বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Anandamath: বঙ্কিমের আনন্দমঠ নিয়ে আসছে সিনেমা ১৭৭০, খুশি প্রপৌত্র! যদিও বাংলায় হবে না শ্যুট

Anandamath: বঙ্কিমের আনন্দমঠ নিয়ে আসছে সিনেমা ১৭৭০, খুশি প্রপৌত্র! যদিও বাংলায় হবে না শ্যুট

বঙ্কিমচন্দ্রের আনন্দমঠ নিয়ে আসছে সিনেমা ১৭৭০। 

রাম কমল মুখোপাধ্যায় ও এসএস রাজামৌলি বঙ্কিমচন্দ্রে বিখ্যাত উপন্যাস আনন্দমঠকে আনছেন বড় পরদায়। হিন্দি, তেলেগু, তামিল, মালয়ালাম, কানাড়া আর বাংলা ভাষায় তৈরি হবে এই সিনেমা।

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ঐতিহাসিক উপন্যাস ‘আনন্দমঠ’ নিয়ে সিনেমা হতে চলেছে। প্যান ইন্ডিয়া এই ম্যাগনাম অপাস ‘১৭৭০’ আনছেন এসএস রাজামৌলি। পরিচালক অশ্বিনী গঙ্গারাজু। ছবির উদ্যোক্তা রাম কমল মুখোপাধ্যায়। আপাতত জোর কদমে চলছে এই ছবির প্রি প্রোডাকশনের কাজ। 

সম্প্রতি বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের প্রপৌত্র সজল চট্টোপাধ্যায় ‘১৭৭০’-এর গোটা টিমকে শুভেছ্ছা জানিয়েছেন। সঙ্গে রামকমলকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন ‘আনন্দমঠ’ নিয়ে প্যান ইন্ডিয়া ছবি বানানোর জন্য। 

সজলবাবু এই প্রসঙ্গে জানান, ‘বঙ্কিমচন্দ্রের প্রপৌত্র হিসেবে আমার খুব গর্ব হচ্ছে যে আনন্দমঠের মতো একটা ঐতিহাসিক উপন্যাস নিয়ে সিনেমা বানানো হচ্ছে। আমার এটা ভেবে খুব ভালো লাগছে বাংলা থেকে কেউ জাতীয় স্তরে গিয়ে ছবিটা বানানোর কথা ভেবেছেন। আমি রামকমল মুখোপাধ্যায়কে অনেক ধন্যবাদ জানাতে চাই এত বড় একটা দায়িত্ব নিয়ে আনন্দমঠকে বড় পরদায় নিয়ে আসার জন্য। উনি সত্যি খুব ভালো মনের মানুষ।’

জানা গিয়েছে ইতিমধ্যেই রামকমল কলকাতায় এসে দেখা করেছেন বঙ্কিমের প্রপৌত্রের সঙ্গে আর সজলবাবু যেভাবে তাঁর গবেষণায় সাহায্য করছেন তাতে তিনি খুব খুশি। জানান, ‘সজল চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করা নিসন্দেহে ভালো অভিজ্ঞতা। সিনেমা ঘোষণা হওয়ার পর উনি নিজেই আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। জানান গবেষণায় সাহায্য করতে চান তিনি। উনি আমাদের সঙ্গে এই উপন্যাস নিয়ে অনেক প্রেক্ষাপট শেয়ার করেছেন। কোথায় বঙ্কিম লিখেছিলেম বন্দেমাতারম গান, যা আমরা জানতাম না।’

হিন্দি, তেলেগু, তামিল, মালয়ালাম, কানাড়া আর বাংলা ভাষায় তৈরি হবে এই সিনেমা। দশেরার আগেই লিড ঘোষিত হয়ে যাবে। আর দিওয়ালির মধ্যে পুরো কাস্ট। ছবি কবে মুক্তি পাবে তা নিয়ে এখনও বিস্তারিত কোনও তথ্যা সামনে না এলেও, ছবিটির শুটিং শুরু হওয়ার কথা চলতি বছরেই।

রামকমল জানান, এই ছবির শ্যুট প্রথমে বাংলায় করার কথা ভাবা হয়েছিল। কিন্তু এত বিশাল একটা ছবির কাজ করতে যে পরিমাণ সরঞ্জামের প্রয়োজন তা আনতে হবে মুম্বই নয় দক্ষিণ থেকে। যার ফলে খরচও অনেকটাই বেড়ে যাবে। বাজেট ও অন্যান্য বিষয়ের দিকে লক্ষ্য রেখে শ্যুট হায়দরাবাদে করারই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 

 

বন্ধ করুন