বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > মা হওয়ার পাঁচ মাস পরেই সেটে,'পাপ: অন্তিম পর্ব' নিয়ে এক্সক্লুসিভ আড্ডায় পূজা
পূজা বন্দ্যোপাধ্যায় (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)
পূজা বন্দ্যোপাধ্যায় (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)

মা হওয়ার পাঁচ মাস পরেই সেটে,'পাপ: অন্তিম পর্ব' নিয়ে এক্সক্লুসিভ আড্ডায় পূজা

  • ‘আমি খুব লেটে উঠতাম। প্রথম জিনিস কৃশিব যেটা করেছে.. এখন আমি সারারাত প্রায় ঘুমোই না, কিন্তু খুব তাড়াতাড়ি উঠি।মা হলে বুঝবি… সেটা শুনেছি এতদিন, এখন বুঝতে পারছি’, বললেন পূজা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

মা হওয়ার মাস মাসের মধ্যেই শ্যুটিং সেটে ফিরেছিলেন পূজা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর গত শুক্রবারই হইচই প্ল্যাটফর্মে মুক্তি পেল অভিনেত্রীর ‘পাপ : অন্তিম পর্ব’। করোনা পরিস্থিতি তারপর ছেলেকে সামলানো- সবটা ম্যানেজ করেই শ্যুটিং সারা। কেমন ছিল এই বদলে যাওয়া পরিস্থিতিতে শ্যুটিংয়ের অভিজ্ঞতা, কৃশিবের আগমন কতটা পালটে দিল অভিনেত্রীর জীবন। সবকিছু নিয়ে আরব সাগর পার থেকেই হিন্দুস্তান টাইমস বাংলার সঙ্গে মুঠোফোনে আড্ডা দিলেন পূজা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

প্রশ্ন: অভিনেত্রী থেকে মা, পাপ থেকে পাপ অন্তিম পর্বে বদলে যাওয়া জার্নিটা নিয়ে কী বলবেন?

পূজা:  আমার লাইফ শুধু নয়, আমাদের সবার জীবনটাই গত এক বছরে অনেকটা বদলে গেছে পাপ থেকে পাপের অন্তমি পর্বে পৌঁছাতে। ব্যক্তিগতভাবে সত্যি ভাবিনি আমার জীবনটা এতো বদলে যাবে। গত বছরই পাপের দ্বিতীয় সিজন আসবার কথা ছিল। কিন্তু ব্যক্তিগত কারণে (অন্তঃসত্ত্বা) আমি করতে পারিনি। অবশেষে এই বছরই শ্যুটিং করে আমরা রিলিজ করলাম, অনেক কিছু বদলে গেলেও যেটা বদলায়নি তা হল আমাদের সবার কাজ করবার তাগিদ। একটা সিরিজের অন্য ২ বছর ধরে অপেক্ষা করাটা সত্যি বড় একটা ব্যাপার। মানুষ ভুলে যায়নি…তাঁরা অপেক্ষা করেছে ‘পাপ’-এর দ্বিতীয় সিজনটার জন্য তাতে আমি কৃতজ্ঞ। 

প্রশ্ন: করোনা পরিস্থিতিতে পাঁচের মাসের কৃশিব-কে সামলে শ্যুটিং, এই অভিজ্ঞতাটা কেমন ছিল? 

পূজা: আরেকটু আগেই ফেরবার কথা ভেবেছিলাম, নতুন মা হয়ে সামলে উঠতে সময় লেগে গেল তাই সময় লেগে গেল। যতটা সহজ ভেবেছিলাম, ততটা সহজ নয়। বিশেষত করোনা পরিস্থিতির জন্য সময় লেগে গেল। এই পরিস্থিতিতে বাচ্চা সামলে, সংসার সামলে শ্যুটিং করা শ্যুটিং। তবে আমি গোটা টিমের প্রতি কৃতজ্ঞ, আমি বাচ্চা ফিডিং করিয়ে, ওর সমস্ত কাজ করে তবে সেটে আসতাম। সেইমতোই আমাকে কলটাইম দেওয়া হত। সবাই খুব সহায়তা করেছে। এভাবে পাশে দাঁড়ালে আমি শ্যুটিংটা করতে পারতাম না। 

প্রশ্ন:  ‘পাপ: অন্তিম পর্ব’ নিয়ে দর্শকদের কী প্রতিক্রিয়া? 

পূজা:  খুব ভালো রেসপন্স পাচ্ছি। কেউ আশা করেনি সিরিজের শেষটা এইরকম হতে পারে। দর্শকরা চমকে গেছে। আমার বন্ধুরা, আত্মীয়রা এতদিন ঝগড়া করেছে আমার সঙ্গে, যে বল না শেষটা কী হবে? প্রথম সিজনের পর কিন্তু আমি নিজেও জানতাম না শেষটা কী হবে, সেটা কেউ বিশ্বাস করত না। অনেকেই ঝগড়া করেছে আমার সঙ্গে, কাউকে আমি মিথ্যা বলে দিয়েছি… হ্যাঁ, আমি খুনি। কী করব! 

