বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ফেব্রুয়ারিতে সাত পাকে বাঁধা পড়ছেন নীল-তৃণা, পরিণতি পাচ্ছে ১০ বছরের সম্পর্ক
৪ঠা ফেব্রুয়ারি বিয়ের পিঁড়িতে বসছেন এই জুটি (ছবি-ইনস্টাগ্রাম) 
৪ঠা ফেব্রুয়ারি বিয়ের পিঁড়িতে বসছেন এই জুটি (ছবি-ইনস্টাগ্রাম) 

ফেব্রুয়ারিতে সাত পাকে বাঁধা পড়ছেন নীল-তৃণা, পরিণতি পাচ্ছে ১০ বছরের সম্পর্ক

  • ৪ঠা ফেব্রুয়ারি বসছে নীল-তৃণার বিয়ের আসর। ১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইন্স ডে'র দিন হচ্ছে রিসেপশন পর্বের আয়োজন। হানিমুনের টিকিটও কেটে ফেলেছেন এই জুটি!

টলিগঞ্জে যেন বিয়ের হিড়িক লেগেছে। শুক্রবার সামনে এসেছে অনির্বাণ ভট্টাচার্যের বিয়ের খবর, যাতে মন ভেঙেছে তারকার মহিলা ভক্তদের। এবার বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চলেছেন বাংলা টেলিভিশনের অন্যতম চর্চিত অফ-স্ক্রিন জুটি নীল ভট্টাচার্য ও তৃণা সাহা, মানে কৃষ্ণকলি ধারাবাহিকের নিখিল ও খড়কুটো ধারাবাহিকের গুনগুন। 

পর্দায় গুনগুনের বিয়ের তোড়জোড় চরমে। সেই সমই ক্যালক্যাটা টাইমসকে দেওয়া এক এক্সক্লুসিভ সাক্ষাত্কারে বিয়ের পাকা খবর দিলেন এই জুটি। নীল ও তৃণা জানিয়েছেন আগামী ৪ঠা ফেব্রুয়ারি সাতপাকে বাঁধা পড়ছেন তাঁরা। শহরের এক নামী ক্লাবে বসবে এই জুটির বিয়ের আসর, এরপর টলিউডের বন্ধুদের জন্য শানদার রিসেপশনের ব্যবস্থা থাকছে ১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইন্স ডে-র দিন। বিয়েতে একদম সাবেকি বাঙালি বধূর সাজেই সাজবেন তৃণা। এখন থেকেই বিয়ের প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন নায়িকা। 

 

নীল-তৃণার সম্পর্কের বয়স ১০ বছর। প্রথমবার এমবিএ ক্লাসের আলাপ দুজনের। নীলের জন্য বলা যায় লাভ অ্যাট ফাস্ট সাইট, অন্তত প্রথম দিনই তৃণাকে মনে ধরেছিল তাঁর। যদিও নীলকে নাকি ক্লাসে নোটিশই করেননি তৃণা। যদিও হবু স্ত্রীর মনে ঠিক জায়গা করে নিয়েছিলেন নীল। তবে চড়াই-উতরাই কম আসেনি এই সম্পর্কে। দুই ভাগে বিভক্ত তাঁদের প্রেম কাহিনি। ২০১১ সালের শেষের দিকে প্রেম সম্পর্কে সাময়িক বিরতি এসেছিল, সেই সময় পড়াশোনার জন্য দিল্লিতে চলে যান তৃণা। তবে ভাগ্যের খেল বোধহয় একেই বলে। কলকাতায় ফেরার পর দুজনেই একই পথের পথিক হয়ে উঠেন। শুরু হয় অভিনয় কেরিয়ার। ক্যালক্যাটা টাইমসকে তৃণা জানিয়েছেন, ‘২০১৫ সালে আমরা ফের একে অপরের কাছাকাছি আসি। এরপর ২০১৬ সালের ৮ই জুন ওঁর (নীল) জন্মদিনের দিন আমি বুঝেছিলাম ওকে ছাড়া আমি থাকতে পারব না। তাই সোজাসুজি আই লাভ ইউ বলে দিলাম। তবে নীল কিন্তু হ্যাঁ, বলেনি’। 

বেশ কয়েকটা মাস সময় নিয়েছিলেন নীল। অবশেষে নতুন বছরের তৃণার জন্মদিনে (২১ জানুয়ারি, ২০১৭) নীল প্রেম প্রস্তাব দেন নিজের মনের মানুষকে। মনের কথা মুখে আনতে নীল দ্বিতীয় পর্যায়ে সাত মাস সময় নিলেও তৃণা কিন্তু সাত সেকন্ড সময়ও নষ্ট করেননি হ্যাঁ বলতে। 

আচমকা বিয়ের সিদ্ধান্ত কেন? এই প্রশ্নের জবাবে দুজনেই মেনে নিয়েছেন আর দূরে থাকতে চান না তাঁরা। আর একসঙ্গে থাকতে হলে বিয়েটা জরুরি।  নীলের কথায়, ‘এক রবিবার সকালে ভিডিয়ো করে ওকে জিজ্ঞাসা করলাম চল ২০২১-এর ফেব্রুয়ারিতে বিয়েটা করে ফেলি, এরপর দুজনের বাবা-মায়ের সঙ্গে আলোচনা করে ফেব্রুয়ারির ৪ তারিখ ঠিক হয়ে গেল বিয়ের দিন’। 

হানিমুন ডেস্টিনেশনও বেছে ফেলেছেন এই জুটি। বিয়ের পর স্বপ্নের দেশ গ্রীসে ঘুরতে যাবেন তাঁরা। টোপর মাথায় দিতে তৈরি নীল, লাল বেনারসিতে সাজতে রেডি তৃণা… এখন শুধু সানাই বাজার অপেক্ষা… একেই তো বলে ‘মধুরেণ সমাপয়েৎ’।

বন্ধ করুন