রণবীরের কাছে কী কী দাবি রাখলেন দীপিকা?
রণবীরের কাছে কী কী দাবি রাখলেন দীপিকা?

রণবীরকে হুঁশিয়ারি দীপিকার, এইসব জিনিস না আনলে বাড়ি ফেরায় নিষেধাজ্ঞা

  • ১ কিলো মহীশূর পাক, আড়াই কিলো মশলা আলুর চিপস- রণবীরের জন্য লম্বা শপিং লিস্ট স্ত্রী দীপিকার।

শনিবার প্রকাশ্যে এসেছে রণবীর সিংয়ের আসন্ন ছবি ৮৩-র পোস্টার। ভারতীয় ক্রিকেটের স্বর্নিম ইতিহাস নিয়ে তৈরি হচ্ছে এই ছবি, তাই ক্রিকেট মাঠেই হল ছবির পোস্টার লঞ্চ। ৮৩-র পোস্টার লঞ্চ ও প্রচারে শনিবার চেন্নাইতে হাজির হয়েছিলেন রণবীর সিং।

সোশ্যাল মিডিয়ায় দীপবীরের পিডিএ সবসময়ই থাকে চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে, এবার তার ব্যতিক্রম হল না। ইন্সটাগ্রামে রণবীর শেয়ার করলেন ৮৩-র পোস্টার এবং সেই পোস্টের কমেন্ট বক্সে নিজের শপিং লিস্ট জুড়ে দিলেন স্ত্রী দীপিকা পাড়ুকোন। ভারতীয় দলের ব্লেজার পরা গোটা দলের ছবি পোস্ট করে রণবীর সিং লেখেন, চেন্নাইতে ঝড় তুলতে হাজির কপিলের শয়তান বাহিনী।



এই পোস্টের জবাবে দীপিকা লিখেন, ‘শ্রী কৃষ্ণা থেকে ১ কেজি মহীশূর পাক এবং হট চিপস থেকে আড়াই কিলো মশলা আলুর চিপস না আনলে বাড়ি ফিরবে না’।

রণবীরের পোস্টে দীপিকা কমেন্ট দেখুন
রণবীরের পোস্টে দীপিকা কমেন্ট দেখুন


দীপিকার এই কমেন্ট দেখে অনুপ্রেরণা নিয়ে একই দাবি স্বামী কবীর খানের কাছে করে বসলেন মিনি মাথুর। ৮৩ পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন কবীর। মিনি লেখেন, কবীর খান দয়া করে আপনিও একই অর্ডার অনুসরণ করবেন।

দক্ষিণ ভারতের অন্যতম জনপ্রিয় মিষ্টি মহীশূর পাক। ঘি এবং বেসন দিয়ে তৈরি এই মিষ্টান্ন দীপিকার বিশেষ পছন্দের। পাশাপাশি আলুর চিপস খেতেও খুব ভালোবাসেন ছপাক তারকা।

হিন্দুস্তান টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে নিজের খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কে দীপিকা বলেছিলেন চকোলেট তাঁর সবচেয়ে প্রিয়।এছাড়াও স্ট্রিট ফুড খেতেও তিনি ভীষণ ভালোবাসেন। দীপিকার কথায়, ‘দিল্লি স্ট্রিট ফুডের জন্য বিখ্যাত, তবে মুম্বইতেও স্ট্রিট ফুড মেলে’। যদিও মূলত সুসি, ভেজিটেবল জুসের মতো স্বাস্থ্যকর খাবার খেয়েই দিন কাটাতে হয় নায়িকাকে।

প্রসঙ্গত কবীর খানের ৮৩-তে অভিনয় করছেন দীপিকা পাড়ুকোনও। এই ছবিতে কপিল দেবের ভূমিকায় রয়েছেন রণবীর সিং এবং কপিল দেবের স্ত্রী রোমি ভাটিয়ার চরিত্রে দেখা যাবে দীপিকাকে। রাম-লীলা, বাজিরাও-মস্তানি, পদ্মাবতের পর ফের একছবিতে রণবীর-দীপিকা। তবে বিয়ের পর এই প্রথম।





রণবীর আইএএনএসকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে ৮৩ সম্পর্কে জানিয়েছেন 'এটা আমার কাছে অনেক গর্বের বিষয় যে আমি আমাদের দেশের ক্রীড়া জগতের একটা এত বড় ঐতিহাসিক অধ্যায় নিয়ে তৈরি ছবির অংশ হতে পেরেছি-১৯৮৩-র ক্রিকেট বিশ্বকাপ জয়ের গল্প। আমরা গর্বিত এই গল্পটা বলতে পেরে এবং সেটা সেলুলয়েডে ফুটিয়ে তুলতে পেরে'।

১০ এপ্রিল মুক্তি পেতে চলেছে '৮৩'।



বন্ধ করুন