প্রশ্ন: এক বাড়িতে দুজন পেশাদার অভিনেতা, স্বামী (কুণাল বর্মা) তোমার কাজ দেখে খুঁত বার করে? 

পূজা:  আমরা দুজনে, দুজনের ক্রিটিক। আমার হ্যাজব্যান্ড সবসময় আমার ভুলগুলো ধরিয়ে দেয়। আমার সামনে ভালোটা কমই বলে, তবে অন্যদের কাছে বলে (হাসতে হাসতে)। যেখানে নিজেকে আরও শাণিয়ে নেওয়ার দরকার ও নিশ্চয় আমাকে বলে। ও ভীষণ ভালো অভিনেতা, আমরা দুজন একে অপরকে এতোভালো চিনি, যে আমরা নিজেদের ভুল-ঠিকগুলো সবচেয়ে ভালো বুঝি। আমরা একে অপরের বেস্ট ক্রিটিক। এখনও আমরা সব এপিসোডগুলি দেখেনি। তবে যতটা দেখেছে ওর ভালো লেগেছে। যদিও বাংলা ও পুরোটা বোঝে না, তবে একটু একটু বোঝে। তবে অভিনয়টাই আসল, ভাষাটা নয়। 

প্রশ্ন: এখন তো অনেকেই টলিউড ছেড়ে বলিউডে গিয়ে কাজ করছে, তোমার ক্ষেত্রে বিষয়টা উলটো?

পূজা:  বলতে পারেন এর মূল কারণ আমার মা এবং বাবা। ওঁদের ইচ্ছা আমি বাংলায় কাজ করি। মুম্বইতে থাকলেও  বাঙালি তো! পাশাপাশি আমারও ভাল লাগে কলকাতায় কাজ করতে। সেই সূত্রে ফিরে আসা। 

প্রশ্ন : কৃশিব আসার পর জীবন কতটা বদলে গেছে? ছেলে প্রতিদিন কী শেখাচ্ছে?

পূজা: আমি খুব লেটে উঠতাম। প্রথম জিনিস কৃশিব যেটা করেছে এখন আমি সারারাত প্রায় ঘুমোই না, কিন্তু খুব তাড়াতাড়ি উঠি। প্রায় আটমাস হয়ে গেল… মানে ওর যতদিন বয়স ততদিন আমি ঠিক করে ঘুমোয়নি। এইরকম কত জিনিস পালটে গেছে, মানসিকভাবে অনেক ফারাক আসে। মা হলে বুঝবি… সেটা শুনেছি এতদিন, এখন বুঝতে পারছি। একটা কথা বলতে চাই, যখন ও আমার ডেলেভারি হল, এবং ও কান্না শুরু করল… আমিও কাঁদতে শুরু দিয়েছিলাম। হয়ত এটা অনেকের স্টুপিড মনে হতে পারে কিন্তু একটা অদ্ভূত অনুভূতি ওটা। শুরুর দিকে যখনই ও কাঁদত, যেটা স্বাভাবিক আমিও কেঁদে ফেলতাম। কেন, বলতে পারব না। আসলে এটাই মাদারলি ফিলিং।

প্রশ্ন : অতিমারী পরিস্থিতি নিয়ে কী বলবে? 

গতবছরের তুলনায় এবছরটা আরও বেশি কঠিন। কারণ এখন আর করোনায় মৃতরা আমার কাছে সংখ্যা নয়, নাম হয়ে গেছে। আমি কাছের মানুষজনকে হারিয়েছি। আমাদের সবার জন্য এটা খুব কঠিন সময়। পৃথিবী দ্রুত সুস্থ হবে সেই অপেক্ষায় রয়েছি। 

প্রশ্ন : পাপের নতুন সিজন নিয়ে সবশেষে ‘পার্বণী’ কী বলবে?

পূজা: একটাই কথা বলব দয়া করে কেউ সাসপেন্সটা রিভিল করবে না, স্পয়লারটা প্লিজ দেবে না। সবাই দেখো সিরিজটা, আমি নিশ্চিত তোমাদের ভালো লাগবে। অনেকদিন তোমরা ওয়েট করেছিলে, দেখো নিরাশ হবে না। শীঘ্রই নতুন সিরিজ নিয়ে আমি ফিরব। 

(ওটিটি প্ল্যাটফর্ম হইচইতে স্ট্রিমিং হচ্ছে পাপ: অন্তিম পর্বের)

 

বন্ধ করুন