বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ছেলেকে স্তন্যপান করানোর ছবি শেয়ার করে ট্রোলারদের কড়া জবাব দিলেন সেলিনা জেটলি!
সেলিনা জেটলি। 
সেলিনা জেটলি। 

ছেলেকে স্তন্যপান করানোর ছবি শেয়ার করে ট্রোলারদের কড়া জবাব দিলেন সেলিনা জেটলি!

  • ৯ বছর আগে এই ছবির জন্যই তাঁকে নিয়ে হয়েছিল কঠোর সমালোচনা। দেরিতে হলেও জবাব দিতে ভুললেন না অভিনেত্রী!

সম্প্রতি ইনস্টাগ্রামে ৯ বছর আগের একটি ছবি শেয়ার করেছেন সেলিনা জেটলি। আপাতত চার সন্তানের মা বলিউডের এই নায়িকা। দু'বারই তিনি জন্ম দিয়েছেন যমজ সন্তানের। বৃহস্পতিবার রাতে ৯ বছর আগের একটি ছবি শেয়ার করেন সেলিনা তাঁর সামাজিক মাধ্যমে। তখন তার দুই যমজ সন্তান উইনস্টন আর বিরাজের বয়স মাত্র ১ মাস। স্টারডাস্ট ম্যাগাজিন ইন্ডিয়া-র কভারে সে সময় ছাপানো হয়েছিল এই ছবি। যার জেরে অনেক কটুক্তি শুনতে হয় সেলিনা-সহ ম্যাগাজিনের এডিটর রামকমল মুখোপাধ্যায়-কেও। সেলিনার কথায়, ‘সে সময় আমি ভেবেছিলাম জীবনের একটা খুব সুন্দর মুহূর্ত তুলে ধরতে চলেছি। কিন্তু তা আসলে হয়নি, বরং আমাকে নিয়ে চলে ট্রোলিং।’

সেলিনা জানান, সদ্যোজাত যমজের সঙ্গে কাটানো একটা সুন্দর মুহূর্তই তিনি তুলে ধরেছিলেন ক্যামেরায়। সেলিনা লেখেন, আসলে আমি ও আমার একমায়ের দুই ছেলে দুবাইতে একটা খুব সুন্দর দিনে পুলের ধারে বসে সময় কাটাচ্ছিলাম। আমি তখন সবে সি-সেকশন থেকে সেরে উঠছি আর আমার দুই ছেলে এত সুন্দর পরিবেশে হাত পা ছুঁড়ে খেলা করছে। আমি এখনও জানি না সেসময় কেন আমায় ট্রোল করা হয়েছিল। তোমার ওজন বেশি হলে সবাই তোমার সমালোচনা করবে, তোমাকে সুন্দর দেখতে লাগলেও সবাই সমালোচনা করবে। তোমার সন্তানের হওয়া প্রতিটা সমস্যার জন্য তোমার সমালোচনা হবে। আসলে মায়েদের সমালোচনা করাটা যেন বেশি সহজ।

৯ বছর আগে ভাইরাল হওয়া সেই ছবি। 
৯ বছর আগে ভাইরাল হওয়া সেই ছবি। 

সেলিনা আরও জানান, গর্ভাবস্থায় তিনি জেস্টেশনাল ডায়াবেটিসের শিকার হয়েছিলেন। তাই নিজের খাওয়াদাওয়ার দিকে কড়া নজর দিতেন যাতে সন্তানদের কোনও ক্ষতি না হয়। পাশে আরেক ছেলেকে শুইয়ে রাখার কারণও ছিল এটা। ডাক্তার তাঁকে বলেছিলেন সদ্যোজাতদের অ্যাক্টিভিটি সর্বদা চোখেচোখে রাখতে। সেলিনা আরও জানান, যেই ছেলেকে তিনি ম্যাটের ওপর শুইয়ে রেখেছেন তাঁর কোমরে ডিসপ্লেশিয়ার সমস্যা হয়েছিল। তাই ডাক্তারই উপদেশ দিয়েছিল ওকে হাত-পা ছুঁড়ে খেলতে দিতে। আর সে সময় ওর ওপর কড়া নজর রাখতে। কিন্তু সবাই সেলিনাকে সমালোচনা করেন, নিজের ফোটো তোলার স্বার্থে এক সন্তানকে এভাবে অদেখা করার জন্য! 

অভিনেত্রী মনে করেন, কোনও ছবি দেখেই সেই ছবির মানুষটাকে বিচার করা একদম উচিত নয়। কারণ সেই ছবির পিছনেও আছে একটা গল্প। সেটা না জানা অবধি সমালোচনা থেকে দূরে থাকাই ভালো।

বন্ধ করুন