বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ট্রাম্পের টুইট টেনে বলিউডের মাদকাসক্তির সঙ্গে পুরুষতন্ত্রকেও একহাত নিলেন কঙ্গনা
ফের বিস্ফোরক কঙ্গনা 
ফের বিস্ফোরক কঙ্গনা 

ট্রাম্পের টুইট টেনে বলিউডের মাদকাসক্তির সঙ্গে পুরুষতন্ত্রকেও একহাত নিলেন কঙ্গনা

  • থামছেন না কঙ্গনা। প্রতিদিনই টুইটারে আরও আক্রমণাত্মক নায়িকা।

আসন্ন আমেরিকান প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আবহকে ব্যবহার করেও এবার টুইটারে বিস্ফোরণ ঘটালেন অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াত । মার্কিন সময় অনুসারে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হতে চলেছে বহু প্রতীক্ষিত প্রেসিডেন্সিয়্যাল ডিবেট । কিন্তু সেই বিতর্ক অনুষ্ঠানের আগেই বিরোধী পদপ্রার্থী জো বাইডেনকে মাদকাসক্ত বলে অভিহিত করলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প । দাবি করলেন বিতর্কের আগে বা পরে যেন প্রতিদ্বন্দ্বী বাইডেনের অবশ্যই ড্রাগ টেস্ট করা হয় । আর এখানেই বিরোধী দলের প্রধানকে মানসিক ভারসাম্যহীন বলে সরাসরি উল্লেখ না করে শুধুমাত্র মাদক পরীক্ষার চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেওয়াতে ট্রাম্পের বুদ্ধিতে খুশি হয়েছেন কঙ্গনা ।

রবিবার নিজের টুইটে ট্রাম্প বলেন, 'আমি মঙ্গলবার রাতের বিতর্ক শুরু হওয়ার আগে বা শেষ হওয়ার পরে জো বাইডেনের ড্রাগ টেস্টের জোর দাবি জানাব' । নিজেও প্রতিদ্বন্দীর সাথে ড্রাগ টেস্ট করাবেন দাবি করে ট্রাম্প জানান। যেভাবে বাইডেন নির্বাচনের আগে একের পর এক ‘ভুয়ো’ দাবি করছেন বা নাটকীয় বক্তৃতা পেশ করছেন , তা একমাত্র মাদক ব্যবহারের দ্বারা সম্ভব হতে পারে বলে মনে করছেন ট্রাম্প ।

সম্প্রতি সুশান্ত মামলার সাথে সম্পর্কিত বলিউডের ড্রাগ তদন্তে একের পর তারকার নাম উঠে এসেছে , যা নিয়ে প্রথম থেকেই সোচ্চার হয়েছিলেন বি-টাউনের মণিকর্ণিকা । ট্রাম্পের টুইট শেয়ার করে কঙ্গনা লেখেন যদিও আমার বক্তব্যের সাথে এই টুইটের মূল বিষয়ের তেমন সম্পর্ক নেই , তবে এটা ভেবে আমার ভালো লাগছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট তাঁর বিপক্ষ প্রার্থীকে সরাসরি মানসিক ভারসাম্যহীন বলে অপমান না করে , মাদকাসক্ত বলে উল্লেখ করেছেন । অন্তত প্রতিপক্ষের মায়ের প্রজনন অঙ্গ তুলে গালি দিয়ে পুরুষতন্ত্রের নোংরা স্বরূপকে ফুটিয়ে তোলার পরিবর্তে এই পথই শ্রেয় ‘। এখান থেকেই বলিউডের ড্রাগ মামলার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন- ‘এতেই প্রমাণ পাওয়া যায় , বাস্তবে মাদক সেবন কতটা ঘৃণ্য অপরাধ এবং সমাজ সেবনকারীকে কী চোখে দেখে’ ।

বলিউডের একাধিক সমসাময়িক বিষয়কে কেন্দ্র করে তাঁর মন্তব্যের ভিত্তিতে ইতিমধ্যেই ইন্ডাস্ট্রির প্রথম সারির অনেকের সাথেই বিতর্কে জড়িয়েছেন কঙ্গনা। বাদ যায়নি মহারাষ্ট্রের সরকার, মুম্বই পুলিশ । সর্বদাই রনংদেহী মানসিকতার জন্য জুটেছে ' লড়াকু ' তকমাও । তবে তিনি নিজে কোনওদিনই কোনও বিবাদ নিজে থেকে শুরু করেননি বলেই দাবি করেছেন কঙ্গনা । ' আমি কোনও লড়াই নিজে থেকে যেচে শুরু করিনি , তবে কখনোই কোনও ময়দান ছেড়ে পালিয়ে আসিনি । যদি যুদ্ধে নামতেই হয় , ভগবান শ্রীকৃষ্ণের আদেশে তখন যুদ্ধ করাটাই ধর্ম । তবে তিনি নিজে থেকে বিবাদে নেমেছেন এমন প্রমাণ কেউ করতে পারলে টুইটার ব্যবহার করে ছেড়ে দেবেন বলে দাবি জানান কঙ্গনা। 

বন্ধ করুন