বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > যৌন হেনস্থা নিয়ে হাইকোর্টের নয়া রায়ে ক্ষুদ্ধ বলিউড :'এই দেশ হেনস্থাকারীদের জন্যই'
আদালতের রায় নিয়ে নিন্দার ঝড় বি-টাউনে 
আদালতের রায় নিয়ে নিন্দার ঝড় বি-টাউনে 

যৌন হেনস্থা নিয়ে হাইকোর্টের নয়া রায়ে ক্ষুদ্ধ বলিউড :'এই দেশ হেনস্থাকারীদের জন্যই'

  • পোশাকের উপর দিয়ে মেয়েদের গায়ে হাত দিলে তা যৌন হেনস্থা বলে বিবেচিত হবে না, জানাল বম্বে হাইকোর্ট। 

বিশ্বাসই হচ্ছে না, মেনেই নিতে পারছেন না কেউ! এমনটাও সম্ভব? ক্ষোভ উপচে পড়ছে সব মহল থেকেই। যৌন হেনস্থা নিয়ে বম্বে হাইকোর্টের নয়া রায় নিয়ে প্রশ্ন উঠলেন তাপসী পান্নু, সোনি রাজদানরা। 

‘পোশাকের উপর দিয়ে শরীরের অঙ্গ স্পর্শ করলে তা যৌন নির্যাতন হিসাবে গণ্য হবে না’, ২০১৬ সালে এক শিশুর যৌন হেনস্থার মামলায় এই রায় দিল বম্বে হাইকোর্টের নাগপুর বেঞ্চ। যেহেতু শিশুটির জামাকাপড়ের ভিতর হাত গলিয়ে তার শরীরে কোথাও স্পর্শ করা হয়নি তাই এটিকে যৌন নির্যাতন বলা যাবে না। বোম্বে হাইকোর্টের নাগপুর বেঞ্চের মহিলা বিচারপতি পুষ্প গানেদিওয়ালা এই রায় দিয়েছেন রবিবার। অভিযুক্ত ব্যক্তি শিশুকে পেয়ারার লোভ দেখিয়ে ঘরে নিয়ে গিয়ে শিশুকন্যাটির বুকে হাত দেয়। ৩৯ বছরের ওই অভিযুক্তকে পোকসো আইনের ৮ নং ধারার ৩ বছরের সাজা দিয়েছিল নিন্ম আদালত, হাইকোর্টে পালটা আবেদন জানায় সে। ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৫৪ এবং ৩৪২ নম্বর ধারা অনুযায়ী নিম্ন আদালতের সাজাপ্রাপ্তের সাজার মেয়াদ কমে দাঁড়াল ১ বছর!

বম্বে হাইকোর্টের এই রায় নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিন্দার ঝড়। বলিপাড়া এই রায় নিয়ে ক্ষোভ, শঙ্কা, উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। তাপসী পান্নু এই রায় সংক্রান্ত খবরের টুইট রি-টুইট করে লেখেন- ‘আমি অনেকক্ষণ চেষ্ট করলাম তবুও কোনও শব্দ খুঁজে পাচ্ছি না নিজের অনুভূতিটা ব্যক্ত করবার এটা পড়বার পরে’।  এক শিশুকন্যার বাবা, অভিনেতা অঙ্গদ বেদী বিস্ময়ের সুরে প্রশ্ন করেন- 'এটা কি সত্যি? নাকি 

সংগীত শিল্পী চিন্ময়ী শ্রীপদা টুইটারে বিস্ফোরক মন্তব্য করেন। লেখেন- এটাই সেই আইন যার মুখোমুখি হই আমরা মেয়েরা। দারুণ তাই না? এই দেশটা হেনস্থাকারীদের জন্যই'।

আলিয়া ভাটের মা, অভিনেত্রী সোনি রাজদান এই খবর সম্পর্কে বিস্ময় প্রকাশ করে টুইট করেন, ‘কী সাংঘাতিক.. এটা তো প্রত্যেক হেনস্থাকারীর জন্য রাস্তা খুলে দেওয়া… বিস্মিত বললেও কম বলা হবে। হতবাক… এই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানানোর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে’। রীতেশ দেশমুখ প্রতিক্রিয়া দেন, ‘কেউ আমায় দয়া করে বলুন এটা ভুয়ো খবর’। রঘু রাম টুইট করেন, ‘এই দিনটা হেনস্থাকারীদের জাতীয় দিবস হিসাবে চিহ্নিত করা উচিত’। 

জাতীয় শিশু অধিকার সুরক্ষা কমিশন (National Commission for Protection of Child Rights)-এর তরফে এই রায়ের বিরুদ্ধে তড়িঘড়ি আবেদন জানানোর অনুরোধ করা হয়েছে মহারাষ্ট্র সরকারকে। 

বন্ধ করুন