বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > সত্যজিতের সোনায় কেল্লার প্লটে ঢুকে পড়ল চুলবুল পাণ্ডে,ভুলের জন্য ক্ষমা চাইল IFFI
ক্ষোভ ফুঁসছেন সিনেপ্রেমীদের একাংশ
ক্ষোভ ফুঁসছেন সিনেপ্রেমীদের একাংশ

সত্যজিতের সোনায় কেল্লার প্লটে ঢুকে পড়ল চুলবুল পাণ্ডে,ভুলের জন্য ক্ষমা চাইল IFFI

  • সোনার কেল্লা প্রযোজনা করেছেন- আরবাজ খান, মালাইকা আরোরা! এমনই লেখা ছিল IFFI-র অফিসিয়্যাল ওয়েবসাইটে। 

করোনা আবহে দু-মাস পিছিয়ে শনিবার থেকে গোয়ায় শুরু হয়েছে ইন্ডিয়ান ইন্টারন্যাশন্যাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল বা ইফির ৫১তম এডিশন। প্রথম দিনই বিতর্কে কর্তৃপক্ষ। ছবি উত্সবের আনুষ্ঠানিক ওয়েবসাইটে বড় বিভ্রাট নজর এড়ালো না নেট নাগরিকদের।

এবছর বিশ্ববন্দিত বাঙালি চলচ্চিত্র পরিচালকের মহান কর্মযজ্ঞকে বিশেষ সম্মান জানাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। ‘হোমেজ’ বিভাগে প্রদর্শিত হবে অস্কারজয়ী পরিচালকের পাঁচটি ছবি, তালিকায় রয়েছে 'সোনার কেল্লা'ও। অথচ ভুলবশত এই ছবির ‘সারসংক্ষেপে’ ভুল করে ঢুকে পড়ল সলমন খানের ‘দাবাং’ ছবির প্লট। এই অদল-বদলের জেরে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায় টুইটারে। পরে এই অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য ক্ষমা চেয়ে নেয় কর্তৃপক্ষ। 

সত্যজিতের লেখা ‘ফেলুদা’ সিরজের একই নামের গল্প অবলম্বনে তৈরি হয়েছিল এই ছবি। ১৯৭৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত এই ছবিতে অভিনয় করেছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, সন্তোষ দত্ত, সিদ্ধার্থ চট্টোপাধ্যায়, কুশল চক্রবর্তীরা। 

ভাইরাল স্ক্রিনশট
ভাইরাল স্ক্রিনশট

এই ছবির বিররণে লেখা ছিল, এটি প্রযোজনার দায়িত্বে রয়েছেন আরবাজ খান, মালাইকা আরোরা এবং ধিলিন মেহতা। অন্যদিকে ছবির কাহিনি সম্পর্কে বলা হয়, ‘এটি দাবাং পুলিশ অফিসার চুলবুল পান্ডের কাহিনি, যে নিজেও দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত। সত্ বাবা ও ভাই মাক্ষী পাণ্ডের সঙ্গে তাঁর তিক্ত সম্পর্ক। তবে চুলবুলের জীবন পালটে যায় যখন এক দুর্নীতিপরায়ণ নেতার মুখোমুখি হয় সে’।  ২০১০ সালে মুক্তি পাওয়া সলমনের দাবাং ছবির এই প্লট সোনার কেল্লার নীচে লেখা ছিল ইফির ওয়েবসাইটে। মুহূর্তের মধ্যেই সেই স্ক্রিনশট ভাইরাল হয়ে যায়।

ইফির আনুষ্ঠানিক টুইটার হ্যান্ডেলে এই ভুলের জন্য ক্ষমা চেয়ে নেওয়া হয়েছে। সেখানে লেখা হয়- ‘আমরা ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি ইফির ফিল্ম গাইডে সোনার কেল্লা ছবি সম্পর্কে একটা ভুল তথ্য দেওয়ার জন্য। এটা একেবারেই অনিচ্ছাকৃত এবং সেই ভুল শুধরে নেওয়া হয়েছে। এর জন্য যে অসুবিধা তৈরি হয়েছে তার জন্য আমরা ক্ষমাপ্রার্থী’। 

এই ভুল নিয়ে নানা মুনির নানা মত। পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়, সেই গন্ডোগোলের স্ক্রিনশট শেয়ার করে লিখেছেন- ‘থাপ্পড় সে ডর নেহি লাগতা সাহাব, ফেলু মিত্তির সে লাগতা হে- মন্দরা বোস’। 

সোনার কেল্লা ছাড়াও সত্যজিত রায়ের ‘পথের পাঁচালি’, ‘চারুলতা’, ‘শতরঞ্জ কে খিলাড়ি’ এবং ‘ঘরে বাইরে’ ছবি প্রদর্শিত হবে এই ছবি উত্সবে। 

বন্ধ করুন