বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়ো খবর ছাড়ানোর জের,গ্রেফতার বিভোর আনন্দ
গ্রেফতার দিল্লির বাসিন্দা বিভোর আনন্দ (PTI)
গ্রেফতার দিল্লির বাসিন্দা বিভোর আনন্দ (PTI)

সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়ো খবর ছাড়ানোর জের,গ্রেফতার বিভোর আনন্দ

  • বৃহস্পতিবার দিল্লির বাড়ি থেকে বিভোরকে গ্রেফতার করে মুম্বই পুলিশ।১৯ অক্টোবর পর্যন্ত পুলিশ হেফাজতে থাকবে এই আইনজীবী। 

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়ো খবর ও চক্রান্তের তত্ত্ব ছড়ানোর দায়ে মুম্বই পুলিশের সাইবার সেল গ্রেফতার করল দিল্লির আইনজীবী বিভোর আনন্দকে। সূত্রের খবর ইতিমধ্যেই বিভোরকে হেফাজতে নিয়েছে মুম্বই পুলিশ।

১৪ জুন সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর কেটে দিয়েছে দীর্ঘ চার মাস। সুশান্তের মৃত্যুর পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় উঠে এসেছে একের পর এক চাঞ্চল্যকর দাবি। সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে বেশ কিছু চাঞ্চল্যকর দাবি করেছিলেন বিভোর, এরপর তাঁর অ্যাকাউন্ট বাতিল করে দেয় টুইটার কর্তৃপক্ষ। দিশা সালিয়ানের মৃত্যুর সঙ্গে সুশান্তের অস্বাভাবিক মৃত্যুর যোগ টেনে বলিউড তারকা আরবাজ খানকে কাঠগড়ায় দাঁড় কড়ায় বিভোর। যার জেরে আরবাজ আদালতে মানহানির মামলা ঠুকে দেন। গোটা বিষয় নিয়ে আগেই আদালতের ভর্ত্সনার মুখে পড়েছেন বিভোর, এবার গ্রেফতার হতে হল এই আইনজীবীকে। 

জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার বিভোরের দিল্লির বাড়ি থেকে তাঁকে আটক করে মুম্বই পুলিশ। এরপর তাঁকে মুম্বইয়ে নিয়ে আসা হয়। আজ তাঁকে স্থানীয় আদালতে তোলা হয় এবং ১৯ অক্টোবর পর্যন্ত বিভোর আনন্দকে পুলিশি হেফাজতে পাঠিয়েছে ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট। 

টুইটারে পাশাপাশি ইউটিউবে ভীষণ অ্যাক্টিভ বিভোর,সেখানেও সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে বহু চাঞ্চল্যকর ভিডিয়ো পোস্ট করেছেন বিভোর। সেই ভিডিয়োয় মহারাষ্ট্রের মন্ত্রীদের বিরুদ্ধেও অভিযোগের আঙুল তুলতে দেখা গিয়েছে বিভোর আনন্দকে। মূলত রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেখমুখ ও উদ্ধব পুত্র আদিত্য ঠাকরের বিরুদ্ধে তিনটি ইউটিউব ভিডিয়ো পোস্ট করেছিলেন বিভোর আনন্দ। গত অগস্টেই এর জেরে মামলা দায়ের হয়েছিল এই আইনজীবীর বিরুদ্ধে।

সম্প্রতি মুম্বই পুলিশের তরফে দাবি করা হয়েছে সুশান্তের মৃত্যু তদন্ত নিয়ে মুম্বই পুলিশ ও মহারাষ্ট্র সরকারের বদনামের জন্য ১৪ জুনের পর প্রায় আশি হাজার ভুয়ো অ্যাকাউন্ট তৈরি করা হয়েছে। রাজ্যের কমিশনার পরমবীর সিং এই বিষয়টি খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছিল সাইবার সেলকে, আইটি আইনের আওতায় মামলা রুজু করার নির্দেশও দিয়েছিলেন মুম্বই পুলিশ কমিশনার।

বন্ধ করুন