বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > জন্মদিনে ট্রোলারদের উদ্দেশে কী বার্তা দিলেন রিমঝিম?
জন্মদিনের এবার ট্রোলারদের উদ্দেশে একটি বার্তা দিলেন রিমঝিম মিত্র। ছবি সৌজন্যে - ট্যুইটার
জন্মদিনের এবার ট্রোলারদের উদ্দেশে একটি বার্তা দিলেন রিমঝিম মিত্র। ছবি সৌজন্যে - ট্যুইটার

জন্মদিনে ট্রোলারদের উদ্দেশে কী বার্তা দিলেন রিমঝিম?

গত রবিবার ছিল ছোটপর্দার অভিনেত্রী রিমঝিম মিত্রের জন্মদিন।সম্প্রতি অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্রকে করা তাঁর ট্রোল নিয়ে সরগরম ছিল নেটদুনিয়া।নিজের জন্মদিনের এবার ট্রোলারদের উদ্দেশে একটি বার্তা দিলেন রিমঝিম।

গত রবিবার ছিল অভিনেত্রী রিমঝিম মিত্রের জন্মদিন। ছোটপর্দার বেশ জনপ্রিয় মুখ তিনি। 'তিতলি' ও 'কৃষ্ণকলি' ধারাবাহিকে তাঁর অভিনয়ে মজেছেন দর্শক। তবে জন্মদিন মোটেই বিরাট করে উদযাপন করেননি তিনি। কারণ হিসেবে সংবাদমাধ্যম টিভি ৯ বাংলা-কে রিমঝিম জানিয়েছেন, 'বর্তমানে যা পরিস্থিতি তাতে আলাদা কোনও সেলিব্রেশন নয়।' রিমঝিম যেই আবাসনে থাকেন সেই একই জায়গায় তাঁর আত্মীয়রাও থাকেন। তাই তুতো ভাইবোনেরা মিলে একসঙ্গে বাড়িতে বসেই গল্প,আড্ডা করে সন্ধ্যেটা কাটিয়েছেন। সঙ্গে ভরপেট খাওয়া তো ছিলই। বয়স যে তাঁর কাছে স্রেফ সংখ্যা বৈ আর কিছু নয় সেকথা নিজের মুখেই জানিয়েছে এই অভিনেত্রী। 

তবে বর্তমানে অভিনেত্রী হওয়ার পাশাপাশি বর্তমানে চর্চায় রিমঝিমের রাজনৈতিক দিকটিও। ভারতীয় জনতা পার্টির সদস্য তিনি। বিভিন্ন সময়ে রিমঝিমের করা একাধিক মন্তব্য উঠে আসে চর্চায়। এর জন্য বেশ কয়েকবার নেটিজেনদের কাছে ট্রোলডও হয়েছেন তিনি। আবার ভিন্ন রাজনৈতিক মনোভাবাপন্ন অন্যান্য টলিউড ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে নেটদুনিয়ায় বিবাদেও জড়িয়েছেন তিনি।ট্রোলিংয়েও কম যান না তিনি। সম্প্রতি, অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্রকে করা রিমঝিমের ট্রোল নিয়ে সরগরম ছিল নেটদুনিয়া থেকে টলিউড।

ওই সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এবার নিজের জন্মদিনের ট্রোলারদের উদ্দেশে একটি বার্তাও দিয়েছেন রিমঝিম।তা কী বললেন 'বার্থডে গার্ল'? অভিনেত্রীর কথায়,'ট্রোলারদের কথায় জনপ্রিয় মুখদের সত্যিই কিছু যায় আসে না। কারণ ট্রোলাররা তো আর ওই ব্যক্তিদের জনপ্রিয় করেননি।" তবে এর সঙ্গে তাঁর সংযোজন,' ব্যক্তিগত স্তরে ট্রোলিং না করলেই ভালো। ব্যক্তিগত আক্রমণ থেকে দূরে থাকায় ভালো।" তবে নেটমাধ্যমে রিমঝিমের সাম্প্রতিক মন্তব্য ও কর্মকান্ড দেখে যদি তাঁর বিরুদ্ধেও এই অভিযোগ ওঠে তখন কী বলবেন এই অভিনেত্রী? রিমঝিমের যুক্তি, ‘ধরুন, সবাই মিলে গল্প করছি। এবার সে সব কথা কেউ আড়ি পেতে শুনলো। এরপর তার থেকে এক লাইন তুলে বলে দিল, ওর মুখের ভাষা তো ওইরকম। সেটা তো ১০০ শতাংশ ঠিক নয়। এক লাইন তুলে হাইলাইট করে দিচ্ছেন যিনি, তিনি তো পুরো কথাটা নাও জানতে পারেন।’

 

বন্ধ করুন