বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Dhulokona: মিথ্যা অপবাদ দিল চড়ুই,পুলিশের হাত থেকে লালনকে বাঁচাতে বিয়ের গল্প ফাঁদল ফুলঝুরি
লালনকে বাঁচাতে এ কী করল ফুলঝুলি! 
লালনকে বাঁচাতে এ কী করল ফুলঝুলি! 

Dhulokona: মিথ্যা অপবাদ দিল চড়ুই,পুলিশের হাত থেকে লালনকে বাঁচাতে বিয়ের গল্প ফাঁদল ফুলঝুরি

  • বড়লোক বাড়ির মেয়ে মিথ্যা ফাঁসিয়েছে লালনকে, পুলিশকে জানালো লালনের 'হবু বউ' ফুলঝুরি!

মাস কয়েকের মধ্যেই বাঙালি দর্শক মনে পাকা জায়গা করে নিয়েছে লালন-ফুলঝুরি। 'মিঠাই'-এর সঙ্গে রেষারেষিতে এঁটে উঠতে না পারলেও টিআরপি তালিকায় খারাপ নয় 'ধুলোকণা'র রেজাল্ট। মানালি দে, ইন্দ্রাশিস রায় থেকে সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায়ের মতো নামী স্টারকাস্টের জরবদস্ত পারফরম্যান্সের উপর ভর করে এগিয়ে চলেছে ধুলোকণা-র কাহিনি।

গায়ক হওয়ার স্বপ্ন বস্তির ছেলে লালনের দুৃ-চোখে। অভাবের তাড়নায় দাশগুপ্ত পরিবারের ড্রাইভারের চাকরিতে যোগ দেয় সে। ওই বাড়িরই পরিচারিকা ফুলঝুরি, শুরু থেকেই তাঁর সঙ্গে আদায়-কাঁচলায় সম্পর্ক লালনের। অথচ বিপদের দিনে ফুলঝুরির পাশে দাঁড়াতে কুন্ঠাবোধ করেনি সে। ফুলঝুরির বোনের বিয়েতে দশ হাজার টাকা ধার দিয়েছে লালন। পরস্পরের প্রতি টান যে প্রবল তার প্রমাণ দর্শক পেয়েছে, বয়সে দ্বিগুণ মানিকদা-র সঙ্গে ফুলঝুরির বিয়ের খবর শুনেই ক্ষেপে উঠেছে লালন। স্পষ্ট জানিয়েছে, 'তোমার বিয়ে করার ইচ্ছে হয়েছে করো, কিন্তু মানিকদার সঙ্গে বিয়ে আমি হতে দেব না'। এর মাঝেই দাশগুপ্ত বাড়ির মেয়ে চড়ুই ভালোবেসে ফেলেছে লালনকে।

কলেজ ফাংশনে লালনের গান শুনে গলে গিয়েছে তাঁর মন। আফটার পার্টিতে মদ্যপ অবস্থায় লালনকে মনের কথাও বলে দেয় সে। যদিও চড়ুই মত্ত অবস্থায় আছে ভেবে সেই কথায় পাত্তা দেয়নি লালন। কিন্তু বাড়ি ফিরে আরেক মহাভারত! সকলের সামনে চড়ুই জানায়, লালনকে সে ভালোবাসে, এবং লালন নাকি তাঁর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হয়েছে। গোটা ঘটনার জন্য লালনকে দোষ দেয় বাড়ির মেজো বউ তথা চড়ুই-এর মা, চান্দ্রেয়ী। সকালে নেশার ঘোর কটালেও নিজের অবস্থান পালটায় না চড়ুই। অথচ চড়ুইয়ের সঙ্গে সম্পর্কে থাকার কথা, তাঁকে ভালোবাসার কথা, গত রাতের পার্টিতে ঘনিষ্ঠ হওয়ার কথা অস্বীকার করে লালন।

লালনকে ভুল বোঝে ফুলঝুরিও। বাড়ির ড্রাইভারের এই কীর্তির জন্য থানা-পুলিশ করবার হুমকি দেন চান্দ্রেয়ী। ইতিমধ্যেই সামনে এসেছে সিরিয়ালের নতুন প্রোমো। সেখানে দেখা যাচ্ছে চড়ুইয়ের অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ গ্রেফতার করতে এসেছে লালনকে। কিন্তু মিথ্যা অপবাদ থেকে তাঁকে বাঁচাতে আচমকাই মিথ্যা গল্প ফেঁদে বসে ফুলঝুরি। পুলিশ কর্তার পায়ে ধরে জানায়, লালনের সঙ্গে তাঁর বিয়ের ঠিক হয়েছে, এবং বড়লোক বাড়ির মেয়ে লালনকে ফাঁসাতে মিথ্যা অপবাদ দিয়েছে। সে বলে, 'আমার জীবনটা এভাবে নষ্ট করে দেবেন না, ওকে ছেড়ে দিন না'।

ফুলঝুরির এই মিথ্যা গল্পের পরিণতি কী হবে? লালন কীভাবে এই পুলিশি ঝামেলা এড়াতে পারবে? এই প্রশ্নের জবাব মিলবে সিরিয়ালের আগামী পর্বে। 

বন্ধ করুন