বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > PPE কিটে পরে ICU-তে ঘুঙরু গানে তুফান নাচ অসমের চিকিত্সকের, কুর্নিশ হৃত্বিকের
অসমের চিকিত্সকের এই অদম্য স্পিরিটকে কুর্নিশ জানাচ্ছেন নেটদুনিয়া 
অসমের চিকিত্সকের এই অদম্য স্পিরিটকে কুর্নিশ জানাচ্ছেন নেটদুনিয়া 

PPE কিটে পরে ICU-তে ঘুঙরু গানে তুফান নাচ অসমের চিকিত্সকের, কুর্নিশ হৃত্বিকের

  • হৃত্বিক রোশনও মুগ্ধ শিলচর মেডিক্যাল কলেজের ইএনটি সার্জনের এই নাচে। 

গত আট মাস ধরে একদম প্রথমসারিতে দাঁড়িয়ে করোনার সঙ্গে যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছেন গোটা বিশ্বের চিকিত্সক, নার্সরা। করোনা রোগীদের মনোবল বাড়াতে নানান সময় নানা কাজ করে থাকেন তাঁরা সকলে। আর সকলকে চমকে দিয়ে অবাক কাণ্ড ঘটিয়ে বসলেন অসমের এক চিকিত্সক। পিপিই কিট পরেই হৃত্বিক রোশনের ঘুঙরুর তালে তাল মেলালেন শিলচর মেডিক্যাল কলেজের চিকিত্সক, ডঃ অরূপ সেনাপতি। এই ভাইরাল ভিডিয়োটি টুইটারে শেয়ার করে নিয়েছেন তাঁর সহকর্মী, সৈয়দ ফয়জান আহমেদ।

যে নিখুত দক্ষতার সঙ্গে হৃত্বিক রোশনের ওয়ার ছবির এই গানে ব্রেক-ডান্স করেছেন অরুপ, তাতে মেনে নিতেই হবে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ডান্সার তিনি, কারণ হৃত্বিকের বেশ কিছু সিগনেচার স্টেপে অপূর্ব দক্ষতার সঙ্গে নেচেছেন তিনি। এই নাচ থেকে মুগ্ধ টুইটারের বাসিন্দারা। সকলেই কুর্নিশ জানাচ্ছে এই করোনা যোদ্ধার প্রতিভাকে। নিমেষেই ভাইরাল হয়ে যায় এই ভিডিয়ো। পঞ্চাশ হাজারের বেশি লাইক পড়েছে ডঃ ফয়জানের টুইটে, ১০ হাজারেরও বেশিবার রিটুইট হয়েছে এটি। স্বভাবতই এই ভাইরাল ভিডিয়ো পৌঁছে গিয়েছে খোদ হৃত্বিক রোশনের কাছে। 

হৃত্বিক মুগ্ধ ডঃ অরুপের নাচে। তিনিও এই টুইট রিটুইট করে লেখেন- 'দয়া করে অরুপকে বলবেন আমিও ওঁনার কাছ থেকে এই স্টেপ শিখতে চাই এবং যত ভালো উনি নাচছেন, ততটাই ভালো একদিন নাচতে চাই অসমে গিয়ে। অদম্য স্পিরিট।

শিলচরের এই ইএনটি সার্জনের প্রতি ভালোবাসা উজাড় করে দিয়েছেন নেটিজেনরা। সকলের মতেই করোনাকালে একদম প্রথম সারিতে দাঁড়িয়ে এই লড়াই লড়তে লড়তেও যেভাবে রোগীদের মনোরঞ্জন করছেন অরূপ তা সত্যি কুর্নিশযোগ্য।

রবিবারই এই ভিডিয়োটি শ্যুট করা হয়েছে। সোমবার থেকে আগামী ৭ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকবেন অরূপ। অসমের স্বাস্থ্য দফতরের নির্দেশ অনুযায়ী একটানা সাত দিন ডিউটি করতে হয় চিকিত্সকদের এবং পরবর্তী সাত দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকা বাধ্যতামূলক। অরূপ সেনাপতি জানিয়েছেন- ‘এই গানটা আমার আইফোনে বাজছিল, যেটা একটা প্লাস্টিক ব্যাগের ভিতরে ছিল। পরে এডিট করে গানটা বসানো হয়েছে ব্যাকগ্রাউন্ডে’। সেনাপতির কথায় নাচ শুধু তাঁর হবি নয়, প্যাশনও বটে। রাজ্যস্তরে আয়োজিত একাধিক নৃত্য প্রতিযোগিতায় পুরস্কার জিতেছেন তিনি। ২০১০ সালে গুয়াহাটি মেডিক্যাল কলেড থেকে এমবিবিএস পাস করে, এখন ইএনটি সার্জারিতে মাস্টার্স করছেন তিনি। 

বন্ধ করুন