বুধবার থেকেই বন্ধ হয়ে যাচ্ছে সবরকম শ্যুটিংয়ের কাজ
বুধবার থেকেই বন্ধ হয়ে যাচ্ছে সবরকম শ্যুটিংয়ের কাজ

করোনা সতর্কতায় বুধবার থেকে টলিগঞ্জে বন্ধ শ্যুটিং,সিদ্ধান্ত চলচ্চিত্র সংগঠনগুলির

আগামীকাল থেকেই টলিগঞ্জে বন্ধ থাকছে সবরকম শ্যুটিংয়ের কাজ। ৩০ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ থাকবে শ্যুটিংয়ের কাজ।

প্রত্যাশা মতোই করোনা সর্তকতার কথা মাথায় রেখে IMPPA-র পথেই হাঁটল EIMPA ও রাজ্যের অনান্য চলচ্চিত্র সংগঠনগুলি। বুধবার থেকে আগামী ৩০ মার্চ পর্যন্ত টলিগঞ্জে বন্ধ থাকছে সবরকমের শ্যুটিংয়ের কাজ। মঙ্গলবার বিকালে নন্দনে মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের নেতৃত্ব আয়োজিত বৈঠকে তেমনটাই সিদ্ধান্ত নিল- ইস্ট ইন্ডিয়া মোশন পিকচার্স অ্যাশোশিয়েশন, ফেডারেশন, আর্টিস্ট ফোরাম, প্রোডিউসার্স গিল্ড এবং চ্যানেল কর্তৃপক্ষরা। এদিনের বৈঠকে হাজির ছিলেন প্রযোজক রাজ চক্রবর্তী, আর্টিস্ট ফোরামের সদস্য জুন মালিয়া, ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অরিন্দম গঙ্গোপাধ্যায়, ফেডারেশন সভাপতি স্বরূপ বিশ্বাস সহ আরও অনেকে। বৈঠক শেষে এদিন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস সাংবাদিকদের জানান, 'আমরা সর্বসম্মতভাবে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি। আগামীকাল থেকে ৩০ তারিখ পর্যন্ত টলিগঞ্জে সবরকম শ্যুটিং বন্ধ থাকবে। আমাদের কাছে মানুষের জীবনের দাম সবচেয়ে বেশি'।


এদিন ইম্পার প্রেসিডেন্ট প্রিয়া সেনগুপ্ত জানান, 'সবাই একসঙ্গে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ৩০ তারিখ পর্যন্ত সব শ্যুটিং বন্ধ। সেদিন মুখ্যমন্ত্রী রিভিউ মিটিং করবেন। সেই মিটিংয়ের উপরই আমাদের ভবিষ্যত সিদ্ধান্ত নির্ভর করবে'।

টলিগঞ্জে আগেই বন্ধ হয়েছে ছবির শ্যুটিং। তবে মঙ্গলবারও সিরিয়ালের শ্যুটিং চলেছে। ধারাবাহিকের শ্যুটিংও বন্ধ হয়ে যাচ্ছে আগামীকাল থেকেই। তাই করোনার প্রকোপে বাঙালি সিরিয়ালপ্রেমী দর্শকদের হতাশ হতে হবে। অধিকাংশ সিরিয়ালেরই কোনও ব্যাঙ্কিং এপিসোড থাকে না। থাকলেও দু'-একটি সেজায়গায় বুধবার থেকে শ্যুটিং বন্ধ হওয়ার অর্থ হল বৃহস্পতি, শুক্রবার থেকেই সিরিয়ালের নতুন এপিসোড আর সম্প্রচার করতে পারবে না চ্যানেল কর্তৃপক্ষ। যদিও চলচ্চিত্র সংগঠনগুলির এই সিদ্ধান্তে পূর্ণ সহমত জানিয়েছে চ্যানেলগুলি। মানুষের জীবনের থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ আর কিছু নয় জানিয়েছেন সকলে। এই ব্যাপারে কী বক্তব্য চলচ্চিত্র সংগঠনগুলোর? 'এই নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হবে চ্যানেল কর্তৃপক্ষগুলোকে, চ্যানেল আমাদের সঙ্গে রয়েছে।জানালেন প্রযোজক রাজ চক্রবর্তী। তিনি আরও বলেন, 'জীবনের থেকে অর্থনীতি বড় নয়, কত ক্ষতি হবে সেই নিয়ে ভাবনা চিন্তা করতে রাজি নয়,এখন সবচেয়ে বেশি জরুরি মানুষের সুরক্ষা'।

এর আগে সোমবার মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে মঙ্গলবার থেকেই রাজ্যের সমস্ত সিনেমা হল কার্যত বন্ধ। মঙ্গলবার দুপুরে মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে শিলমোহর দেয় ইম্পাও। সংগঠনের সভাপতি পিয়া সেনগুপ্ত জানান,'কোনও এক্সিবিটার নিজের ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত হল খোলা রাখলে সেই দায় ইম্পা নেবে না'।

আগামী ১৩ দিন শ্যুটিং বন্ধ থাকায় চিন্তার কালোমেঘ টলিগঞ্জের বহু টেকনিশিয়ানেরই। কারণ অনেকেই প্রত্যেক দিন কাজের ভিত্তিতে টাকা উপার্জন করে। কীভাবে হবে সেই পরিবারগুলোর দিন গুজরান? জবাবে আর্টিস্ট ফোরামের তরফে জুন মালিয়া বলেন, আমরা বিষয়টা নিয়ে ভাবনাচিন্তা করছি। শীঘ্রই কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হবে'।

এখন সবার চোখ ৩০ তারিখ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রিভিউ মিটিংয়ের দিকে।

বন্ধ করুন