প্রতীকি ছবি (সৌজন্যে-ফ্রিপিক)
প্রতীকি ছবি (সৌজন্যে-ফ্রিপিক)

লকডাউনের মাঝেই চলছিল ভোজপুরী ফিল্মের শ্যুটিং! FIR- গোটা ইউনিটের বিরুদ্ধে

  • সরকারের সিদ্ধান্তকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ভোজপুরী ফিল্মের শ্যুটিং চলছিল রাজ্যের সুপল জেলার রাতাউলি গ্রামে। পুলিশ গিয়ে বন্ধ করে শ্যুটিং, এফআইআর দায়ের গোটা ইউনিটের বিরুদ্ধে।

দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। যদিও লকডাউন ঘোষণার অনেক আগে থেকেই করোনা সংক্রমণ রুখতে সবরকম শ্যুটিং বন্ধ রেখেছে বলিউড। একই পথে হেঁটে বলিউডের একদিন আগেই, ১৮ মার্চ থেকে সমস্তরকম শ্যুটিং বন্ধ করে দিয়েছে টলিগঞ্জ। কিন্তু প্রতিবেশী রাজ্য বিহারে ধরা পড়ল অন্য ছবি। সরকারের সিদ্ধান্তকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ভোজপুরী ফিল্মের শ্যুটিং চলছিল রাজ্যের সুপল জেলার রাতাউলি গ্রামে। স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে সেখানে পৌঁছায় পিপরা থানার পুলিশ। বন্ধ করে দেওয়া হয় শ্যুটিং,ক্যামেরা সহ শ্যুটিংয়ের অনান্য সকল সরঞ্জাম নিজের দখলে নেয় পুলিশ। ইতিমধ্যেই গোট শ্যুটিং ইউনিটের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে।

এই প্রসঙ্গে সুপল জেলার এসপি মনোজ কুমার জানিয়েছেন, আমরা খবর পেয়ে বিষয়টির সত্যতা যাচাই করতে সেখানে যাই এবং দেখি হ্যাঁ, ঘটনাটি সত্যি। গ্রামের একটি বিল্ডিংয়ের মধ্যে শ্যুটিং চলছিল। যদিও বিল্ডিংয়ের মুখ্য দরজা বন্ধ ছিল। গিয়ে দেখে বিল্ডিংয়ের বাইরে বিশাল সংখ্যক মানুষ উঁকিঝুঁকি মারছেন,ভিতরে শ্যুটিংয়ের ঝলক দেখতে। যখন দরজা খোলা হয় আমরা দেখি অনেক মানুষ একটা ফিল্মের শ্যুটিং সারছে।

তিনি যোগ করেন, ইতিমধ্যেই এফআইআর দায়ের করে আমরা তদন্ত শুরু করেছি।উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে’।

স্থানীয় বাসিন্দা সমরেন্দ্র সিং জানিয়েছেন, বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরেই ওই অঞ্চলে ভোজপুরী ফিল্মের শ্যুটিং চলছিল। লকডাউনের সময় দিনকয়েক বন্ধ থাকলেও আবারও নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে শ্যুটিং শুরু হয়।

বন্ধ করুন