হটস্টারে কেন দেখা যাচ্ছে না এই এপিসোড? কোন জবাব দেয়নি কর্তৃপক্ষ (সৌজন্যে-ইউটিউব)
হটস্টারে কেন দেখা যাচ্ছে না এই এপিসোড? কোন জবাব দেয়নি কর্তৃপক্ষ (সৌজন্যে-ইউটিউব)

'ঘৃণার অস্থায়ী প্রতীক' নরেন্দ্র মোদি! হটস্টারে ব্লক জন অলিভারের ভাইরাল এপিসোড

  • ‘ঘৃণার অস্থায়ী প্রতীক’ মোদি এই অনুষ্ঠানে জানিয়েছেন জন অলিভার। সিসিএকে মুসলীম বিরোধী আইন বলেও উল্লেখ করেন এই ব্রিটিশ কৌতুক অভিনেতা।

মঙ্গলবার দিনভর টুইটারে ট্রেন্ড করেছেন জন অলিভার। সৌজন্যে এই ব্রিটিশ কৌতুকবিদের সাপ্তাহিক শো ‘লাস্ট উইক টুনাইটের উইথ জন অলিভার’। যেখানে সিএএ এবং এআরসি ইস্যুতে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির তীব্র সমালোচনা করেছেন জন অলিভার। জন অলিভারের এই ভাইরাল এপিসোড ব্লক করা হল ওটিটি(OTT) প্ল্যাটফর্ম হটস্টারে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রবিবার রাতে এইচবিও চ্যানেলে এই শো সম্প্রচারিত হয়। মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে ভারতে ডিজিট্যাল প্ল্যাটফর্ম হটস্টারে দেখা যায় এই শো। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ট ট্রাম্পের ভারত সফরচলাকালীনই মোদির বিরোধীতায় এই এপিসোড সম্প্রচারিত হয়, যদিও সেই এপিসোড গায়েব হটস্টার থেকে। কেন? কোনও জবাব মেলেনি কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে। রুপার্ট মারডকের ২১ সেঞ্চুরি ফক্সকে ২০১৮ সালের জুন মাসে কিনে নেয় ওয়াল্ট ডিজনি। যার ফলে স্টার ইন্ডিয়া, ফক্স স্টার স্টুডিও এবং হটস্টার এখন ওয়াল্ট ডিজনির অংশ।

যদিও ইউটিউবে সহজেই দেখা যাবে যাচ্ছে এই এপিসোড। এবং মুহূর্তের মধ্যেই ১৮ মিনিট দীর্ঘ এই এপিসোডের ভিউ সংখ্যা ৫০ লক্ষ পার করেছে।


এই অনুষ্ঠানে সিএএ-র সমালোচনা করে একে ‘মুসলিম-বিরোধী' আইন বলে ব্যাখ্যা করেন অলিভার। জানান,’মোদি এবং তাঁর দল সম্ভবত লক্ষ লক্ষ মুসলিমের নাগরিকত্ব কেড়ে নেবেন’। এখানেই শেষ নয়, প্রধামন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ‘ঘৃণার অস্থায়ী প্রতীক’ বলে উল্লেখ করেছেন জন অলিভার।

যদিও এটাই প্রথম নয়, এর আগেও সেন্সরশিপের ঘটনা ঘটেছে হটস্টারে। ২০১৯-এর নভেম্বর মাসে হটস্টার এই শোয়ের একটি এপিসোডে বেশকিছু অংশ ছেঁটে ফেলেছিল যেখানে ডিজনি সম্পর্কে রসিকতা করেছিলেন জন অলিভার। ডিজনির অধীনস্থ সংস্থা হটস্টার ভারতের সবচেয়ে বড় ওটিটি(OTT) প্ল্যাটফর্ম। এছাড়া অ্যামাজন প্রাইম থেকেও ম্যাডাম সেক্রেটারি শোয়ের একটি এপিসোড তুলে নেওয়া হয়েছিল-যেখানে হিন্দু জাতীয়তাবাদ এবং মুসলীমদের উপর অত্যাচার তুলে ধরা হয়েছিল।

ভারতে ডিজিট্যাল প্ল্যাটফর্মে সেন্সারশিপ নিয়ে এখনও ধোঁয়াশা রয়েই গিয়েছে। তথ্য সম্প্রচার মন্ত্রক থেকে বারংবার এই ডিজিট্যাল স্ট্রিমিং সাইটগুলোকে স্বনিয়ন্ত্রণের উপর জোর দিতে বলেছে। হটস্টার, ভুট, সোনিলিভ, রিয়ালেন্স জিও-র মতো প্ল্যাটফর্মগুলো ইতিমধ্যেই রাজি হয়েছে যে ইন্টারটেন্ট এবং মোবাইল অ্যাসোশিয়েশনের অধীনে ডিজিট্যাল কনটেন্ট সম্পর্কে দর্শকরা অভিযোগ জানাতে পারবে।



বন্ধ করুন