বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ‘মিঠাই’ vs ‘ধুলোকণা’: মানালির বক্তব্য,'কম্পিটিশন হিসাবে আমি কোনওকিছুই নিচ্ছি না'
টিআরপির লড়াইয়ে এবার মুখোমুখি মানালি-সৌমিতৃষা 
টিআরপির লড়াইয়ে এবার মুখোমুখি মানালি-সৌমিতৃষা 

‘মিঠাই’ vs ‘ধুলোকণা’: মানালির বক্তব্য,'কম্পিটিশন হিসাবে আমি কোনওকিছুই নিচ্ছি না'

  • রাত আট-টার স্লটে এবার মুখোমুখি ‘মিঠাই’ আর ‘ফুলঝুরি’। মিঠাইয়ের একচেটিয়া রাজত্বে কি থাবা বসাতে পারবে ‘ধুলোকণা’?

গত দু-মাস ধরে টিআরপি তালিকায় শীর্ষস্থান থেকে টলানো যাচ্ছে না ‘মিঠাই’কে। সৌমিতৃষা-আদৃত ম্যাজিকের সামনে ডাহা ফেল বাকি সব সিরিয়াল। যে কোনও চ্যানেলের জন্যই রাত ৮টার স্লট খুব গুরুত্বপূর্ণ। একটা সময় এই স্লটে রাজ করেছে ‘মোহর’। কিন্তু টিআরপি অল্প ভাটা পড়তেই চ্যানেল ‘মোহদীপ’ জুটির সিরিয়ালকে দুপুরের স্লটে নামিয়ে নিয়ে যায়, অন্যদিকে সেই জায়গা নেয় ‘বরণ’। কিন্তু তিন মাসের মধ্যেই সেই সিদ্ধান্তে বদল। 

মানালি মণীষা দে এবং ইন্দ্রাশিস রায়ের নতুন শো ‘ধুলোকণা’ আগামী সপ্তাহ থেকে জায়গা নিচ্ছে ‘বরণ’-এর। য় ‘মিঠাই’-কে টেক্কা দিতে চ্যানেলের বাজি লীনা গঙ্গোপাধ্যায় ও শৈবাল বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘ম্যাজিক মোমেন্টস’-এর নতুন ফ্যামিলি ড্রামা। ‘মিঠাই’-এর রাজত্বে কি থাবা বসাতে পারবে ফুলঝুরি আর লালানের গল্প? সেই প্রশ্নের উত্তর পেতে আর মাত্র দিন কয়েকের অপেক্ষা। 

কিন্তু অনুরাগীদের ইতিমধ্যেই চাপা উত্তেজনা। মানালি-ইন্দ্রাশিসের অভিজ্ঞতা কি টপকে দিতে পারবে মিঠাই-সিধের কেমিস্ট্রিকে? প্রশ্নটা ঘুরপাক খাচ্ছে সকলের মনেই। এই নিয়ে 'ধুলোকণা'র ফুলঝুরি মানে মানালি কী বলছেন? সিরিয়ালের ভার্চুলাল প্রেস মিটে ভ্যানিটি ভ্যানে বসেই মানালি বললেন, ‘দেখুন,দায়িত্ব তো রয়েছে। আমি যখনই কোনও কাজ করি আমার মনে হয় আমাকে সেরাটা দিতে হবে। এখানে একটা ভরসা আছে, ভরসার নাম লীনা গঙ্গোপাধ্যায়। এই হাউজের সঙ্গে আমার দ্বিতীয় কাজ ধুলোকণা। আমি এটা জানি, ওঁনার চিত্রনাট্যে এতোকিছুই থাকে যে একজন অভিনেতার কাজ সহজ হয়ে যায় একটা চরিত্র ফুটিয়ে তোলবার জন্য, কম্পিটিশন হিসাবে আমি কোনওকিছুই নিচ্ছি না।শুধু একটাই কথা বলব, এমন একটা গল্প, এমন একটা চরিত্র যেটা দর্শক অনেকদিন মনে রাখবে। লোকের ভালোবাসায় শো’টা অনেকদূর এগিয়ে যাবে, আমরা আমাদের টেলিকাস্ট শুরুর অপেক্ষা করছি। আমার মনে হয় সম্প্রচার শুরু হলেই আমরা রেজাল্ট পাব’।  

মানালি আরও যোগ করলেন, ‘বউ কথা কও’-এর মৌরি কিংবা 'নক্সি কাঁথা'র 'শবনম', আমি অনেক কাজ করেছি। কিন্তু আমি আগে যে সব কাজ করেছি, তার সঙ্গে ফুলঝুরির কোনও মিল নেই। এই চরিত্রটার ভাষা খুব জরুরি একটা ফ্যাক্টর, সেটা নিয়ে বেশি কিছু বলব না। তবে এটা বলছি, ফুলঝুরি বস্তির মেয়ে, বাকিটা লীনাদি (গঙ্গোপাধ্যায়) বলতে বারণ করেছে। সেটা পর্দায় দেখতে পাবে'।

এখন অপেক্ষা ১৯শে জুলাই থেকে ‘ধুলোকণা’র সম্প্রচার শুরুর। ইন্দ্রাশিস-মানালি ছাড়াও এই শো-তে দেখা মিলবে, বাদশা মৈত্র, মৈনাক বন্দ্যোপাধ্যায়, রিতা দত্ত চক্রবর্তী, ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়, শঙ্কর চক্রবর্তীদের। 

বন্ধ করুন