বাড়ি > বায়োস্কোপ > গুঞ্জন সাক্সেনা: দ্য কার্গিল গার্লের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির কেন্দ্রের আবেদন খারিজ হাইকোর্টে
আসছে জাহ্নবী কাপুরের গুঞ্জন সাক্সেনা।
আসছে জাহ্নবী কাপুরের গুঞ্জন সাক্সেনা।

গুঞ্জন সাক্সেনা: দ্য কার্গিল গার্লের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির কেন্দ্রের আবেদন খারিজ হাইকোর্টে

  • দিল্লি হাইকোর্টে করণ জোহর প্রযোজিত ছবির বিরুদ্ধে পিটিশন দাখিল করেছিল ভারতীয় বায়ুসেনা ও কেন্দ্র সরকার। 

মুক্তির পর থেকেই বিতর্ক পিছু ছাড়েনি করণ জোহর প্রযোজিত এবং জাহ্নবী কাপুর অভিনীত গুঞ্জন সাক্সেনা : দ্য কার্গিল গার্লের। এই ছবিতে ভারতীয় বায়ুসেনার ভাবমূর্তি নষ্ট করা হয়েছে, এই অভিযোগ তোলা হয়েছিল স্বয়ং আইএএফের তরফে।  ওটিটি প্ল্যাটফর্ম নেটফ্লিক্সে এই ছবির স্ট্রিমিংয়ের উপর নিষেধাজ্ঞা দাবি করে দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল স্বয়ং কেন্দ্র সরকার। 

বুধবার বিচারপতি রাজ শাকধের সিঙ্গল বেঞ্চ এই রায় ঘোষণার সময় স্পষ্টই জানিয়ে দেয় 'অনেক দেরি হয়ে গিয়েছে'। তিনি বলেন এই ছবিটা দীর্ঘ একটা সময় ধরেই নেটফ্লিক্সে রয়েছে। এবং অন্তর্বর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞা জারি করা এখন অর্থহীন। উল্লেখ্য ১২ অগস্ট থেকে নেটফ্লিক্সে স্ট্রিমিং শুরু হয়েছে গুঞ্জন সাক্সেনা : দ্য কার্গিল গার্লের। এই ছবিটি প্রাক্তন বায়ুসেনা আধিকারিক গুঞ্জন সাক্সেনার বায়োপিক। 

দিল্লি হাইকোর্টে ধর্মা প্রোডাকশনের এই ছবির বিরুদ্ধে পিটিশন দায়ের করেছিল ভারত সরকার এবং ভারতীয় বায়ুসেনা। আবেদনে বলা হয়েছিল এই ছবির প্রযোজক সংস্থা এবং কোনও ওটিটি প্ল্যাটফর্ম যেন এই ছবিটি ব্যক্তিগতভাবে কিংবা পাবলিক ডোমেনে গুঞ্জন সাক্সেনা : দ্য কার্গিল গার্ল প্রদর্শন না করে। 

সবরকম সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম, ইলেকট্রনিক মোডস এবং পাবলিসিটি ক্যাম্পেনের থেকেও এই ছবি তুলে নেওয়ার দাবি জানিয়েছিল কেন্দ্র সরকার। আবেদনকারীদের তরফে বলা হয়েছিল, এয়ার ফোর্স আইন এবং এয়ার ফোর্সের নিয়মানুসারে কোনও ছবি, সিরিয়াল কিংবা বিজ্ঞাপনের নির্মাতাদের জন্য এয়ার ফোর্স বা সেই সম্পর্কিত কোনও বিষয়কে তুলে ধরতে হলে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের অনুমতি নেওয়া অত্যাবশক।

২০১৩ সালের প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের গাইডলাইন অনুসারে মুক্তির আগে প্রিভিউ কমিটিকে সেই ছবি দেখানোটা জরুরি। এদিন কেন্দ্র সরকার ও ভারতীয় বায়ুসেনা আদালতকে জানায়, ধর্মা প্রোডাকশনের তরফে ছবি তৈরির অনুমতি নেওয়া হয়েছিল ঠিকই, তবে আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল এই ছবি নতুন প্রজন্মকে এয়ার ফোর্সে যোগ দিতে উদ্ধুদ্ধ করবে। ছবিতে বায়ুসেনার সততা, মর্যাদা এবং ঐহিত্য ক্ষুণ্ণ হবে না। আরও বলা হয়, কোনওরকম অনুমতি না নিয়েই নির্মাতারা এই ছবির নাম কার্গিল গার্ল থেকে বদলে গুঞ্জন সাক্সেনা : দ্য কার্গিল গার্ল করে দেয়। আরও বলা হয় নিজেদের বাণিজ্যিক ছবিকে ঐতিহাসিক বায়োপিক বলে তুলে ধরেছে ধর্মা প্রোডাকশন, যেখানে সত্যি ঘটনা এবং তথ্য বিকৃত করে দেখানো হয়েছে এবং অকারণে বাণিজ্যিক ফায়দা তুলতে চাঞ্চল্য ছড়ানো হয়েছে।

দিল্লি হাইকোর্ট কেন্দ্র ও বায়ুসেনার এই আবেদনের ভিত্তিতে ধর্মা প্রোডাকশন ও নেটফ্লিক্সকে ১৮ সেপ্টেম্বরের আগে জবাব দিতে বলেছে। মামলার পরবর্তী শুনানির তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর।  তবে আপতত নেটফ্লিক্সে বহাল তবিয়তে বিদ্যমান থাকতে পারবে গুঞ্জন সাক্সেনা : দ্য কার্গিল গার্ল। 

বন্ধ করুন