বাড়ি > বায়োস্কোপ > 'ভিলেন' আর্টিস্ট ফোরাম!প্রযোজক-ফোরাম টানাপোড়েন,অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ শ্যুটিং
একে অপরের ঘাড়েই দোষ চাপাচ্ছে দুই সংগঠন 
একে অপরের ঘাড়েই দোষ চাপাচ্ছে দুই সংগঠন 

'ভিলেন' আর্টিস্ট ফোরাম!প্রযোজক-ফোরাম টানাপোড়েন,অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ শ্যুটিং

  • বুধবার থেকেই শ্যুটিং শুরুর কথা ছিল টলিগঞ্জে,কিন্তু শেষ মুহূর্তে সবটাই ভেস্তে গেল!

আজ থেকেই তালা খুলে যাওয়ার কথা ছিল স্টুডিওপাড়ার। শ্যুটিং শুরুর মাত্র কয়েকঘন্টা আগেই অনিদির্ষ্টকালের জন্য টলিগঞ্জে বন্ধ হয়ে গেল শ্যুটিং। দায় কার? আর্টিস্ট ফোরাম নাকি প্রযোজক সংগঠনের?  একে অপরকে দোষারোপ করছে টলিগঞ্জের দুই সংস্থা। করোনা সংকটের আবহেই চরম অনিশ্চয়তার মুখে বাংলা ফিল্ম ও টেলিভিশন ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে যুক্ত কয়েক হাজার মানুষের ভবিষ্যত।

মঙ্গলবার দিনভর ধরেই একটা চাপানউতোর চলছিল টলিগঞ্জে। আশঙ্কা মতোই গভীর রাতে ওয়েস্ট বেঙ্গল টিভি প্রোডিউসার্সদের তরফে ফেসবুকে জানানো হয়, ‘চ্যানেল, ফেডারেশন ও প্রযোজকদের যৌথ উদ্যোগ ও সম্পূর্ণ সহযোগিতা থাকা সত্ত্বেও শুধুমাত্র আর্টিস্ট ফোরামের ইচ্ছাকৃত আপত্তি থাকার কারণে আমরা কাল থেকে শ্যুট শুরু করতে পারছি না। এমতাবস্থায় আমরা সিদ্ধান্ত নিলাম যে যতদিন দেশে করোনা পরিস্থিতি থাকবে ততদিন আমরা শ্যুট শুরু করব না’।

হ্যাঁ, করোনা পরিস্থিতি যতদিন থাকবে ততদিন শ্যুটিং করবেন না প্রযোজকরা। তাঁদের এই সিদ্ধান্তের জন্য আর্টিস্ট ফোরামের উপরই গোটা দায় চাপানোর চেষ্টা করেছে প্রযোজক সংগঠন। যদিও সেই কথা মানতে না-রাজ ফোরাম। গোটা ঘটনার কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে ২৫ লক্ষের জীবন বিমা। ফোরামের তরফে দাবি করা হয়েছিল আর্টিস্টদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে ২৫ লক্ষ টাকার বিমা করাতে হবে। যদি শ্যুটিং কেউ করোনা আক্রান্ত হয়ে জীবনহানি হলে সেই বিমার সুবিধা পাবেন কলাকুশলীরা। সেই বিমার খাতে ৫০% দেবে চ্যানেল কর্তৃপক্ষ, ৪০% দেবে প্রযোজকরা এবং ১০% দেবে বাকি কলাকুশলীরা'। ৪ঠা জুন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের নেতৃত্বে প্রযোজক, চ্যানেল কর্তৃপক্ষ, আর্টিস্ট ফোরাম, টেকনিশিয়ানদের ফোরামের বৈঠকে সেই দাবি মেনেও নিয়েছিল চ্যানেল ও প্রযোজক সংগঠন। তবে শেষ মুহূর্তে হলটা কী?  জানা গিয়েছে বিমার নথি এখনও হাতে পায়নি আর্টিস্ট ফোরাম। কবে আসবে সেই নথি তাও বলা যাচ্ছে না। এই সময়ের মধ্যে কোনও অঘটন ঘটলে তার দায়িত্ত্ব যেন দেয় প্রযোজক সংস্থা সেই দাবি রাখা হয়েছিল আর্টিস্ট ফোরামের তরফে।কিন্তু সেই দাবিকে ‘অনায্য’ বলে মনে নিতে রাজি নয় প্রযোজক সংগঠন। 

