বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Mamata-Roopa: পর্দায় ‘মমতা’র ভূমিকায় রূপা গঙ্গোপাধ্যায়? সুরকার হিসাবে পরিচালক চান মমতাকে!
মুখ্যমন্ত্রীর জুতো চুরি- নিয়ে ফের নড়েচড়ে বসেছেন পরিচালক

Mamata-Roopa: পর্দায় ‘মমতা’র ভূমিকায় রূপা গঙ্গোপাধ্যায়? সুরকার হিসাবে পরিচালক চান মমতাকে!

  • ‘মুখ্যমন্ত্রীর জুতো চোর’-এই নামে সিনেমা করতে চান পরিচালক ঋষিকেশ মণ্ডল। তবে এই নাম রেজিস্টার করতে অস্বীকার করেছে ইম্পা! তবে নাছোড়বান্দা পরিচালক। 

‘মুখ্যমন্ত্রীর জুতো চুরি', এই নামে একটি সিনেমার পরিকল্পনা বছর চারেক আগেই করেছিলেন পরিচালক ঋষিকেশ মন্ডল। হিন্দিতে রাণু মণ্ডলের বায়োপিক বানাচ্ছেন ঋষিকেশ। তবে ঋষিকেশের বাংলা ছবি ‘মুখ্যমন্ত্রীর জুতো চোর'-র নামই রেজিষ্ট্রেশনের অনুমতি দেয়নি ইম্পা (ইস্টার্ন ইন্ডিয়া মোশন পিকচার্স অ্যাসোসিয়েশন)। পরিচালক জানান, ইম্পার সভাপতি পিয়া সেনগুপ্ত আগেভাবেই সচেতন করেছিলেন তাঁকে। 

গত ২৫শে জুলাই নতুন করে এই ছবি তৈরির পুরোনো ইচ্ছে মাথাচাড়া দিয়েছে পরিচালকের মনে। সৌজন্যে নজরুল মঞ্চে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাষণ। এবার এই ছবির জন্য মুখ্যমন্ত্রীর শরনাপন্ন হতে চলেছেন পরিচালক। পাশাপাশি ঋষিকেশের একান্ত ইচ্ছে এই ছবিতে মুখ্যমন্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করুন রূপা গঙ্গোপাধ্যায়। যদিও এই ব্যাপারে এখনও অভিনেত্রীর সঙ্গে কথা হয়নি তাঁর। চমকের শেষ এখানেই নয়!

ঋষিকেশ জানিয়েছেন, নজরুল মঞ্চে গত সোমবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন ছোঁয়া ভাষণে নতুন করে উদ্বুদ্ধ তিনি। ওইদিন মমতা বলেন, ‘আমি নিজে কোনও মাইনে নিই না, আমি যা করি নিজের টাকায়, আমি খেটে ইনকাম করি। আমি বই লিখি, গানে সুর দিই’। পরিচালকের কথায়, 'বিশ্বাস করুন আমি চোখে জল ধরে রাখতে পারিনি, আমাদের মুখ্যমন্ত্রীর এই কথা গুলো শুনে। সততা-শ্রদ্ধা আরও বেড়ে যায় ওঁর এই এসব ভাষণে! তাই, আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমার হিন্দি ছবির কাজটা শেষ করেই, আমি আবার বাংলা ছবির কাজে ফিরে আসব’।

পরিচালক চান, তাঁর ছবির সংগীত পরিচালনার দায়ভার নিক মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পরিবর্তে নিজের ক্ষমতামতো সম্মানিক মুখ্যমন্ত্রীকে দেবেন তিনি। কেন ঋষিকেশের ছবির এমন নাম? বিতর্কিত কী এমন বিষয় রয়েছে ছবিতে, যাতে ইম্পা ছাড়পত্র দেয়নি? 

পরিচালক বললেন, ঘটনাচক্রে মুখ্যমন্ত্রীর জুতো চুরি যাবে, আর এক কাগজকুড়োনি সেই জুতো জোড়া পাবে। সেই জুতো বিক্রি না করে রেখে দেবে ওই কাগজকুড়োনি। এরপর ধীরে ধীরে প্রভাবশালী হয়ে উঠবে সে। বাকিটা ক্রমশ প্রকাশ্য। 

ছবির প্রথম পোস্টারও তৈরি পরিচালকের। সেখানে নীল-সাদা হাওয়াই চপ্পল, নীল-সাদা বাড়ি, সবই রয়েছে। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর কাছ পর্যন্ত নিজের আর্জি নিয়ে পৌঁছাতে পারবেন পরিচালক? এক সাক্ষাৎকারে পরিচালক জানান, ‘আশা করি আমার স্টোরি ও চিত্রনাট্য শুনে বা পড়ে আমাদের প্রিয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভালো লাগবেই। এরপর, উনি আমার ছবিতে সুর দিতে চাইবেন কিনা সেটা ওঁনার ব্যক্তিগত ইচ্ছা।’ তবে মুখ্যমন্ত্রী রাজি হলে ওঁনার সময়ের জন্য অপেক্ষা করতে তৈরি পরিচালক। 

 

 

বন্ধ করুন