বাড়ি > বায়োস্কোপ > সুশান্তের দিদিদের বিরুদ্ধে FIR দায়ের রিয়ার, CBI-এর হাতে মামলা তুলে দিল মুম্বই পুলিশ
প্রিয়াঙ্কা সিংয়ের বিরুদ্ধে এফআইআর রিয়ার  (PTI)
প্রিয়াঙ্কা সিংয়ের বিরুদ্ধে এফআইআর রিয়ার  (PTI)

সুশান্তের দিদিদের বিরুদ্ধে FIR দায়ের রিয়ার, CBI-এর হাতে মামলা তুলে দিল মুম্বই পুলিশ

  • সুশান্তের দুই দিদি, প্রিয়াঙ্কা সিং এবং মীতু সিং ও চিকিত্সক তরুণ কুমারের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করলেন রিয়া চক্রবর্তী।

সোমবার বান্দ্রা পুলিশ থানায় ৬ ঘন্টা ধরে সুশান্তের দুই দিদি, প্রিয়াঙ্কা সিং এবং মীতু সিং ও চিকিত্সক তরুণ কুমারের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করলেন রিয়া চক্রবর্তী। নয়া দিল্লির রামমোনহর লোহিয়া হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর ডঃ তরুণ কুমার। এঁদের তিনজনের বিরুদ্ধে সুশান্তকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়া,প্রতারণা,জালিয়াতি এবং অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনলেন রিয়া। ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৬৪,৪৬৫,৪৬৬,৪৬৮,৪৭৪,৩০৬,১২০ (বি), ৩৪ ধারায় এবং এনডিপিএস আইন, ১৯৮৫ এর আওতায় ৮(সি), ২১,২২, এবং ২৯ এর আওতায় এফআইআর দায়ের করেছেন সুশান্তের লিভ ইন পার্টনার রিয়া চক্রবর্তী। 

১৪ জুন বান্দ্রার অ্যাপার্টমেন্ট থেকে উদ্ধার হয় সুশান্ত সিং রাজপুতের দেহ, প্রাথমিক তদন্তে মুম্বই পুলিশের দাবি ছিল আত্মহত্যা করেছেন অভিনেতা। 

হিন্দু্স্তান টাইমসের হাতে রয়েছে রিয়ার এফআইআরের কপি। 

এন অম্বিকা, ডেসিপি (হেডকোয়াটার্স-১) তথা মুম্বই পুলিশের মুখপাত্র জানিয়েছেন, ‘রিয়ার অভিযোগের ভিত্তিতে একটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে বান্দ্রা পুলিশ থানায়। সুপ্রিম কোর্টের রায় মেনে এই এফআইআর হস্তান্তর করে দেওয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা (সিবিআই) এর হাতে, বিস্তারিত তদন্তের জন্য’।

সুশান্ত মামলার মূল অভিযুক্ত, যাঁর বিরুদ্ধে তদন্ত চালাচ্ছে তিন কেন্দ্রীয় সংস্থা সিবিআই,ইডি এবং এনসিবি সেই রিয়া নিজের প্রেমিকের মৃত্যুর জন্য সুশান্তের দুই দিদি এবং রামমোনহর লোহিয়া হাসপাতালের এক চিকিত্সকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করলেন এনডিপিএস আইন এবং টেলিমেডিকাল প্র্যাকটিস গাইডলাইন,২০২০ আওতায় নিষিদ্ধ ওষুধ প্রয়াত অভিনেতার জন্য প্রেসক্রাইব করায়।

গোটা দেশে চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে থাকা মামলায় নতুন টুইস্ট যোগ করল রিয়ার এই অভিযোগ।

রিয়ার মতে, ‘সুশান্ত এবং তাঁর দিদি প্রিয়াঙ্কার মধ্যেকার বেশ কিছু হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট প্রকাশ্যে এসেছে ৮ জুনের যা অত্যন্ত বিরক্তিকর এবং একাধিক আইনের বিরুদ্ধে’।

'সেই মেসেজে প্রিয়াঙ্কা প্রয়াতকে বেশকিছু ওষুধ খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন যা এনডিপিএস আইনের আওতায় নিয়ন্ত্রিত। এবং আশ্চর্যের ব্যাপার হল সেই দিনই প্রিয়াঙ্কা সুশান্তকে একটি প্রেসক্রিপশন পাঠান রাম মনোহর লোহিয়া হাসপাতালের চিকিত্সক তরুণ কুমারের', এফআইআরে উল্লেখ করেন রিয়া।

'এই ডকুমেন্ট (প্রেসক্রিপশন) থেকেই জাল মনে হচ্ছে। এবং ডঃ তরুণ কুমার এনডিপিএস আইনের আওতাভুক্ত ওষুধ প্রেসক্রাইব করেছেন প্রয়াতকে তাঁর সঙ্গে কোনওরকম পরামর্শ ছাড়া যা আইনবিরুদ্ধ', এফআইআরে দাবি রিয়ার।

রিয়ার দাবি এই প্রেসক্রিবশন জাল কারণ সেখানে সুশান্তকে দিল্লির হাসপাতালের আউটডোর রোগী হিসাবে চিকিত্সসা চলছে এমন দেখানো হয়েছে যেখানে প্রয়াত অভিনেতা মুম্বইতে থাকছিলেন। এবং এই ঘটনার মাত্র পাঁচদিনের পর সুশান্তের মৃত্যু হয়।

সোমবার এনসিবি দফতরে প্রায় সাড়ে আটঘন্টা ধরে জেরা চলে রিয়ার। এরপর ব্যালাড স্ট্রিটে এনসিবি অফিস থেকে সোজা সন্ধ্যা ৭ টা নাগাদ বান্দ্রা থানায় পৌঁছান রিয়া। এবং প্রায় ছ ঘন্টা বান্দ্রা থানায় ছিলেন সুশান্ত মামলার মূল অভিযুক্ত। রাত ১২.৫০ নাগাদ বান্দ্রা থানা থেকে জুহু তারায় অবস্থিত নিজের অ্যাপার্টমেন্টের উদ্দেশ্য মুম্বই পুলিশের নিশ্ছিত্র নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে রওনা দেন রিয়া।

বন্ধ করুন