বুধবার আর্টিস্ট ফোরাম খোলা চিঠিতে সদস্যদের জানায়,’.. অত্যন্ত দুঃখের বিষয় যে যাদের সামনে রেখে তাঁরা সারাবছর ব্যবসা করেন তাদের সামান্যতম স্বাস্থ্য ও সুরক্ষার দায়ও তাঁরা (প্রযোজকরা) নিতে রাজি নন। অথচ ফোরামের কোনও আর্থিক মুনাফা না থাকা সত্ত্বেও শুধুমাত্র শ্যুটিংটা যাতে আটকে না যায় তার জন্য শিল্পীদের হয়ে জীবন বিমার ১০ শতাংশ প্রিমিয়ামের গুরুদায়িত্বও ফোরাম স্বেচ্ছায় ঘাড়ে তুলে নেয়।...কিন্তু তার পরেও শিল্পী কলাকুশলীদের প্রাণ বিপন্ন করেও তারা তাদের ব্যবসা চালিয়ে যেতে চান!’

আর্টিস্ট ফোরামের পাঠানো মেসেজ 
আর্টিস্ট ফোরামের পাঠানো মেসেজ 

'যেহেতু শুটিং শুরুর দিন থেকে শিল্পীদের স্বাস্থ্য ও বীমা সংক্রান্ত বিষয় সম্পর্কে চ্যানেল ও প্রযোজকরা পূর্ণ আশ্বাস আমাদের দিতে পারেনি তাই এই মূহূর্তে ফোরাম আপনাকে শুটিং-এ যোগদান করার পরামর্শ দিতে পারছে না'- মঙ্গলবার রাতেই আর্টিস্ট ফোরামের এই বার্তা দেখেই অনির্দিষ্ট কালের জন্য শ্যুটিং বন্ধ রাখবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রযোজকরা। 

এই বিষয়ে ডব্লিউএটিপি-র সদস্য তথা এসভিএফ এন্টারটেনমেন্টের ডিরেক্টর মহেন্দ্র সোনি জানিয়েছেন,'আমি একই সঙ্গে চিন্তিত এবং হতভম্ব।সবরকম সুরক্ষাবিধির কথা মাথায় রেখে আমরা প্রযোজকরা শ্যুটিং শুরুর ব্যাপারে সবরকম প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। সকল সংগঠনের যৌথ বৈঠকে আমাদের সামনে শিল্পীদের স্বার্থে যা যা দাবি রাখা হয়েছিল সেগুলো সমস্ত মেনে নিয়েছিলাম তবুও শেষ মূহূর্তে বেঁকে বসল আর্টিস্ট ফোরাম।আশা করছি শীঘ্রই সকলের সুমতি ফিরবে এবং আমরা কাজ শুরু করতে পারব'।

আর্টিস্ট ফোরামের জয়েন্ট সেক্রেটারি শান্তিলাল মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন,'এই প্রতিশ্রুতি না পেলে আমরা আমাদের সদস্যদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে যেতে বলব কি করে । আমরা সেটা বলতে পারি না। প্রযোজক সংস্থা ফেসবুকে বললেন , তাঁরা, চ্যানেল ও ফেডারেশন তৈরি থাকলেও আর্টিষ্ট ফোরাম শ্যুটিং করতে দিল না। শ্যুটিং বন্ধ।সদস্যদের এবং কলাকুশলীদের জীবনের সুরক্ষা চেয়ে আর্টিষ্ট ফোরাম আজ ভিলেন'।

বন্ধ করুন