বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > 'আমার লড়াই আমার স্বার্থে, এখানে অনুরাগের কোনও সম্পর্ক নেই', জানালেন রিচা
রিচা-অনুরাগ
রিচা-অনুরাগ

'আমার লড়াই আমার স্বার্থে, এখানে অনুরাগের কোনও সম্পর্ক নেই', জানালেন রিচা

  • কেন আদালতে অভিযোগ, জানালেন সবিস্তারে। 

সম্প্রতি পরিচালক অনুরাগ কশ্যপের বিরুদ্ধে ওঠা যৌন হেনস্থার অভিযোগে সরগরম বলিউড। অভিযোগকারিনী দাবি করেছিলেন শুধু তিনি নন অভিনেত্রী রিচা চড্ডা , হুমা কুরেশি এবং মাহি গিলও হয়েছিলেন পরিচালকের লালসার শিকার । কিন্তু অহেতুক এবং সম্পূর্ণ তৃতীয় ব্যক্তি হিসেবে তাঁর নাম জড়ানো হচ্ছে দাবি করে ক্ষতিপূরণের দাবিতে অভিযোগকারিণীর বিরুদ্ধে আদালতে মানহানির মামলাও দায়ের করেছিলেন রিচা। জানিয়েছেন বলিউড ব্লক ব্লাস্টার গ্যাংস অফ ওয়াসেপুর -এ কাজ করার পর শেষ দশ বছরে হাতে গোনা কয়েকবারই দেখা করেছিলেন দুজনের দেখা হয়েছিল।

কিন্তু অনুরাগের সাথে একাধিক অভিনেত্রী কাজ করেছেন , সেখানে রিচাই কেন হঠাৎ করে এত চটে গেলেন ? এতটা সাবধানতাই বা কেন ? এই প্রশ্নের উত্তরে বরখা দত্তকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে অভিনেত্রী জানান , 'গ্যাংস অফ ওয়াসেপুরের পরে অনুরাগের প্রযোজনায় মাসান ইত্যাদি ছবিতে আমি অভিনয় করেছি। কিন্তু কাজ ছাড়া অন্য কোনও বিষয়ে আমাদের কথাবার্তা প্রায় হতোই না। শেষ দশ বছরে আমাদের কতবার দেখা হয়েছে তা আমি হাতে গুনে বলে দিতে পারি। 'তবে তাঁর এই লড়াই পুরোটাই তাঁর নিজের জন্য , এখানে অনুরাগের কোনও সম্পর্ক নেই বলেই জানিয়েছেন রিচা। জানান , ' অনুরাগ নিজের স্বপক্ষে লড়াই করার জন্য যথেষ্ট সমর্থ। আইনি পরামর্শ দেওয়ার জন্য তাঁর যথেষ্ট অভিজ্ঞ টিম রয়েছে। বহু মানুষ ইতিমধ্যেই তাঁর পাশে দাঁড়িয়েছেন।'

উল্লেখ্য সম্প্রতি নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় কোর্ট অর্ডারের একটি কপি পোস্ট করেন অভিনেত্রী। বোম্বে হাই কোর্টকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানিয়ে লেখেন , ' অবশেষে আমরা জিতেছি , সত্য মেব জয়তে। এখন সেটেলমেন্ট অর্থাৎ যৌথ মীমাংসার খাতিরে আগামী ১২ তারিখ আমাদের পরবর্তী শুনানি নির্ধারিত হয়েছে।আপাতত এটি পাবলিক রেকর্ড এবং খুব সহজেই কোর্টের সাইটে এই রায়ের প্রতিলিপি পাওয়া যাবে।' পোস্ট করা আদালতের রায়ের প্রতিলিপির দ্বিতীয় পাতায় লাল কালিতে একটি বিশেষ জায়গা চিহ্নিত করে দেন রিচা। সেখানে লেখা আছে , 'অভিযোগ প্রত্যাহার করা হচ্ছে' , এবং' নিঃশর্তে ক্ষমা চাওয়া হল। '

যদিও পরবর্তীকালে অভিযোগকারিণী জানান তিনি কারোর কাছে ক্ষমা চাইতে বাধ্য নন , কারণ তিনি যা দাবি করছেন তা সর্বৈব সত্য এবং যা তাঁকে অনুরাগ জানিয়েছিলেন , সেটাই বলেছেন তিনি। কাজেই ক্ষমা চাওয়ার কোনও প্রশ্নই আসেনা।

যদিও যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ব্ল্যাক ফ্রাইডের পরিচালক। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠার পরে ইতিমধ্যেই পাশে দাঁড়িয়েছেন তাঁর দুই প্রাক্তন স্ত্রী কল্কি কোয়েচলিন এবং আরতি বাজাজ। এছাড়াও তাঁর এক প্রাক্তন অ্যাসিস্ট্যান্ট টুইটারে বিশদে লিখেছিলেন , কিভাবে এক উঠতি অভিনেত্রী চরিত্র পাওয়ার জন্য স্বেচ্ছায় তাঁকে যৌনতার প্রস্তাব দিয়েছিলেন এবং অনুরাগ ঘৃণাভরে তা প্রত্যাখ্যান করে ঘর থেকে বেরিয়ে যান।

 

 

বন্ধ করুন