বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > কৃষক বিক্ষোভ নিয়ে রিহানা,গ্রেটার টুইটের সমালোচনায় সরব অক্ষয়,অজয়,করণরা
কেন্দ্রের পাশে বলিউডের প্রথম সারির তারকারা
কেন্দ্রের পাশে বলিউডের প্রথম সারির তারকারা

কৃষক বিক্ষোভ নিয়ে রিহানা,গ্রেটার টুইটের সমালোচনায় সরব অক্ষয়,অজয়,করণরা

  • ‘ভারত বিরোধী প্রোগাগান্ডা’র ফাঁদে দেশবাসীকে পা না দেওয়ার পরামর্শ বলিউডের প্রথম সারির তারকাদের। 

কৃষক আন্দোলন নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটে থাকায় সমালোচনা মুখে পড়ছেন অজয় দেবগণ, অক্ষয় কুমাররা। বুধবার এই ইস্যুতে প্রথমবার মুখ খুললেন বলিউডের প্রথম সারির একঝাঁক তারকা। তালিকায় রয়েছেন অক্ষয় কুমার, অজয় দেবগণ, করণ জোহর, সুনীল শেট্টিরা। কৃষিবিল বিরোধী আন্দোলনে কার্যত কেন্দ্রের পাশেই দাঁড়ালেন বলিউডের এই এ-লিস্টাররা। আন্তর্জাতিক পপ তারকা রিহানা ও পরিবেশকর্মী গ্রেটা থুনবার্গরা ভারতে চলা কৃষক আন্দোলন নিয়ে বিস্ফোরক টুইট করেন। সেই টুইটের সমালোচনা করে বিবৃতি দেয় বিদেশ মন্ত্রক।  এরপরই এক এক করে টুইটারে 'ভারত বিরোধী প্রোপাগান্ডা' সরব বলিউড।

গেরুয়া শিবির ঘনিষ্ঠ হিসাবেই সো্শ্যাল মিডিয়ায় যিনি পরিচিত, সেই অক্ষয় কুমার এদিন কেন্দ্রের আনুষ্ঠানিক বিবৃতির প্রতিলিপি রি-টুইট করে লেখেন, 'কৃষকরা আমাদের দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এবং সমস্যার সমাধানে সবরকম জরুরি পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে তাও স্পষ্ট। আসুন একটা বন্ধুত্বপূর্ণ সমাধানের খোঁজ করা যাক। যার বিভেদ তৈরি করছে আসুন তাঁদের দূরে সরিয়ে দিই। 

অন্যদিকে অজয় দেবগন নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে লেখেন, ‘ভারত অথবা ভারতের নীতি-বিরোধী কোনও মিথ্যা প্রোপাগান্ডার ফাঁদে পা দেবেন না। এই মুহূর্তে সবচেয়ে জরুরি মারামারি ভুলে আমাদের একতা বজায় রাখা’। 

কেন্দ্রের পাশেই দাঁড়ালেন বলিউড তারকারা
কেন্দ্রের পাশেই দাঁড়ালেন বলিউড তারকারা

সুনীল শেট্টি টুইট বার্তায় জানান, ‘প্রত্যেকটা জিনিস সম্পর্কে বিস্তৃত ভাবনা-চিন্তার প্রয়োজন রয়েছে, কারণ অর্ধসত্যের চেয়ে বেশি খতরনাক আর কিছুই নয়’। পরিচালক-প্রযোজক করণ জোহর টুইট করেন, ‘আমরা একটা কঠিন সময়ের মধ্যে বাস করছি, এবং এই মুহূর্তে সহচেয়ে জরুরি হল প্রতিটা বাঁকে বিচক্ষণতা এবং ধৈর্য। প্রত্যেকের পক্ষে যা আদর্শ হবে তেমন একটা সমাধান খুঁজে বার করবার উদ্দেশ্যে আসুন আমরা সকলে মিলে চেষ্টা করি- আমাদের কৃষকভাইয়েরা হল এই দেশের মূল চালিকাশক্তি। আসুন কেউ যেন আমাদের মাঝে ফাটল না ধরায়’। 

বুধবার বিদেশমন্ত্রকের তরফে বিবৃতি জারি করে জানানো হয়, এই ধরণের সংবেদনশীল বিষয় নিয়ে মন্তব্য করবার আগে গোটা বিষয়টি সম্পর্কে অবগত হওয়াটা খুব জরুরি। লেখা হয়, 'এধরনের বিষয়গুলিতে মন্তব্য করার আগে সত্যতা যাচাই করে নেওয়া উচিত। এই বিষয়গুলির মধ্যে ঢোকার আগে ঠিক কী ঘটেছে তা বুঝে নেওয়া উচিত।

বিদেশ মন্ত্রকের তরফে রিহানা ও গ্রেটার ভাইরাল টুইট সম্পর্ক প্রতিক্রিয়ায় আরও বলা হয়েছে, ‘সোশ্যাল মিডিয়া হ্যাশট্যাগের প্রলোভন দেখিয়ে তারকারা যখন কোনও মন্তব্য করেন কিংবা কোনও বিষয়কে সমর্থন করেন, সবসময় তা সঠিক হয়না বা দায়বদ্ধতার পরিচয় দেয় না’।

বন্ধ করুন