বাড়ি > বায়োস্কোপ > কঙ্গনাকে ধাওয়া করতে বিমানে সোশ্যাল ডিসট্যানসিং শিকেয় তুলল মিডিয়া! রিপোর্ট তলব করল DGCA
রিপোর্ট তলব করল DGCA
রিপোর্ট তলব করল DGCA

কঙ্গনাকে ধাওয়া করতে বিমানে সোশ্যাল ডিসট্যানসিং শিকেয় তুলল মিডিয়া! রিপোর্ট তলব করল DGCA

  • ৯ সেপ্টেম্বর ইন্ডিগো ফ্লাইট, 6E 264 চেপেই চণ্ডীগড় থেকে মুম্বই ফেরেন কঙ্গনা। অভিনেত্রী বিমান সফরে কোনও সংবাদকর্মীর সঙ্গে কোনওরকম কথাবার্তা বলেননি। 

করোনা আবহে বিমান চলাচলের ক্ষেত্রেও বেশ কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে সংস্থা গুলির উপর। উড়ানের সময় সেই নিয়ম মেনে চলা আবশ্যক। অথচ যে বিমানে কঙ্গনা চণ্ডীগড় থেকে মুম্বই ফিরেছেন সেই বিমানে এই নিয়ম মানা হয়নি। সম্প্রতি এক মিডিয়া রিপোর্টে এমনই দাবি করা। এবং সেই নিময় লঙ্ঘন করেছেন খোদ সংবাদকর্মীরা। মিডিয়া কর্মীদের দ্বারা বিমানের ভিতরের সুরক্ষা এবং সামাজিক দূরত্ব বিধি লঙ্ঘনের বিষয়টি নিয়ে বিমান সংস্থা ইন্ডিগোর কাছে রিপোর্ট তলব করল বিমান নিয়ন্ত্রক সংস্থা, ডিরেক্টর জেনারেল অফ সিভিল অ্যাভিয়েশন। 

৯ সেপ্টেম্বর ইন্ডিগো ফ্লাইট, 6E 264 বিমানটি নির্ধারিত সময় দুপুর ১২টায় চণ্ডীগড় থেকে মুম্বইয়ের উদ্দেশ্যে টেক অফ করে, এবং দুপুর ২.১৫ মিনিটে মুম্বইয়ের ভূমি স্পর্শ করে।মহারাষ্ট্র সরকারের সঙ্গে বাকযুদ্ধে জড়ানো কঙ্গনা রানাওয়াত এই বিমানেই মুম্বই আসেন। যার কিছু সময় আগেই বৃহন্মুম্বই পুরসভার তরফে অবৈধ কাঠামো তৈরি করা হয়েছে এই অভিযোগ এনে চব্বিশ ঘন্টার নোটিশে ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয় কঙ্গনার অফিস।

কঙ্গনার মুম্বই দর্শনের সঙ্গী হয়েছিল বেশ কিছু সর্বভারতীয় চ্যানেলের কর্মীরা। সাম্প্রতিক সময়ে সুশান্তের মৃত্যুর তদন্ত নিয়ে মুম্বই পুলিশের বিরুদ্ধে মন্তব্য করে মহারাষ্ট্র বিকাশ আগাড়ি সরকারের রোষের মুখে পড়েছেন কঙ্গনা। ক্ষমতাসীন দলের সাংসদ,বিধায়কদের প্রকাশ্য হুমকির মুখে পড়ে হিমাচল সরকারের আবেদনে কঙ্গনাকে ওয়াই ক্যাটেগরির নিরাপত্তা দিয়েছে কেন্দ্র সরকার। 

বিমানে যদিও কোনও সাংবাদিকের সঙ্গে কোনওরকম কথা বার্তা বলেননি কঙ্গনা রানাওয়াত। এক এয়ারলাইন আধিকারিক জানিয়েছেন, ‘কেবিন ক্রুদের তরফে বারবার সংবাদকর্মীদের অনুরোধ করা হয়েছে সুরক্ষা বিধি মেনে চলতে। নির্দিষ্ট সিটে বসতে। প্লাইলটের তরফে বিমানের ভিতরে ক্যামেরার ব্যবহার নিষিদ্ধ সেকথা ঘোষণা করা হয়। বিমান চলাকালীন শ্যুট করা যায় না সে কথাও জানানো হয়। তবুও কেউ কর্ণপাত করেনি’।

ডিজিসিএ এর ডিরেক্টর জেনারেল অরুণ কুমার বলেন, ‘আমরা এয়ার লাইন কর্তৃপক্ষকে তাঁদের রিপোর্ট জমা দিতে বলেছি বিমান চলাকালীন ঘটা গোটা পরিস্থিতি নিয়ে। কিছু প্যাসেঞ্জার্সরা সুরক্ষাবিধি ভেঙেছে। দ্রুতই তাঁরা রিপোর্ট জমা দেবে’।

ইন্ডিগোর তরফে এই সম্পর্কে আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা আমাদের বিবৃতি জমা দিয়েছিল ডিজিসিএর কাছে। আমরা জানিয়েছি আমাদের কেবিন ক্রু, আমাদের পাইলট সবাই সমস্ত প্রোটোকল মেনেছে। এমনকি ফটোগ্রাফি বন্ধ করবার প্রোটোকলের কথাও স্মরণ করানো হয়েছে একাধিকবার। নিজেদের পোস্ট-ফ্লাইট রিপোর্টেও এই নিয়ম লঙ্ঘনের উল্লেখ করা হয়। আমরা সুরক্ষিত এবং কোনওরম ঝামেলাবিহীন যাত্রী পরিষেবা দিতে বদ্ধ পরিকর’।

বন্ধ করুন