বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ‘উরে জব জব জুলফে তেরি…’, রুপোলি পর্দায় ম্যাজিক তৈরি করেছে দিলীপ কুমারের ছবির যে সকল গান
দিলীপ কুমার (ফাইল ছবি)
দিলীপ কুমার (ফাইল ছবি)

‘উরে জব জব জুলফে তেরি…’, রুপোলি পর্দায় ম্যাজিক তৈরি করেছে দিলীপ কুমারের ছবির যে সকল গান

কখনও পুরোদস্তুর রোমিও, তো কখনও লাজুক প্রেমিক- ফিরে দেখা দিলীপ কুমারের ছবির কিছু এভারগ্রিন গান। 

বুধবার সাত সকালেই মন কেমনের খবর। না ফেরার দেশে চলে গেলেন ভারতীয় চলচ্চিত্রের অন্যতম আইকন দিলীপ কুমার। শেষ হল একটা যুগের। ছয় দশক দীর্ঘ ফিল্ম কেরিয়ারে মাত্র ৬৩ টি ছবিতে অভিনয় করেছিলেন দিলীপ কুমার, কিন্তু তাঁর অভিনীত প্রতিটি ছবি দর্শক মনে আলাদা জায়গা জুড়ে রয়েছে। 

এদিন দিলীপ কুমারের পারিবারিক বন্ধু ফয়জল ফারুকি অভিনেতার অফিয়িস্যাল টুইটার হ্যান্ডেল থেকেই এই দুসংবাদ অনুরাগীদের কাছে পৌঁছে দেন। কথায় আছে শিল্পীর মৃত্যু হয়, কিন্তু নিজের সৃষ্টির মধ্যে দিয়ে তিনি চিরকাল বেঁচে থাকেন। যেমনভাবে দিলীপ সাহাবও দর্শক হৃদয়ে বেঁচে থাকবেন। 

সাদা-কালো পর্দা থেকে রঙিন সেলুলয়েড, রুপোলি পর্দায় তাঁর অভিনয় এক মায়াজাল বুনত। ট্র্যাজেডি কিং-এর কেরিয়ারে বহু হিট গান রয়েছে,  চলুন ফিরে দেখি দিলীপ কুমারের বর্ণময় কেরিয়ারের কিছু সেরা গান। 

ইয়ে দেশ হ্যায় বীর জাওয়ানো কা, নয়া দৌর (১৯৫৭)

হিন্দি ছবির দেশাত্মবোধক গানের নাম মনে করতে চাইলে একদম শুরুতে আসবে এই গান। যা গেয়েছেন বলবীর এবং মহম্মদ রফি। 

উড়ে জব জব জুলফে তেরি , নয়া দৌর (১৯৫৭)

পাঁচ দশক পুরোনো এই গান আজও গানপ্রেমীদের মনে তরতাজা। গানের দৃশ্যায়ণে দিলীপ কুমারে এক্সপ্রেশন সত্যি মুগ্ধ করে, বৈজন্তিমালার সঙ্গে তাঁর রসয়ান নজরকাড়া। ওপি নায়ারের কম্পোজিশনে সাজানো এই গান গেয়েছেন মহম্মদ রফি ও আশা ভোঁসলে।

মধুবন মে রাধিকা নাচে, কোহিনূর (১৯৬০)

দিলীপ কুমার-মহম্মদ রফি এবং নওসাদ, এই ত্রয়ী যতগুলি এভারগ্রিন গান রয়েছে তার মধ্য অন্যতম এই গান। শাকিল বদাউনির লেখা কোহিনূর ছবির এই গান সত্যি হিন্দি সিনেমার এক কোহিনূর। 

নয়ন লড় জায়েঁ হেঁ (গঙ্গা যমুনা, ১৯৬১)

দিলীপ কুমারের সাবলীল এক্সপ্রেশন আজও হাসি এনে দেয় আমাদের ঠোঁটের কোণে। অভিনেতার প্রেমিক মেজাজ দেখে সত্যি মন উতলা হয়। এই গানের নেপথ্যেও সেই নওসাদ আর মহম্মদ রফির সুপারহিট জুটি। 

শালা মেয় তো সাব বনগায়া (গোপি, ১৯৭৩)

স্যুট-ব্যুট পরে লন্ডনের সাহাবের অবতারে এই গানে ধরা দেন দিলীপ কুমার। কিশোর কুমারের অনন্য গায়েকি আর দিলীপ কুমারের ইউনিক এক্সপ্রেশন এই গানের মূল ইউএসপি। 

ইমলি কা বুটা (সওদাগার, ১৯৯১)

নব্বইয়ের দশকেও রুপোলি জগতে তাঁর ম্যাজিক ফিকে হয়নি। লক্ষ্মীকান্ত প্যায়ারেলাল-এর সুরে সাজানো মহম্মদ আজিজের গাওয়া এই গানের দৃশ্যায়ণে ধরা দিয়েছেন দিলীপ কুমার ও রাজ কুমার। ভারতীয় সিনেমার দুই প্রাবদ প্রতিম ব্যক্তিত্ব এই গানে গানে উস্কে দিয়েছেন বন্ধুত্বের নস্ট্যালজিয়া। 

বন্ধ করুন