বাড়ি > বায়োস্কোপ > সুশান্তের সঙ্গে ‘চিকনি চামেলি’তে নেচেছিলেন সিদ্ধান্ত, ঘুম উড়েছিল রাতের
চিকনি চামেলি গানে সুশান্ত-সিদ্ধান্তের নাচ 
চিকনি চামেলি গানে সুশান্ত-সিদ্ধান্তের নাচ 

সুশান্তের সঙ্গে ‘চিকনি চামেলি’তে নেচেছিলেন সিদ্ধান্ত, ঘুম উড়েছিল রাতের

  • সুশান্তহীন দু'মাস…৮ বছর আগেও সিদ্ধান্তের রাতের ঘুম উড়িয়েছিলেন সুশান্ত, আজও নিজের বিহারি ভাইয়ের কথা ভেবে রাত জাগেন 'গল্লি বয়' খ্যাত সিদ্ধান্ত চতুর্বেদী। 

গল্লি বয়ের সুবাদে গোটা দেশে পরিচিত নাম সিদ্ধান্ত চতুর্বেদী। নিজের জীবনের একটি স্পেশ্যাল মুহূর্ত বৃহস্পতিবার অনুরাগীদের সঙ্গে ভাগ করে নিলেন সিদ্ধান্ত। এদিন ৮ বছর পুরোনো একটি নাচের ভিডিয়ো শেয়ার করলেন গল্লি বয়ের এমসি শের। যেখানে চিকনি চামেলি গানে একটি কলেজ প্রোগ্রামে নাচতে দেখা গেল সুশান্ত এবং সিদ্ধান্তকে। 

২০১২ সালে জাতীয় স্তরে অনুষ্ঠিত একটি গ্ল্যামার হান্ট প্রোগ্রামের বিশেষ অতিথি হিসাবে হাজির ছিলেন সুশান্ত সিং রাজপুত, তখন মানব নামেই গোটা দেশে রাজ করতেন সুশান্ত। সেই প্রতিযোগিতাটি জিতে ছিলেন সিদ্ধান্ত। তাঁর কথায় যেভাবে সুশান্ত সেদিন তাঁর নাম ঘোষণা করেছিল সেটা দেখে সিদ্ধান্তের মা-বাবা সুনিশ্চিত হয়েছিল ছেলের স্বপ্ন নিঃসন্দেহে পূরণ হবে। কোন স্বপ্ন? বলিউডে কেরিয়ার গড়বার স্বপ্ন। তাই অনুমতি মিলেছিল মুম্বই যাওয়ার। ছোট শহর থেকে মুম্বই এসেও যে স্বপ্নপূরণ করা যায়, মধ্যবিত্ত ঘরের ছেলেরাও গডফাদার ছাড়া সফল হতে পারে- সে কথা প্রমাণ করেছিলেন সুশান্ত। তাই তো তিনি বহু উঠতি অভিনেতার অনুপ্রেরণা। 

ভিডিয়োতে ক্যাটরিনা কাইফের চিকনি চামেলি গানে যেভাবে মন খুলে নাচছেন সুশান্ত-সিদ্ধান্ত, তা সত্যি থমকে দেখতে হয়। প্রতিটা মুহূর্তকে বাঁচতে জানতেন সুশান্ত। তাই তো অচেনা-অজানা কোনও নতুন প্রতিভার সঙ্গে এভাবে মিশে যেতে পারতেন তিনি। 

সিদ্ধান্ত এই ভিডিয়ো শেয়ার করে লেখেন- কলেজে পড়তাম, বি.কম নিয়ে, সঙ্গে যা স্বাভাবিক-সিএ করছিলাম। একটা জাতীয় স্তরের ট্যালেন্ট হান্টে অংশ নিলাম..জিতলাম আমি, নাচলাম আমরা দুজনে। তারপর আমার কনফিডেন্স..উফ..!! ওই রাতে আমি আর আমার পরিবার ঘুমোতে পারিনি। সুশান্ত সিং রাজপুতের গলায় আমার নাম উচ্চারণ হচ্ছে স্টেজে..তাও বিজয়ী হিসাবে। মা-বাবার মনে হয়েছিল কিছু তো ব্যাপার আছে আমার মধ্যেও…সিএ ছেড়ে হিরো হওয়ার অনুমতি মিলল তাঁদের কাছে। আমার প্রথম জয়, আমার পথচলার শুরু। আজকালও ঘুম আসে না, এই ভিডিয়োটা হাজারবার দেখেছি, আজ ভাবলাম আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করব কি না ??  তারপর ভাবলাম দুজনে এত ভালো নেচেছি, শেয়ার করাটা তো বনতা হ্যায় গুরু!

সুশান্তের স্মরণে সিদ্ধান্তের আবেগঘন পোস্ট এই প্রথম নয়। আগেও একাধিকবার সুশান্ত সিং রাজপুতকে স্মরণ করে নিয়েছেন সিদ্ধান্ত। সুশান্তের মৃত্যুর ঠিক দু'দিন পর সিদ্ধান্তের একটি পোস্ট মন ছুঁয়ে যায়। তিনি লিখেছিলেন, যখন তুমি ছিলে আমি কিছুই ছিলাম না। এখন আমি আছি কিন্তু তুমি চলে গেলে, ভেবেছিলাম.. দুজনের দেখা হলে ভোজপুরীতে গল্প করব গুরু… বলিয়া থেকে পাটনা খুব বেশি দূর নয়….

বন্ধ করুন