বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > মাদক আড্ডার WhatsApp চ্যাট গ্রুপে অ্যাডমিন ছিলেন দীপিকা, দাবি এনসিবি-র
হোয়াটসঅ্যাপে মাদক নিয়ে আলোচনার গ্রুপের অ্যাডমিন ছিলেন স্বয়ং দীপিকা পাড়ুকোন, দাবি এনসিবি রিপোর্টে।
হোয়াটসঅ্যাপে মাদক নিয়ে আলোচনার গ্রুপের অ্যাডমিন ছিলেন স্বয়ং দীপিকা পাড়ুকোন, দাবি এনসিবি রিপোর্টে।

মাদক আড্ডার WhatsApp চ্যাট গ্রুপে অ্যাডমিন ছিলেন দীপিকা, দাবি এনসিবি-র

  • যে হোয়াটস্যাপ চ্যাটের সূত্র ধরে শনিবার অভিনেত্রীকে ডেকে পাঠিয়েছে এনসিবি, সেই গ্রুপের অ্যাডমিনিস্ট্রেটর ছিলেন দীপিকা।

MUMBAI : হোয়াটসঅ্যাপে মাদক সংক্রান্ত চ্যাট গ্রুপের অন্যতম অ্যাডমিন ছিলেন দীপিকা পাড়ুকোন। এনসিবি-র রিপোর্টে এমনই চমকে দেওয়া দাবি করা হয়েছে।

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর সঙ্গে জড়িয়ে যাওয়া ড্রাগ তদন্ত প্রতি সপ্তাহে তীব্র থেকে তীব্রতর হয়ে উঠছে । বর্তমানে এই মামলাকে হাতিয়ার করেই বলিউডের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ঢুকে থাকা মাদক চক্রের যোগসাজশকে খুঁজে বের করার লক্ষ্যে কোমর বেঁধে নেমেছেন এন সি বি আধিকারিকেরা । তদন্তে নামা ইস্তক তাঁদের হাতে যে ভাবে একের পর এক প্রথম সারির বলি তারকার নাম উঠে এসেছে , তাতে তাঁদের চোখ কপালে উঠেছে । 

সাম্প্রতিক টাইমস নাও রিপোর্ট অনুসারে, এন সি বি সূত্রে জানা গিয়েছে যে হোয়াটস্যাপ চ্যাটের সূত্র ধরে শনিবার অভিনেত্রীকে ডেকে পাঠিয়েছে এনসিবি, সেই গ্রুপের অ্যাডমিনিস্ট্রেটর নিজেই ছিলেন দীপিকা । গ্রুপের অপর অ্যাডমিন ছিলেন ট্যালেন্ট ম্যানেজার জয়া সাহা , আজ এনসিবি-র জিজ্ঞাসাবাদের সামনে নিজেই স্বীকার করে জানিয়েছেন এ কথা তিনি ।

ইতিমধ্যেই নার্কোটিকসের পক্ষ থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকে পাঠানো হয়েছে সারা আলি খান , রাকুল প্রীত সিং , সিমন খাম্বট্টাকে । বৃহস্পতিবারই এনসিবির কাছে হাজিরা দেন সিমন । নাম জড়িয়েছে শ্রদ্ধা কাপুরেরও , যা আরো বড় চক্রের সন্ধান দিতে পারে বলেই মনে করছেন গোয়েন্দারা । এছাড়া KWAN ট্যালেন্ট ম্যানেজমেন্ট এজেন্সিতে কর্মরত করিশমা প্রকাশকেও এই সপ্তাহে তলব করা হয়েছিল। সংস্থার সিইও ধ্রুব চিতগোপেকার এবং চলচ্চিত্র প্রযোজক মধু মন্টেনাকেও জেরার জন্য ডেকে পাঠায় নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরো ।

গত ১৪ই জুন বান্দ্রার ফ্ল্যাট থেকে অভিনেতার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয় । ইতিমধ্যেই ইডি এবং সিবিআই এই কেসের তদন্ত এগিয়ে নিয়ে চলেছে । ইডির তরফে মামলার সাথে মাদক চক্রের যোগসাজশ খুঁজে পাওয়ার দরুন আসরে নেমেছে অপর কেন্দ্রীয় সংস্থা নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরো । ইতিমধ্যেই তাদের হাতে গ্রেফতার হয়ে আদালতের নির্দেশে আপাতত জেল হেফাজতে মূল অভিযুক্ত রিয়া চক্রবর্তী ও তাঁর ভাই সৌভিক । তাঁদের জেরা করেই চক্রের সাথে যুক্ত বলিউডের একাধিক বড় মাথার সন্ধান পেয়েছেন গোয়েন্দারা।

বন্ধ করুন