বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > দাবাং পরিচালকের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছেন আরবাজ,'খান ভাইরা আমার কেরিয়ার শেষ করতে চেয়েছে',অভিযোগ অভিনবের
অভিনব কশ্যপের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছেন আরবাজ খান 
অভিনব কশ্যপের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছেন আরবাজ খান 

দাবাং পরিচালকের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছেন আরবাজ,'খান ভাইরা আমার কেরিয়ার শেষ করতে চেয়েছে',অভিযোগ অভিনবের

  • 'খান ভাইরা আমার কেরিয়ার শেষ করতে চেয়েছে',ফেসবুক পোস্টে এমনই বিস্ফোরক অভিযোগ আনেন দাবাং ছবির পরিচালক অভিনব কশ্যপ।

মঙ্গলবার গোটা দেশে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতেত ছিলেন দবাং পরিচালক অভিনব কশ্যপ। সোশ্যাল মিডিয়ায় সলমন খান ও তাঁর গোটা পরিবারকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন এই পরিচালক। সলমন খান ও তাঁর পরিবারের ষড়যন্ত্রের জন্যই নাকি তিনি একের পর এক ছবির কাজ হারান,মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন-এমনকি তাঁকে খুনের হুমকিও দেওয়া হয়েছে,এমনই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ এনেছেন অভিনব কশ্যপ।

অভিনব কশ্যপের এই অভিযোগের বিরুদ্ধে এবার মুখ খুললেন আরবাজ খান। হিন্দুস্তান টাইমসকে দাবাং ছবির প্রযোজক তথা দাবাং টুয়ের পরিচালক আরবাজ জানান,'শেষবার অভিনবের সঙ্গে আমার যোগাযোগ হয় ২০১২ সালে, দাবাং টুয়ের কাজ শুরু করবার আগে'। তিনি আরও জানান,'আমরা ইতিমধ্যেই আইনি ব্যবস্থা নিয়েছি,এমনকি এই পোস্টের আগে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ও আরও একটি পোস্ট করেছিল (যেখানে অভিনব অভিযো জানান,আরবাজ ও সলমনের সঙ্গে মনোমালিন্যের জন্যই দাবাং ফ্রাঞ্চাইসি থেকে তাঁকে সরে যেতে হয়)। আমাদের সঙ্গে অভিনবের কোনওরকম যোগাযোগ নেই দাবাং টুয়ের কাজ শুরুর পর থেকে। পেশাগতভাবে আমরা পুরোপুরি আলাদা হয়ে গিয়েছি। এইগুলো কোথা থেকে উঠে আসছে আমি জানি না। কিন্তু হ্যাঁ, আমরা আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছি'।

সলমন খানের দাবাং ছবির পরিচালক অভিনব কশ্যপ সোমবার এক দীর্ঘ ফেসবুক পোস্টে  জানান, ‘১০ বছর ধরে আমাকে শোষণ করছে, বুলি করছে আরবাজ খান’।দবাং সুপারহিট হওয়ার পরেও দাবাং টু'র পরিচালকের আসনে ছিলেন না অভিনব। ছবির ঘোষণার পর তিনি সেই প্রজেক্ট ছেড়ে বেরিয়ে আসেন।

এই ঘটনা নিয়ে তিনি বলেন, ‘১০ বছর আগে দাবাং টু থেকে বেরিয়ে এসেছিলাম কারণ আরবাজ খান, সোহেল খান ও তাঁর পরিবারের যোগ সাজশ। তাঁরা আমার কেরিয়ারের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের হাতে নিতে চেয়েছিল, আমি বারবার বুলিং এর শিকার হয়েছি। আরবাজ খান শ্রী অষ্টবিনায়ক ফিল্মসের সঙ্গে আমার দ্বিতীয় প্রজেক্ট হতে দেয়নি। আমি সই করার পর আরবাজ খান ব্যক্তিগতভাবে সেখানকার প্রধান রাজ মেহতাকে ফোন করেন এবং ভয় দেখান আমাকে নিয়ে কাজ করলে ফল ভুগতে হবে। ফলে আমাকে সাইনিং অ্যামাউন্ট ফেরত দিতে হয়েছিল,এরপর আমি ভায়াকম পিকচারসে যাই। সেখানেও একই ঘটনা ঘটে। তবে এইবার ষড়যন্ত্রকারী ছিল সোহল খান'। 

অভিনব পরিচালিত রেশরম ছবির মুক্তি আটকাতেও নাকি উঠে পরে লেগেছিল খান পরিবার বলে ফেসবুক পোস্টে উল্লেখ করেন পরিচালক। তিনি আরও লেখেন, 'এইভাবেই বছর বছর ধরে আমার সমস্ত প্রজেক্ট ও ক্রিয়েটিভ কাজের ক্ষতি করতে শুরু করে এবং আমাকে খুনের হুমকি দেওয়া হয়,বাড়ির মেয়েদের ধর্ষণের হুমকি আসতে থাকে। নিজের উপর আস্থা হারাতে থাকি ও রাগ হতে থাকে। আর সে কারণেই ২০১৭ সালে পরিবারের থেকে দূরে যেতে থাকি, যা শেষ পর্যন্ত বিবাহ বিচ্ছেদ ও পরিবারের সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যায়'।

অভিনবের এই অভিযোগ নিয়ে কার্যত উত্তাল সোশ্যাল মিডিয়া। মঙ্গলবার দিনভর টুইটারে সলমন খান বিরোধী ট্রেন্ড চোখে পড়ে। যদিও এই বিতর্ক থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রেখেছেন পরিচালক অভিনব কশ্যপের দাদা পরিচালক-প্রযোজক অনুরাগ কশ্যপ। এই মৌনতার কারণ হিসাবে তিনি টুইটারে জানান,'আজ থেকে প্রায় দু বছর আগে আমাকে অভিনব পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছিল ওঁর কোনও ব্যাপারে নাক না গলাতে,তাই ও যা বলছে বা যা করছে সেটা নিয়ে আমার কোনও বক্তব্য করা সাজে না'।

বন্ধ করুন