আইনি বিপাকে বীর দাসের এই ওয়েব সিরিজ
আইনি বিপাকে বীর দাসের এই ওয়েব সিরিজ

নেটফ্লিক্সের বিতর্কিত সিরিজ হাসমুখ 'সম্প্রচারে এখনই স্থগিতাদেশ নয়': হাইকোর্ট

  • নেটফ্লিক্স, সিরিজের প্রযোজক সংস্থা ও পরিচালককে পিটিশনের প্রেক্ষিতে নিজেদের লিখিত বক্তব্য জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে দিল্লি হাইকোর্ট।

আইনজীবীদের ভাবমূর্তি নষ্টের অভিযোগে বিতর্কে বীর দাস অভিনীত নেটফ্লিক্স সিরিজ ‘হাসমুখ’। এই ওয়েব সিরিজের সম্প্রচার বন্ধের দাবিতে দিল্লি হাইকোর্টে দায়ের হয়েছিল মামলা। সোমবার জরুরি ভিত্তিতে এই মামলার শুনানি হল দিল্লির সর্বোচ্চ আদালতে। এদিন বিচারপতি সঞ্জীব সচদেব এই সিরিজের সম্প্রচারের উপর অন্তর্বতীকালী স্থগিতাদেশ জারি করা থেকে বিরত থেকেছেন। আইনজীবী আশুতোষ দুবের দায়ের করা পিটিশনের প্রেক্ষিতে নেটফ্লিক্স, সিরিজের প্রযোজক সংস্থা এবং পরিচালকের বক্তব্য জানতে চায় আদালত। তাঁদের পক্ষ শুনে তবেই এই মামলার রায় দেবে দিল্লি হাইকোর্ট।

হাসমুখ সিরিজের চার নম্বর এপিসোড নিয়ে আপত্তি জানিয়েছে আইনজীবীদের একাংশ। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী আশুতোষ দুবে তাঁর পিটিশনে জানিয়েছেন, সিরিজের চার নম্বর এপিসোডে আইনজীবীদের ‘চোর,বদমাশ,গুন্ডা এবং ধর্ষক বলে চিহ্নিত করা হয়েছে’। এই পিটিশনে আরও উল্লেখ করা হয়েছে সিরিজে পুলিশ, বিশেষত উত্তর প্রদেশ পুলিশের ভাবমূর্তিকেও ছোট করা হয়েছে। রাজনৈতিক নেতাদেরও খারাপভাবে তুলে ধরা হয়েছে।

যদিও এই দাবি উড়িয়ে দিয়েছেন নেটফ্লিক্সের কৌঁসুলি সাইকৃষ্ণা রাজাগোপাল। মামলার পরবর্তী শুনানির দিন নির্দিষ্ট হয়েছে ৭ জুলাই।

উত্তরপ্রদেশের সাহারনপুরের এক স্ট্র্যাগলার কমেডিয়ান হিসাবে দেখা মিলেছে বীর দাসের। যিনি হাসমুখের চরিত্রে অভিনয় করছেন। দু’চোখে তাঁর সফল কমেডিয়ান হওয়ার স্বপ্ন। সেই স্বপ্নসফলের পথে বাঁধা তাঁর গুরু। একদিন রাগের মাথায় তাঁকে হত্যা করে দেয় হাসমুখ। এরপর মঞ্চে দুর্দান্ত কমেডি উপহার দেয় সে। হাসমুখ ভাবে খুন করাটাই তাঁর শক্তি। খুন করলেই সে হিট কমেডি শো করতে পারবে। এই নিয়েই এগিয়েছে এই সিরিজের গল্প। ১৭ এপ্রিল থেকে স্ট্রিমিং শুরু হয়েছে বীরদাস, রণবীর শোরে অভিনীত হাসমুখের।


বন্ধ করুন