বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > তৈমুরের কোলে কে এই ছোট্ট খুদে? গালভর্তি হাসিতে স্নিগ্ধতা ছড়াচ্ছে সইফিনা পুত্র
নয়না সাহানির(করিনার ম্যানেজার) ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করা ছবি 
নয়না সাহানির(করিনার ম্যানেজার) ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করা ছবি 

তৈমুরের কোলে কে এই ছোট্ট খুদে? গালভর্তি হাসিতে স্নিগ্ধতা ছড়াচ্ছে সইফিনা পুত্র

  • শীঘ্রই দাদা চলেছে তৈমুর। তার আগে একরত্তিদের সমালানোর আগাম প্র্যাকটিস বোধহয় শুরু করে দিল সইফিনা পুত্র। 

করিনা কাপুর খান ও সইফ আলি খানের ছোট্ট তৈমুর জন্মের পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ার নয়নের মণি। নিজের মিষ্টি হাসি, কিংবা হাবেভাবে বরাবর সকলের মনে আনন্দ ছড়ায় এই একরত্তি। তবে এখন আর ছোট নেই তৈমুর। কারণ দাদার আসনে বসতে চলেছে সে। শীঘ্রই দ্বিতীয় সন্তানের জন্ম দিতে চলেছেন করিনা কাপুর খান। তবে দাদা হওয়ার আগে ছোট্ট ভাই বা বোনকে কীভাবে সামলাতে হবে তা শিখে নিচ্ছে তৈমুর। 

আর এবার সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল তৈমুরের একগুচ্ছ ছবি। যেখানে তৈমুরের  নির্মল হাসি যেন সোশ্যালে তুমুল ভাইরাল। এবার ছোট্ট তৈমুরের কোলে আর এক খুদে। সম্প্রতি তাঁর এমনই একটি ছবি নেটদুনিয়ায় ঘুরপাক খাচ্ছে। তিন বছরের খুদে তৈমুরের ছবি ভাইরাল হতেই নেটিজেনরা এই ছবিকে ‘মূল্যবান’ বলে আখ্যা দিয়েছ।

নয়না সাহানে, করিনা কাপুরের দীর্ঘদিনের ম্যানেজার। অভিনেত্রীর বাড়িতে বুধবার দিওয়ালি পার্টিতে হাজির হয়েছিলেন নয়না।খুদে তৈমুরের কোলে যে বাচ্চাটিকে দেখা যাচ্ছে সে নয়নার মেয়ে সিয়া। অন্য একটি ছবিতে করিনা কাপুর খানকে দেখা যাচ্ছে নয়না ও তাঁর মেয়ের সঙ্গে পোজ দিয়ে ছবি তুলতে। করিনার অন্য এক ম্যানেজার পুনম দামানিয়াকেও ছবিতে পোজ দিতে দেখা যাচ্ছে।

পিসি সোহা আলি খানের মেয়ে ইনায়াকে সারাক্ষণ আগলে রাখে দাদা তৈমুর। ইনায়া-তৈমুর জুটির নানান মুহূর্তের ছবি কখনও সোহা, কখনও করিনা ভাগ করে নেন সোশ্যাল মিডিয়ার দেওয়ালে। ডিসেম্বরেই চার বছর পূর্ণ করবে তৈমুর। আর নতুন বছরেই দাদা হতে চলেছে সে।অগস্ট মাসে যৌথ বিবৃতি দিয়ে দ্বিতীয় সন্তান আসবার কথা জানিয়েছিলেন করিনা। তারপর থেকেই খুশির জোয়ারে ভাসছে কাপুর ও খান পরিবার।

View this post on Instagram

Happy rakshabandhan 💖 #timandinni

A post shared by Soha (@sakpataudi) on

 

সম্প্রতি টাইমস অফ ইন্ডিয়ার একটি সাক্ষাৎকারে করিনা কাপুর খান জানিয়েছেন, ‘সইফ ধর্মশালায় সিনেমার শ্যুটিংয়ের কাজে ব্যস্ত। আমি সেখানে ছিলাম না তবে আমি আর তৈমুর খুব তাড়াতাড়ি সেখানে যাবো। আমরা ঘুরতে যাওয়ার জন্য ব্যবস্থা করছি। পাহাড়ে ভ্রমন একটা দারুণ অনুভূতি। বিশেষ করে খোলা বাতাস এবং মিঠে রোদের অনুভূতি নেওয়া অসাধারন। প্রায় এক বছর হতে চলল আমরা বাড়িতে আটকে ঘুরতে যাইনি কোথাও। তাই ধর্মশালায় গিয়ে কয়েকদিন কাটানোর অনুভূতি দারুন হবে।‘ 

 

 

বন্ধ করুন