বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > অক্সিজেনের ঘাটতি, দিল্লির এক হাসপাতালে সিলিন্ডার পাঠানোর ব্যবস্থা করছেন সুস্মিতা
এগিয়ে এলেন সুস্মিতা
এগিয়ে এলেন সুস্মিতা

অক্সিজেনের ঘাটতি, দিল্লির এক হাসপাতালে সিলিন্ডার পাঠানোর ব্যবস্থা করছেন সুস্মিতা

  • মানবিক সুস্মিতা সেন।

দেশ জুড়ে করোনার বাড়বাড়ন্ত। অক্সিজেনের ঘাটতি, হাহাকার অবস্থা দিল্লিতে। এরই মধ্যে প্রাক্তন মিস ইউনিভার্স সুস্মিতা সেন জানিয়েছেন, বেশ কিছু অক্সিজেন সিলিন্ডারের ব্যবস্থা করতে পেরেছেন তিনি দিল্লির শান্তি মুকুন্দ হাসপাতালের জন্য। অভিনেত্রী সামাজিক মাধ্যমে একটি ভিডিয়ো শেয়ার করেছেন, যেখানে হাসপাতালের সিইও ক্যামেরার সামনে কান্নায় ভেঙে পড়েছেন অক্সিজেনের ঘাটতির জন্য।

সুস্মিতা টুইট করে লিখেছেন, ‘এটা হৃদয় বিদারক বিষয়.. অক্সিজেনের ঘাটতি সব জায়গায়। আমি কিছু অক্সিজেন সিলিন্ডারের ব্যবস্থা করতে পেরেছি হাসপাতালের জন্য, কিন্তু মুম্বই থেকে দিল্লিতে নিয়ে যাওয়ার জন্য কোনো ট্রান্সপোর্ট পাচ্ছি না... আমাকে দয়া করে সাহায্য করুন’। 

ভিডিয়োত সুনীল সাগ্গারকে বলতে শোনা যায়, ‘আমাদের কাছে কয়েকটাই অক্সিজেন সিলিন্ডার বেঁচে আছে। আমরা চিকিৎসকদের কাছে অনুরোধ করেছি, যাঁদের ডিসচার্জ করার মতো তাঁদের করে দিন... এটা হয়তো দু’ঘণ্টা কি তাঁর বেশি চলতে পারে’।

অভিনেত্রীর প্রচুর ভক্তরা তাঁকে মুম্বই থেকে সিলিন্ডার দিল্লিতে পাঠাতে বেশ কিছু পরামর্শ দিতে দেখা গেছে সামাজিক মাধ্যমের পোস্টে। একজন লিখেছেন, দিল্লিতে না পাঠিয়ে আমরা মুম্বইতে এই সিলিন্ডারগুলো কোনো হাসপাতালে দিলে হয়না। অভিনেত্রী জবাবে লিখেছেন, ‘মুম্বাইয়ের কাছে এখনও যথেষ্ট অক্সিজেন সিলিন্ডার রয়েছে, এটা আমি খুঁজে পেয়েছি। দিল্লির এটা বেশি দরকার, বিশেষত এই ছোট হাসপাতালগুলো, তাই আপনি যদি পারেন তবে সহায়তা করুন’।

তবে সুস্মিতা পরে এই সুসংবাদ প্রকাশ করেছেন যে, হাসপাতালটি অন্য কোথাও থেকে অক্সিজেনের ব্যবস্থা করতে পেরেছে। অভিনেত্রী টুইট করে জানিয়েছেন, ‘হাসপাতালটি আপাতত অক্সিজেনের ব্যবস্থা করতে পেরেছে!!! সিলিন্ডার পাঠাতে আমরা আরো একটু সময় পেয়ে গেলাম!! সচেতনতা ও সমর্থন তৈরিতে সহায়তার জন্য আপনাকে সকলকে অনেক ধন্যবাদ!! গভীর কৃতজ্ঞ!!! ভাল থাকুন...’। অভিনেত্রী এই কাজকে অনেকে প্রশংসা করেছেন এবং সমর্থন জানিয়েছেন।

করোনার মাহামারীর দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশজুড়ে অক্সিজেনের ঘাটতি নজরে এসেছে। প্রতিদিন লক্ষাধিক মানুষ করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন এবং হাজারের ওপর মানুষ মারা যাচ্ছে। মানুষ আরো নানা প্রকার সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন।

 

বন্ধ করুন