বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > বিদেশেও চর্চায় ভুবনবাবুর 'কাঁচা বাদাম', গানের রিমিক্স করল বিদেশী সংগীত পরিচালক
‘কাঁচা বাদাম’ গানের রিমিক্স
‘কাঁচা বাদাম’ গানের রিমিক্স

বিদেশেও চর্চায় ভুবনবাবুর 'কাঁচা বাদাম', গানের রিমিক্স করল বিদেশী সংগীত পরিচালক

  • বিদেশী সংগীত পরিচালকের কথায়, গানটি থেকে যা উপার্জন হবে সেটা পুরোটাই তিনি ভুবনবাবুকে দিতে চান। নতুন রিমিক্স গানটি যেন অফিসিয়ালি মুক্তি পায়, সেই ব্যবস্থাও করতে চান।

‘‌কাঁচা বাদাম’ গেয়ে নেটদুনিয়ায় ভাইরাল‌ হয়েছিলেন শিল্পী ভুবন বাদ্যকর। গানের লেখা তাঁর, সুর তাঁর, এমনকি গেয়েছেন তিনি। পেশায় তিনি বাদাম বিক্রেতা। এই গান গেয়ে বাদাম বিক্রি করে ভাইরাল হয়েছেন ভুবনবাবু। তারপর বিভিন্ন সময় তাঁর গান নিয়ে রিমিক্স তৈরি হয়েছে। গানের জেরেই রীতিমত ভাগ্য ফিরেছে শিল্পীর। 

তেমনি সাত সমুদ্র তের নদী পেরিয়া ভুবন বাদ্যকারের গানের জয়জয়কার। এক বিদেশী সংগীত পরিচালক ‘কাঁচা বাদাম রিমিক্স’ তৈরি করেছেন। কথায় বলে সংগীতকে বেঁধে রাখা যায় না কাঁটাতার দিয়ে। সে কথাই ফের প্রমাণ হল। তবে এখানেই শেষ নয়, ওই বিদেশী সংগীত পরিচালক জানিয়েছেন, ভুবনবাবুকে আর্থিক সাহায্যও করতে চান তিনি।

‘দ্য কিফনেস’ (The Kiffness) নামক ওই সংগীত শিল্পী মিউজিক ভিডিয়ো রিলিজ করে জানিয়েছেন, গানটি থেকে যা উপার্জন হবে সেটা পুরোটাই তিনি ভুবনবাবুকে দিতে চান। নতুন রিমিক্স গানটি যেন অফিসিয়ালি মুক্তি পায়, সেই ব্যবস্থাও করতে চান তিনি। বর্তমানে ভুবন বাদ্যকারের গান শুধু সুপারহিট বললে ভুল হবে, এইমুহূর্তে নেটপাড়া সরগরম তাঁর গানের ভিডিয়োতে।

প্রসঙ্গত, ভুবনবাবুর গান ভাইরাল হতেই অনেকে নিজের মতো করে গানেক রিমেক করে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে দারুণ উপার্জন করেছেন। সেখান থেকে কানা-কড়িও পাননি ভুবনবাবু। এরপর পুলিশের দারস্ত হন তিনি। সকলেই সেই গান ব্যবহার করায়, গানের কপিরাইট দাবি করে পুলিশে অভিযোগ জানিয়েছিলেন। এরপরই ধীরে ধীরে হাল ফেরে বাদামকাকুর। ভুবন বাদ্যকরের একাধিক মিউজিক ভিডিয়ো ইতিমধ্যে মুক্তিও পেয়েছে। 

 

 

বন্ধ করুন