বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ‘আমাকে শেষ বিদায় জানাতেই এসেছিল’, শেরদিল ছবিতে কেকে-র সঙ্গে কাজ প্রসঙ্গে গুলজার!
কেকে প্রসঙ্গে যা জানালেন গুলজার। 

‘আমাকে শেষ বিদায় জানাতেই এসেছিল’, শেরদিল ছবিতে কেকে-র সঙ্গে কাজ প্রসঙ্গে গুলজার!

  • সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ‘শেরদিল’ ছবিতে শেষ কাজ করেন কেকে। গায়কের স্মৃতিচারণায় আবেগে ভাসলেন বর্ষীয়ান সংগীত পরিচালক। 

সদ্য প্রয়াত গায়ক কেকে-র সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরলেন গুলজার। 'শেরদিল: দ্য পিলিভিট সাগা'-তে কেকে-র সঙ্গে শেষ কাজ করেছেন গুলজার। রেকর্ড করেছেন ‘ধুপ পানি বেহনে দে’। প্রসঙ্গত, ওটাই কেকে-র রেকর্ড করা শেষ গান।

নিজের প্রথম রেকর্ডিংও গুলজারের সঙ্গেই করেছিলেন কেকে। ‘মাচিস’ সিনেমার ‘ছোড় আয়ে তুম ও গলিয়া’ গেয়েছিলেন ১৯৯৬ সালে। দৈনিক ভাস্করের সঙ্গে কথা প্রসঙ্গে সংগীত পরিচালক গুলজার জানান, ‘সৃজিত আমার একটা বড় উপকার করেছে। শুধু যে আমি অত ভালো একটা সিনেমার জন্য গাইতে পেরেছি তা নয়, অনেক বছর পর কেকে-র সঙ্গে দেখা হওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে। কেকে-র প্রথম গান ছিল আমার সিনেমা মাচিসের জন্য। আমার মন আনন্দে নেচে উঠেছিল যখন ও শেরদিলের জন্য ধুপ পানি বহেনে দে গাইতে এল।’ আরও পড়ুন: 'ধূমপান, মদ্যপান করি না, ধোঁয়া সহ্য করতে পারি না', পুরনো সাক্ষাৎকারে কেকে

‘এটা ভাবতে খারাপ লাগে এটাই ওর রেকর্ড করা শেষ গান হিসেবে থেকে যাবে। মাঝে মাঝে মনে হয় ও শেষবারের জন্য বিদায় নিতেই হয়তো এসেছিল।’, বললেন প্রবীন সংগীত পরিচালক। প্রসঙ্গত, সৃজিৎ মুখোপাধ্যায় পরিচালিত 'শেরদিল: দ্য পিলিভিট সাগা'-তে অভিনয় করেছেন পঙ্কজ ত্রিপাঠি, নীরজ কাবি, সায়নী গুপ্তরা।

কেকে কনসার্টের জন্য কলকাতায় এসেছিলেন মে-র শেষ সপ্তাহে। এই গায়ককে নিয়ে মাতামাতি ছিল দেখার মতো। তবে ৩১ তারিখ কলকাতার নজরুল মঞ্চে গান গাওয়ার পরেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন তিনি। সেদিন অডিটোরিয়ামে উপস্থিত দর্শকদের দাবি স্টেজেই অসুস্থ বোধ করছিলেন। এরপর সেখান থেকে বেরিয়ে হোটেলে ফেরার সময় আরও শরীর খারাপ হয়। কলকাতার গ্র্যান্ড হোটেলে উঠেছিলেন তিনি। হোটেলে পৌঁছেও শরীর খারাপ করতে থাকলে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় কেকে-কে। এবং ডাক্তাররা তাঁকে মৃত ঘোষণা করে।

 

বন্ধ করুন