বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ভারতীয়দের ত্বকের সঙ্গে মিল নেই মুমতাজের ত্বকের, প্রবল সমস্যায় চিকিৎসকরা
ডায়েরিয়ার প্রবল সমস্যায় বিগত এক সপ্তাহ ধরে মুম্বইয়ের এক হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন মুমতাজ

ভারতীয়দের ত্বকের সঙ্গে মিল নেই মুমতাজের ত্বকের, প্রবল সমস্যায় চিকিৎসকরা

  • বর্ষীয়ান অভিনেত্রী ডায়েরিয়ার প্রবল সমস্যায় নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। ২৫ বছর আগে স্তন ক্যানসারে অস্ত্রোপচার, আজও বাঁ হাতে সূচ ফোটাতে পারেন না মুমতাজ। 

সত্তরের দশকের জনপ্রিয় অভিনেত্রী মুমতাজ। ডায়েরিয়ার প্রবল সমস্যায় বিগত এক সপ্তাহ ধরে মুম্বইয়ের ব্রিচ ক্যান্ডি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন তিনি। হাসপাতাল থেকে ছুটি পেয়েছেন মুমতাজ। বাড়ি ফিরেছেন অভিনেত্রী। 

ইরানের মেয়ে মুমতাজ। ‘ব্রহ্মচারী’ (১৯৬৮), ‘রাম অউর শ্যাম’ (১৯৬৭), ‘আদমি অউর ইনসান’ (১৯৬৯) এবং ‘খিলোনা’ (১৯৭০) এর মতো একাধিক সফল ছবিতে অভিনয় করেছেন।

টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে অভিনেত্রী জানিয়েছেন, ‘ইরিটেবল বাওয়েল সিন্ড্রোম এবং কোলাইটিস উভয় রোগে ভুগছি। হঠাৎ ডায়েরিয়া হয়। হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন ছিল। হাসপাতালেও সুস্থ হয়ে উঠতে সাত দিন লেগেছে।’

মুমতাজ প্রকাশ করেছিলেন যে তার স্বামী ময়ুর মাধওয়ানি সেই সময়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ছিলেন। আসার জন্য জোর দিয়েছিলেন কিন্তু অভিনেত্রী জানিয়েছিলেন, তিনি একাই সামলে নেবেন। আরও একটি সমস্যার কথা জানিয়েছেন প্রবীণ অভিনেত্রী, যার ফলে তিনি হাসপাতালে মুখোমুখি হয়েছিলেন। 

অভিনেত্রী বলেন, ‘ত্বকের কারণে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হয়েছি। আমি হাসপাতালে পুরো এক সপ্তাহ ড্রিপে ছিলাম। জন্মসূত্রে ইরানীয় হওয়ায় এমনিতেই আমার ত্বক ভারতীয়দের তুলনায় অনেকটাই কোমল ও অনুভূতিপ্রবণ। কারণ ২৫ বছর আগে আমি স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েছিলাম। ড্রিপের ইনজেকশনটি কেবল আমার ডান হাতে ঢোকানো যেতে পারে; অস্ত্রোপচারে তখন লিম্ফ নোডগুলি বাদ দেওয়া হয়। তাই বাঁ হাতে এখনও সূচ ফোটাতে পারি না।’

মুম্বাইতে থাকাকালীন, মুমতাজ মাঝে মাঝে তাঁর ইন্ডাস্ট্রির বন্ধুদের সঙ্গে দেখা করেন। সব পেরিয়ে আপাতত সুস্থ হয়ে উঠেছেন অভিনেত্রী। ধন্যবাদ জানিয়েছেন তাঁর পারিবারিক চিকিৎসক ফিরোজ সুনাওয়ালা এবং হাসপাতালের চিকিৎসক রাজেশ সাইনানিকে।

 

বন্ধ করুন