বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > 'সহকারী পরিচালক হিসেবে জঘন্য ছিলাম', কেন এহেন স্বীকারোক্তি করলেন অর্জুন?
অর্জুন কাপুর। (ছবি সৌজন্যে - ফেসবুক)
অর্জুন কাপুর। (ছবি সৌজন্যে - ফেসবুক)

'সহকারী পরিচালক হিসেবে জঘন্য ছিলাম', কেন এহেন স্বীকারোক্তি করলেন অর্জুন?

  • অভিনেতা হওয়ার আগে 'কল হো না হো' এবং 'সালাম-এ- ইশক' ছবিতে সহকারী পরিচালকের দায়িত্ব সামলেছেন অর্জুন কাপুর। তবে ওই কাজে যে তিনি মোটেই ভালো ছিলেন না তা নিজের মুখেই জানিয়েছেন এই তারকা।

২০১২ সালে বড়পর্দায় মুক্তি পেয়েছিল 'ইশকজাদে'। এই ছবির মাধ্যমেই বলিউডে পা রেখেছিলেন অর্জুন কাপুর। সাদরে গৃহীতও হয়েছিলেন দর্শকদের মধ্যে। তবে অভিনেতা হওয়ার আগে সহাকরী পরিচালক হিসেবে দীর্ঘদিন বলিপাড়ায় কাটিয়েছিলেন তিনি। নিখিল আডবানির 'কল হো না হো' এবং 'সালাম-এ-ইশক' এই দুই ছবিতে সহকারী পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব সামলেছিলেন এই 'গুন্ডে'। তবে সে কাজে যে তিনি মোটেই ভালো ছিলেন না সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে সেকথা নিজেই জানিয়েছেন অর্জুন। বলি-নায়কের কথায়, 'একেবারে জঘন্য ছিলাম সে কাজে।'

অর্জুন আরও বলেন,' বিশ্বাস করুন, খুব খারাপ ছিলাম ওই কাজে। আসলে বলতে খারাপ লাগলেও ছোট থেকেই সুবিধে পেয়ে বড় হয়েছিলাম। এখানে সুবিধে বলতে কিন্তু স্রেফ অর্থনৈতিক সচ্ছলতার কথা বলছি না। মানে বলতে চাইছি ভুল করেও পার পেয়ে যাব, এই ধারণা পোষণ করার মতো পাকাপোক্ত জায়গা ছিল আমার। তার ওপর ফিল্মি পরিবার থেকে আসার ফলে এই ধারণা আরও বদ্ধমূল হয়েছিল যে সহকারী পরিচালক হওয়াটা এলেবেলে ব্যাপার। যে কেউ করতে পারে। কিন্তু সে ধারণা কত বড় ভুল ছিল তা বুঝতে পেরেছিলাম ছবির সেটে কাজ শুরু করার পর।'

সামান্য থেমে তারকার সংযোজন,' কল হো না হো ছবিতে পরসাহালক নিখিল আডবানির সহকারী হিসেবে কাজ শুরু করি। সে সময়ে এমনও হয়েছে অনেকবার যে সেটে পরিচালক ঢুকে যাওয়ার পরে আমি হাজির হয়েছি! তারপর হয়ত কোনও কাজ করতে লাগবে ১৫ মিনিট সেটা আমি ৪ ঘন্টা লাগিয়েছি শেষ করতে। বলতে চাইছি নিজের কাজ ভালো না হলেও কাজের পরিবেশ এবং গোটা বিষয়টা কিন্তু তখন থেকেই দিব্যি উপভোগ করতাম। এরপর অবশ্য সালাম-এ-ইশক ছবিতে কাজ করার সময়ে বুঝতে পারি আমার কাজের গতি ও ধরণ দুইই ধীরে ধীরে বদলে গেছে। উন্নতি করতে শুরু করলাম দ্রুত। পরবর্তী সময়ে কাজটাকে গভীরভাবে ভালোবেসে ফেলি। ভবিষ্যতে যে আমিও কোনওদিন পরিচালক হতে চাই, সেই স্বপ্ন দেখা শুরু করেছিলাম তখন থেকেই।'

 

বন্ধ করুন