বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > 'মিঠুদাকে প্রত্যেক দিন মিস করি', পিতৃদিবসে 'ড্যাডি' অভিষেককে নিয়ে আবেগঘন তৃণা
অভিষেকের সঙ্গে দীর্ঘ দিন অভিনয় করেছেন তৃণা।

'মিঠুদাকে প্রত্যেক দিন মিস করি', পিতৃদিবসে 'ড্যাডি' অভিষেককে নিয়ে আবেগঘন তৃণা

  • তৃণার মতে, কাছের মানুষদের ভালোবাসা জানাতে নির্দিষ্ট দিনের প্রয়োজন নেই। প্রত্যেকটি সম্পর্ককেই রোজ উদযাপন করা উচিত।

বড় পর্দার থেকে দূরত্ব তৈরি হওয়ার পর ছোট পর্দায় নিজেকে নতুন ভাবে আবিষ্কার করেছিলেন অভিষেক চট্টোপাধ্যায়। 'খড়কুটো' ধারাবাহিকে গুনগুনের 'ড্যাডি' হয়ে পাকাপাকি ভাবে জায়গা করে নিয়েছিলেন দর্শক-মনে। 'গুনগুন' তৃণা সাহার কাছেও মিলেমিশে গিয়েছিল গল্প আর বাস্তব।প্রয়াত অভিনেতার সঙ্গে দু'বছরের বেশি অভিনয়। পর্দার বাইরেও বিশেষ ফারাক ছিল না রসায়নে। তাই পিতৃদিবসে 'ড্যাডি'র জন্য মনকেমন তাঁর।

হিন্দুস্তান টাইমস বাংলাকে তৃণা বলেন, 'শুধু আজ বলে নয়, প্রত্যেক দিনই মিঠুদার (অভিষেক চট্টোপাধ্যায়) কথা মনে পড়ে। ওঁর কথা হয় সকলের সঙ্গে। আমরা বলি, মিঠুদা থাকলে হয়তো এটা বলতেন, ওটা করতেন। উনি থাকলে কোনও দৃশ্য হয়তো আরও ভালো করে পর্দায় ফুটে উঠত।'

তৃণার মতে, কাছের মানুষদের ভালোবাসা জানাতে নির্দিষ্ট দিনের প্রয়োজন নেই। প্রত্যেকটি সম্পর্ককেই রোজ উদযাপন করা উচিত। তাঁর কথায়, 'যখনই আমরা শ্যুট করি, মিঠুদার কথা মনে পড়ে। ওঁর কাজ নিয়ে আমরা করি। অতীত ফিরে দেখি।'

রবিবার যদিও ব্যস্ত রুটিন থেকে ছুটি নিয়েছেন তৃণা। বাবা সুজিত কুমার সাহাকে নিয়ে গিয়েছিলেন পছন্দের রেস্তরাঁয়। এর পর? খানিক হেসে 'গুনগুন' বললেন, 'বাবাকে একটা নতুন বাড়ি কিনে দিয়েছি। সেই বাড়ি কী ভাবে সাজানো হবে, সেটার পরিকল্পনা চলবে এ বার। নতুন ঠিকানায় নিয়ে যাব বাবাকে।'

 

বন্ধ করুন