বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > প্রযোজক-ফেডারেশনের দলাদলি তুঙ্গে! এবার কলাকুশলীদের কাছে এল ‘হুমকিবার্তা’!
প্রতীকী ছবি।
প্রতীকী ছবি।

প্রযোজক-ফেডারেশনের দলাদলি তুঙ্গে! এবার কলাকুশলীদের কাছে এল ‘হুমকিবার্তা’!

  • স্পষ্টট দুই শিবিরে ভাগ হয়ে গিয়েছে টলিউড। কাজিয়া অব্যাহত।

‘শ্যুট ফ্রম হোম’-এর কনসেপ্ট বরাবরই পছন্দ ছিল না ফেডারেশনের। চলতি সপ্তাহে বারবার এই নিয়ে কাজিয়ায় জড়িয়েছেন দুই পক্ষ। এবার কড়া ভাষায় চিঠি গেল কলাকুশলীদের কাছে। যাতে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, বিনা পরিশ্রমে ব্যাঙ্কের মাধ্যমে প্রযোজকেরা পারিশ্রমিক পাঠালে সেই অর্থসাহায্য কলাকুশলীরা যেন গ্রহণ না করেন। যাঁরা নির্দেশ অমান্য করবেন তাঁদের প্রতি আগামী দিনে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে সংগঠন। 

কলা-কুশলীদের কেন হুমকি দেবে ফেডারেশন? এব্যাপারে খোঁজ নিতে গিয়ে জানা গেল সভাপতি স্বরূপ বিশ্বাস দাবি করেছেন, তাঁর যা কিছু বলার ছিল তা ১৫ পাতার বিবৃতিতে স্পষ্ট করে লিখে দিয়েছেন। কিন্তু হুমকি দেওয়া হয়নি কাওকেই। জানানা, তাঁর বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে কিছু ব্যক্তি। 

চলতি সপ্তাহেই জানা গিয়েছিল শ্যুট ফ্রম হোমের নাম করে লকডাউনের সময় হোটেল, গুদামঘরে গিয়ে শ্যুটিং করা হচ্ছে। যেখানে মানা হচ্ছে না কোনও করোনা বিধি। অর্থাৎ, ভঙ্গ করা হচ্ছে রাজ্যের জারি করা করোনা সম্পর্কিত বিধিনিষেধ। এমনিতেও ফেডারেশনের দাবি ছিল তাঁদের অনুমতি না নিয়েই শ্যুট ফ্রম হোম চালু করেছেন প্রযোজকরা। যেখানে ব্রাত্য থেকে গিয়েছিল টেকনিশিয়ানরা। 

কলাকুশলীদের দাবি, ২০২০-র লকডাউনে কাজ না করলেও মাস মাইনে দিয়েছিলেন প্রযোজকেরা। কলাকুশলীরা সেই অর্থসাহায্য নিয়েওছিলেন। তাহলে এবছর এরকম নতুন কথা কেন! আর আগেরবার তাও অনের সংগঠনের পক্ষ থেকেই তাঁদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। এবছর এখনও সেরকম কিছু হয়নি। যদি তাঁরা প্রযোদকদের দেওয়া টাকা না নেন, তাহলে সংসার চলবে কী করে। আর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তো আগামী দিনে তাঁরাই কাজ এবং অর্থ দেবেন!

বন্ধ করুন