বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > সলমনের সাপের কামড় খাওয়া নিয়ে খুনসুটি ভাগ্যশ্রীর, ‘স্নেকস পয়েন্টে যাবে নাকি?’
সলমন-ভাগ্যশ্রী।
সলমন-ভাগ্যশ্রী।

সলমনের সাপের কামড় খাওয়া নিয়ে খুনসুটি ভাগ্যশ্রীর, ‘স্নেকস পয়েন্টে যাবে নাকি?’

  • গত মাসে জন্মদিনের মাত্র কয়েকঘন্টা আগেই বিষধর সাপ কামড়েছিল সলমন খানকে।

গত মাসে জন্মদিনের মাত্র কয়েকঘন্টা আগেই ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার মুখে পড়েছিলেন সলমন খান। দেশে থাকলে ফি বছর জন্মদিনে নিয়েজের পানভেল ফার্ম হাউজেই সময় কাটান সলমন, সেখানেই বসে তাঁর জন্মদিনের জমকালো পার্টি। তবে তাঁর জন্মদিনের ঠিক আগের দিনই আচমকাই খবর আসে, সাপে কামড়েছে সলমন খানকে। সেই নিয়ে শুরু হয়ে যায় হইচই! খবর ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই ভাইজানের চিন্তায় ঘুম উড়েছিল অনুরাগীদের। 

এরপর জন্মদিনের দিন ভোররাতে হাসিমুখেই সংবাদমাধ্যমের সামনে এলেন সলমন। সলমনের হেলথ আপটেড দিতে গিয়ে বাবা সেলিম খান জানিয়েছিলেন, ‘ওই সাপটি বিষধর ছিল না’। পরে সলমন জানান, 'একবার নয়, পরপর তিন বার সাপের কামড় খেয়েছেন তিনি। এবার সেই ঘটনার কথা উল্লেখ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় সলমনের পিছনে লাগলেন তাঁর 'ম্যায়নে প্যায়ার কিয়া' ছবির নায়িকা ভাগ্যশ্রী।

ভাগ্যশ্রীর সেই পোস্ট। (ছবি সৌজন্যে - ইনস্টাগ্রাম)
ভাগ্যশ্রীর সেই পোস্ট। (ছবি সৌজন্যে - ইনস্টাগ্রাম)

নিজের ইন্সটাগ্রাম স্টোরিতে একটি রেস্তরাঁর ছবি পোস্ট করেছেন ভাগ্যশ্রী। বোর্ডে ওই রেস্তরাঁর নাম ইংরেজিতে লেখা রয়েছে, 'পাহাড়ি বেকার্স অ্যান্ড 'স্নেকস' পয়েন্ট।' রেস্তরাঁর নামের বোর্ডে স্ন্যাক্স এর বদলে ভুলবশত 'স্নেকস' লেখাটি চোখ টেনেছে ভাগ্যশ্রীর। আর এই সুযোগে 'প্রেম' এর পিছনে লাগতে বিলকুল ভুল করেননি 'সুমন'। সলমনকে ট্যাগ করে ভাগ্যশ্রীর জিজ্ঞাসা, 'আজকেই দেখলাম এই রেস্তরাঁর ছবি। একটু খেতে যাবে নাকি স্নেকস পয়েন্টে?' নেটপাড়া কিন্তু এই প্রাক্তন বলি-অভিনেত্রীর এহেন পোস্ট দেখে দারুণ মজা পেয়েছে।

প্রসঙ্গত, জন্মদিনের ভোররাতে পানভেল ফার্ম হাউজের বাইরে মিডিয়ার মুখোমুখি হয়ে সলমন বলেন,' একটা সাপ আমার ফার্মহাউজে ঢুকে পড়েছিল। আমি একটা লাঠির সাহায্যে সেটাকে বাইরে নিয়ে আসি। আসতে আসতে সেটা আমার হাত পর্যন্ত উঠে আসে। আমি এরপর সেটাকে ধরে ছাড়তে গিয়েছিলাম, সেই সময়ই সাপটা আমাকে তিনবার কামড়ে দেয়। ওটা একটা বিষধর সাপ ছিল। এরপর ৬ ঘন্টা আমি হাসপাতালে ভর্তি ছিলাম… এখন ঠিক আছি'। উল্লেখ্য, সাপের কামড় খাওয়ার পর সলমনকে নবী মুম্বইয়ের এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। তবে এখন একদম ফিট আর ফাইন ভাইজান।

বন্ধ করুন