বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Jacqueline Fernandez: বিতর্ক যেন নিত্যসঙ্গী! টানা আট ঘণ্টা জেরার পর ফের জ্যাকলিনকে সমন দিল্লি পুলিশের
আর্থিক তছরুপের মামলায় নাম জড়াল জ্যাকলিনের।

Jacqueline Fernandez: বিতর্ক যেন নিত্যসঙ্গী! টানা আট ঘণ্টা জেরার পর ফের জ্যাকলিনকে সমন দিল্লি পুলিশের

রোহিনী জেলে বসেই একাধিক জালিয়াতি করেছেন বলে সুকেশের বিরুদ্ধে অভিযোগ এ বিষয়ে আপাতত তদন্ত চালাচ্ছে দিল্লি পুলিশ এবং এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)।

বিতর্ক যেন পিছু ছাড়ে না। ২০০ কোটির প্রতারণার মামলায় জেরার জন্য জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজকে ডেকে পাঠাল দিল্লি পুলিশের অর্থনৈতিক অপরাধ দমন শাখা। সোমবার সকাল ১১টায় হাজিরা দিতে বলা হয়েছে তাঁকে।

বুধবার টানা আট ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় জ্যাকলিনকে। তাঁর সঙ্গেই ডেকে পাঠানো হয়েছিল পিঙ্কি ইরানিকে। আর্থিক তছরুপের মামলায় অভিযুক্ত সুকেশ চন্দ্রশেখরের সঙ্গে জ্যাকলিনের পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন পিঙ্কি। এই কাজের জন্য নাকি সুকেশের থেকে কোটি কোটি টাকা নিয়েছিলেন।

রোহিনী জেলে বসেই একাধিক জালিয়াতি করেছেন বলে সুকেশের বিরুদ্ধে অভিযোগ এ বিষয়ে আপাতত তদন্ত চালাচ্ছে দিল্লি পুলিশ এবং এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। জেলের ভিতরে সুকেশ কী কী অনৈতিক কাজ করেছেন, তার খোঁজ করছে পুলিশ। অন্য দিকে, তাঁর বিরুদ্ধে আর্থিক তছরুপের অভিযোগগুলি খতিয়ে দেখছে ইডি।

বুধবার জিজ্ঞাসাবাদের সময় সুকেশের সঙ্গে নিজের সম্পর্কের কথা স্বীকার করে নেন জ্যাকলিন। অর্থনৈতিক অপরাধ দমন শাখার এক আধিকারিক জানান, জ্যাকলিনকে তাঁর সহকর্মীরা সুকেশের থেকে দূরত্ব বজায় রাখার উপদেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি তাঁদের কোনও কথাই শোনেননি। সুকেশের থেকে থেকে নানা বহুমূল্য উপহার এবং আর্থিক সুযোগসুবিধা উপভোগ করেন তিনি।

(আরও পড়ুন: শুধু জ্যাকলিন নন, তাঁর পরিবারও কোটি-কোটি টাকা নিয়েছে সুকেশের থেকে: ইডি)

তোলাবাজির টাকায় বিশাল সম্পত্তি হয় সুকেশের। আর সেই সম্পত্তির লোভ দেখিয়েই নাকি জ্যাকলিনের মন জয় করতে চেয়েছিলেন সুকেশ। সফলও হয়েছিলেন তিনি। সুকেশকে নিজের 'স্বপ্নের পুরুষ' বলে মনে করতেন তিনি। তাঁকেই বিয়ে করতে চেয়েছিলেন জ্যাকলিন।

(আরও পড়ুন: সুকেশ জোর করে বাইক উপহার দিয়েছিল, দাবি জ্যাকলিনের এজেন্টের! বাইকটির দাম কত)

অতীতে একাধিক জিজ্ঞাসাবাদের সমন এড়িয়েছেন জ্যাকলিন। বুধবারের পর কি ফের সোমবার হাজিরা দেবেন তিনি? ফের সামনে আসবে নতুন কোনও তথ্য? এখন সেটাই দেখার।

বন্ধ করুন