বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > 'হিন্দু ধর্মবিশ্বাসে আঘাত', এফআইআর দায়ের অমিতাভ বচ্চন ও কেবিসি টিমের বিরুদ্ধে
বিপাকে কেবিসি 
বিপাকে কেবিসি 

'হিন্দু ধর্মবিশ্বাসে আঘাত', এফআইআর দায়ের অমিতাভ বচ্চন ও কেবিসি টিমের বিরুদ্ধে

  • লখনউয়ের এফআইআর দায়ের পর এবার বিতর্কিত প্রশ্নকে ঘিরে বিগ বি ও কেবিসিকে একহাত নিলেন মহারাষ্ট্রের বিজেপি বিধায়ক। 

এবার হিন্দুদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাতের অভিযোগ উঠল অমিতাভ বচ্চন ও কৌন বনেগা ক্রোড়পতি কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে।এই মর্মে লখনউতে বিগ বি এবং শোয়ের কর্তাদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হয়েছে। ঘটনার সূত্রপাত শুক্রবার, কেবিসি ১২-এর মঞ্চের এক প্রশ্নকে ঘিরে। কর্মবীর স্পেশ্যাল এই এপিসোডে হাজির হয়েছিলেন সমাজকর্মী বেজওয়দা উইলসন এবং অভিনেতা অনুপ সোনি।

এই এপিসোডে ৬ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা জিততে হলে যে প্রশ্ন রাখা হয়ছিল বেজওয়দা উইলসন ও অনুপ সোনির সামনে সেই নিয়েই যত কাণ্ড! অমিতাভ জানতে চান- ২৫ ডিসেম্বর ১৯২৭ সালে বি আর আম্বেদকর এবং তাঁর সঙ্গীরা কোন ধর্মগ্রন্থের প্রতিলিপি জ্বালিয়ে দিয়েছিলেন ? চারটি অপশন হিসাবে সামনে রাখা হয়- A) বিষ্ণু পুরাণ, B) ভগবত গীতা C)ঋকবেদ এবং D) মনুস্মৃতি।

এই প্রশ্নের সঠিক উত্তর মনুস্মৃতি। কোনওরকম সময় নষ্ট না করেই দুই প্রতিযোগী সঠিক উত্তর দেন। পরে অমিতাভ জানান, জাতিগত ভেদাভেদ ও অস্পৃশ্যতাকে মুছে ফেলতে ডঃ বিআর আম্বেদকর ও তাঁর সঙ্গীরা প্রাচীন হিন্দুগ্রন্থ মনুস্মৃতির বিরোধিতা করে সেটি জ্বালিয়ে দিয়েছিল। তবে নেটিজেনদের একটা অংশ এই নিয়ে খুশি হয়নি।কারণ মনুস্মৃতি বা মনুসংহিতা হিন্দু ধর্মগ্রন্থ নয়, বৈদিক সনাতন ধর্মের অনুসারীদের অনুশাসনে ব্যবহৃত মূখ্য এক স্মৃতিগ্রন্থ।তাই প্রশ্নেই গলদ ছিল কেবিসির।

শুধু লখনউতেই এফআইআর দায়ের হয়েছে তা নয়, মহারাষ্ট্রের লাতুর জেলার আসুয়ার বিজেপি বিধায়ক অভিমন্যু পাওয়ার জেলার এসপি নিখিল পিঙ্গলের কাছে এই বিষয় নিয়ে অভিযোগ জানিয়েছেন।হিন্দু ধর্মবিশ্বাসে আঘাত হানা এবং হিন্দু ও বৌদ্ধ ধর্মের মানুষের মধ্যে বিভেদ তৈরির চেষ্টায় অমিতাভ, সোনি এন্টারটেনমেন্ট টেলিভিশনের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিতে বলেছেন তিনি। বিজেপি বিধায়ক আরও জানান, চারটি অপশনেই হিন্দু গ্রন্থের নাম উল্লেখ করা হয়েছে, এটি স্পষ্ট যে এই প্রশ্নের মাধ্যমে হিন্দু ধর্মের মানুষের বিশ্বাসে আঘাত হানার চেষ্টা হয়েছে। 

পরিচালক বিবেক অগ্নিহোত্রীও টুইটারে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন- ‘কেবিসিকে কমিউনিস্টরা হাইজ্যাক করে নিয়েছে। নিষ্পাপ শিশুরা তোমরা শেখো কীভাবে সাংস্কৃতিক যুদ্ধ জিততে হয়, এটাকে কোডিং বলে’। 

বন্ধ করুন