভিনয়'। (ছবি সৌজন্যে - হিন্দুস্তান টাইমস)
এবার সৃজিতের ছবিতে পাওলির 'নির্দেশনা' আর অনির্বাণের 'অভিনয়'। (ছবি সৌজন্যে - হিন্দুস্তান টাইমস)

সৃজিতের ছবিতে 'পরিচালক' পাওলি, 'অভিনেতা' অনির্বাণ

  • সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের পরবর্তী ছবি 'লহ গৌরাঙ্গের নাম রে' যাকে বলে কপিবুক মাল্টি-স্টারার।ছবিতে পরমব্রত,অনির্বাণ ও প্রিয়াঙ্কা সরকারের সঙ্গে এবার যোগ হলো পাওলি দামের নামও।

করোনার আগে থেকেই ধুঁকছিল বাংলা ছবি। তবে তাতে না দমে বিগ বাজেটের বদলে ছবির গল্পের ওপর জোর দিয়ে তৈরি হওয়া শুরু হয়েছিল একের পর এক ছবি। ফল পাওয়াও শুরু হয়েছিল হাতেনাতে। তবে তখনও মাল্টি-স্টারার ছবি তেমন তৈরি হচ্ছিল না। ইন্ডাস্ট্রির ফিসফাস, এক তো মাল্টি-স্টারার ছবির বাজেটের ঝুঁকি এই বাজারে বেশিরভাগ প্রযোজক নিতে নারাজ এবং পাশাপাশি বিভিন্ন অভিনেতা, নির্মাতা সংস্থা,পরিচালকদের মধ্যে ব্যক্তিগত সম্পর্কের টানাপোড়েনের জেরেই বড়পর্দা থেকে প্রায় লোপ পেয়েছিল মাল্টি-স্টারার ছবির সংখ্যা। তবে প্রযোজক রানা সরকার কিন্তু সেই 'ঝুঁকি'-টা নিলেন। যোগ্য সঙ্গত করলেন পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়ও।

সৃজিতের পরবর্তী ছবি 'লহ গৌরাঙ্গের নাম রে' যাকে বলে কপিবুক মাল্টি-স্টারার। পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, অনির্বাণ ভট্টাচার্য, প্রিয়াঙ্কা সরকারের তো ছিলেনই এবার তাঁদের সঙ্গে যোগ হলো পাওলি দামের নাম। এই ছবিতে সৃজিতের নির্দেশে অনির্বাণের সঙ্গে এই প্রথমবার জুটি বাঁধছেন পাওলি। ছবিতে একজন পরিচালকের চরিত্রে দেখা যাবে পাওলিকে। আর একজন অভিনেতার চরিত্রেই থাকছেন অনির্বাণ।

আরও নায়িকা থাকতে পাওলি কেন? এ প্রসঙ্গে সৃজিত জানিয়েছেন,' পাওলির সঙ্গে এর আগে আমার জুলফিকার ছবিতে কাজ করেছি। তখনই বুঝেছিলাম ওঁর অভিনয় ক্ষমতা। ও এমন ধরনের অভিনেত্রী যে 'তৈরি' হয়েই সেটে আসে। মানে একেবারে চরিত্রের মধ্যে ঢুকেই। আলাদা করে ওঁকে আর শটের সময় তেমন নির্দেশ দেওয়ার প্রয়োজন হয় না। ফলে ছবি তৈরির অন্যান্য নানান বিষয়ে আরও মন দেওয়া যায়।'

পাশাপাশি পাওলির গলাতেও সৃজিতের কাজের ব্যাপারে মুগ্ধতা শোনা গেল। বললেন,' জুলফিকার-এ সৃজিতের পরিচালনায় কাজ করেছিলাম বটে তবে সেটি ছিল একটি ক্যামিও চরিত্র। এবারেই প্রথম সৃজিতের সঙ্গে বেশ বড় কাজ। চরিত্রটাও যথেষ্ট পছন্দ হয়েছে। আশা করি, দর্শকদের আমার কাজ ভালো লাগবে।' তাছাড়া ছবিতে অনির্বাণের মতো একজন অভিনেতার সঙ্গে কাজ করার ব্যাপারেও উৎসাহ প্রকাশ করেছেন তিনি। ছবিতে কি তাঁর চরিত্রে সৃজিতের ছায়া দেখা যাবে? এ প্রশ্নের জবাবে অভিনেত্রীর হাসিমাখা জবাব,' সৃজিতই একমাত্র এর উত্তর পারবেন।'প্রসঙ্গত, সৃজিতের আসন্ন ওয়েব সিরিজ 'রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেনি'-র অন্যতম মুখ্যচরিত্র যে ভূমিকায় বাংলাদেশের অভিনেত্রী আজমেরি বাঁধন হক অভিনয় করছেন তাতে পাওলিরই অভিনয় করার প্রস্তাব ছিল। ডেটের অভাবে তখন সৃজিতের সঙ্গে জুটি বাঁধতে পারেননি পাওলি। তবে ছবির প্রযোজক রানা সরকারের প্রযোজনায় এর আগেও 'বেডরুম' ও 'চলচ্চিত্র সার্কাস’ ছবিতে কাজ করেছেন পাওলি।

উল্লেখ্য, 'লহ গৌরাঙ্গের নাম রে'-তে শ্রীচৈতন্যে মহাপ্রভুর ভূমিকায় দেখা যাবে পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়কে।লক্ষ্মীপ্রিয়ার চরিত্রে রয়েছেন প্রিয়াঙ্কা সরকার। শোনা যাচ্ছে পরমব্রত,প্রিয়াঙ্কা,অনির্বাণ প্রতিটি চরিত্রের মধ্যে পরস্পরের সঙ্গে একটি যোগসূত্র রয়েছে। তবে সে বিষয়ে এখনই কিছু খোলসা করতে নারাজ কোনও পক্ষ। গোটা বিষয়ে রানা সরকার জানিয়েছেন ছবির কাস্টিং নিয়ে তিনি খুশি। যেভাবে 'লহ গৌরাঙ্গের নাম রে'-এর সমস্ত কাজ এগোচ্ছে তাতে আশাবাদী তিনি। তবে বক্তব্য শেষে যথেষ্ট ইঙ্গিতপূর্ণভাবে তিনি জানালেন ছবির মাল্টি-স্টারার 'স্টারকাস্ট' এর তালিকা কিন্তু এখানেই শেষ নয়। আরও দু'জন জনপ্রিয় অভিনেতা,অভিনেত্রীকে দেখা যাবে 'গৌরাঙ্গের নাম' নিতে। তবে তাঁরা কারা সে বিষয়ে এখনই কিছু বলতে তিনি নারাজ। তবে ছবির পরিচালকের নাম যেখানে সৃজিত মুখোপাধ্যায় এবং তাঁর ট্র্যাক রেকর্ডে 'জুলফিকার' ছবির ওই চোখ ধাঁধানো স্টারকাস্ট সামলানোর রেকর্ড রয়েছে, তাতে আশা করে যায় শেষের সেই নাম দুটিও বেশ জবরদস্ত হতে চলেছে।

বন্ধ করুন