বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > করোনা মোকাবিলায় রাজ্যে ফের অনির্দিষ্টকালের জন্য ঝাঁপ বন্ধ সিনেমা হলের! বড় ধাক্কা বিনোদুনিয়ায়
রাজ্য জুড়ে তালাবন্ধ সিনেমাহল (PTI)
রাজ্য জুড়ে তালাবন্ধ সিনেমাহল (PTI)

করোনা মোকাবিলায় রাজ্যে ফের অনির্দিষ্টকালের জন্য ঝাঁপ বন্ধ সিনেমা হলের! বড় ধাক্কা বিনোদুনিয়ায়

  • করোনার চোখ রাঙানি রুখতে রাজ্যজুড়ে আংশিক লকডাউন। প্রত্যাশামতোই কোপ পড়ল সিনেমা হলে। 

রাজ্যজুড়ে আংশিক লকডাউনের পথে হাঁটল নবান্ন। শুক্রবার সন্ধ্যায় স্বাস্থ্য দফতরের তরফে জারি করা হল নির্দেশিকা। জনজীবন স্তব্ধ করে দিয়ে লকডাউনের পথে হাঁটতে জারি নয় রাজ্য, তবে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কড়া ব্যবস্থা নিল সরকার। তাই সাময়িকভাবে দৈনন্দিনভাবে ব্যবহার্য বিভিন্নস্থান, যেখানে বড় সংখ্যক মানুষের জমায়েত হয় তা বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল প্রশাসন। সব ধরনের সামাজিক, বিনোদন, সাংস্কৃতিকমূলক জমায়েত নিষিদ্ধ করেছে সরকার।

আজ থেকেই বন্ধ থাকবে সিনেমা হল থেকে বার, জিম থেকে রেস্টুরেন্ট, শপিং মল,বিউটি পার্লার ও স্পা। এর জেরে ফের অন্ধকারের কালোমেঘ বাংলার বিনোদনজগতে। করোনা আবগে গত বছর দীর্ঘ সাত মাস পুরোপুরিভাবে বন্ধ ছিল সিনেমা হল। মার্চ থেকে অক্টোবরের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত বন্ধ থাকবার পরেও আংশিকভাবে অর্থাত্ মাত্র ৫০% দর্শক নিয়ে হল চালানোর অনুমতি মিলেছিল। এর জেরে বিরাট আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েন হল মালিক, ডিস্ট্রিউটার থেকে প্রযোজকরাও। আটকে গিয়েছিল বড় বড় ছবির মুক্তি। 

ফেব্রুয়ারি মাসে হলভর্তি দর্শক নিয়ে সিনেমা হল চালানোর অনুমতি মিলেছিল ঠিকই, তবে করোনার জেরে তেমনভাবে দর্শকরা হলমুখী হচ্ছিলেন না। পাশাপাশি কোনও বিগ বাজেট বলিউড ছবি বা চর্চিত টলিউড মুক্তি পায়নি এই দীর্ঘ সময়ে। পরিস্থিতি আরেকটু ভালোর দিকে এগোনোর অপেক্ষায় ছিলেন সকলেই! ইতিমধ্যেই চলতি মাসেই সাময়িকভাবে সিনেমা হলের ঝাঁপ বন্ধ রাখবার সিন্ধান্ত নেয় প্রিয়া, মেনকা,নবীনার মতো কলকাতার সিঙ্গল স্ক্রিন থিয়েটারের মালিকরা। তবে খোলা ছিল মাল্টিপ্লেক্স। এবার সরকারি নির্দেশে বন্ধ থাকবে সেগুলিও। 

শ্যুটিং নিয়ে অবশ্য কোনওরকম নির্দেশিকা আসেনি রাজ্য সরকারের তরফে। তবে সেটাও যে অদূর ভবিষ্যতে ঘটবে না তেমন কোনও নিশ্চয়তা নেই। কারণ স্টুডিওপাড়ায় একের  পর এক অভিনেতা-টেকনিশিয়ানরা সংক্রমিত হচ্ছেন। দু-দিন আগেই করোনা আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হয়েছেন স্টুডিওপাড়ার নামী টেকনিশিয়ান বিশুদা (সুকান্ত চক্রবর্তী)। গত সপ্তাহেই কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়ের ‘কাবাডি কাবাডি’ ছবির শ্যুটিং সেরে বোলপুর থেকে ফিরেছিলেন প্রয়াত টেকনিশিয়ান। রুদ্ধদ্বার বৈঠকে ফেডারেশন সিদ্ধান্ত নিয়েছে টেকনিশিয়ানদের করোনা পরীক্ষা বাধ্যতামূলক হবে। তাঁরা যাতে ভ্যাকসিন পায়, সেটিও নিশ্চিত করা হবে। অন্যদিকে শ্যুটিংয়ের সময় কোভিড নিয়মবিধি মানা হচ্ছে কিনা সেটিও নজর রাখা হবে। কারণ চৈতি ঘোষাল, জিতু কমলের মতো বহু অভিনেতাই প্রকাশ্যে জানিয়েছেন কোভিড বিধি লঙ্ঘণ করেই শ্যুটিং চলছে টলিগঞ্জে। এতে সংক্রমণ হু হু করে বাড়ছে। 

স্বাস্থ্য দফতরের রেকর্ড অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার গত চব্বিশ ঘন্টায় করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ১৭ হাজার ৪০৩ জন, মৃত্যু হয়েছে ৮৯ জনের। 

 

বন্ধ করুন